লাদাখের পর অনন্তনাগে জঙ্গি হামলায় শহীদ বাঙালি জওয়ান

Mysepik Webdesk: জম্মু কাশ্মীরের গত কয়েকদিন ধরেই চলছে জঙ্গিদমন মিশন। সেই মিশনের অংশ হিসেবে অনন্তনাগের বিজবেহারাতে সিআরপিএফ-এর একটি টহলদারি দলে সামিল হয়েছিলেন পশ্চিম মেদিনীপুরের সবং-এর সিংপুর গ্রামের বাসিন্দা শ্যামল কুমার দে (২৭)। ঐদিন সিআরপিএফ-এর ওই দলের ওপর জঙ্গি হামলা হয়। সেই হামলায় শহীদ হয়েছেন ওই বাঙালি যুবক। পরিবারের একমাত্র ছেলের মৃত্যুতে শোকে পাথর হয়ে গেছে তাঁর পরিবার।

আরও পড়ুন: মুম্বই ধারাবাহিক বিস্ফোরণ: নাসিক জেলে মৃত্যু হল ইউসুফ মেমনের

সংবাদসংস্থা সূত্রে জানা গেছে, ঐদিন অনন্তনাগের বিজবেহারাতে সিআরপিএফ-এর একটি টহলদারি দলের উপরে জঙ্গি হামলায় আহত হন শ্যামল। পাশাপাশি গুরুতর আহত হয় স্থানীয় এক বালক। দুজনকেই হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে তাদের দুজনেরই মৃত্যু হয়। শ্যামলের পরিবার সূত্রে জানা গেছে দু’মাস পরেই শ্যামলের বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। সেইমতো তাঁর পরিবার বিয়ের তোড়জোড়ও শুরু করে দিয়েছিল। একমাত্র ছেলের বিয়ের জন্য বাড়িতে নির্মাণকার্য চলছিল। সেই সামগ্রী কেনার জন্য এদিন বেলা বারোটা নাগাদ শ্যামলের বাবা ছেলেকে ফোন করলে গেলেও তিনি ছেলেকে ফোনে পাওয়া যায়নি। তার কিছুক্ষনের মধ্যেই তাঁর বাবার কাছে ছেলের মৃত্যু সংবাদ এসে পৌঁছায়।

আরও পড়ুন: বৃদ্ধাশ্রমে গিয়ে অচেনা বৃদ্ধা’কে জড়িয়ে ধরে আদর! ভাইরাল সুশান্তের পুরনো ভিডিও

এদিকে জওয়ানের মৃত্যুর খবরে তাঁর পরিবারের পাশে থাকার জন্য শ্যামলের বাড়ি যান তৃণমূল সাংসদ মানাস ভূঁইয়া এবং সবং-এর বিধায়ক গীতা ভুঁইয়া। জেলা পুলিশ প্রশাসনের কর্তারাও নিহত জওয়ানের বাড়িতে যান পরিবারকে সান্তনা দিতে। মানসবাবু জানান, শহিদ জওয়ানের জন্য গোটা সবংবাসী গর্বিত। সরকার এবং দলের তরফে নিহত জওয়ানের পরিবারের পাশে থাকব।

Facebook Twitter Print Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *