রান্নার গ্যাসের গ্রাহকদের জন্য বড় ঘোষণা, এবার বিনামূল্যে মিলবে গ্যাসের সিলিন্ডার!

Mysepik Webdesk: উজ্জ্বলা যোজনার অন্তর্ভুক্ত গ্রাহকদের জন্য বড় ঘোষণা করল মোদি সরকার। আগামী এক বছরের জন্য যেসব উজ্জলা গ্রাহক এলপিজি সিলিন্ডার কেনেন, তাদের আর কোনও টাকা তেল সংস্থাকে দিতে হবে না। সাধারণত এলপিজি (LPG) কানেকশন নেওয়ার ক্ষেত্রে গ্যাস স্টোভ-সহ মোট ৩২০০ টাকা দিতে হয়। এর মধ্যে ১৬০০ টাকা সরকারের পক্ষ থেকে দেওয়া হয় ভর্তুকি হিসেবে আর বাকি ১৬০০ টাকা ইএমআই-এর (EMI) মাধ্যমে তেল সংস্থাকে ফেরত দিতে হয় ৷ কিন্তু ইএমআই-এর ব্যবস্থা এমনভাবে করা হয়েছে যে গ্রাহকদের আর আলাদা করে কোনও টাকা তেল সংস্থাকে দেওয়ার প্রয়োজন নেই।

আরও পড়ুন: এয়ার কুলার চালাতে গিয়ে পরিবারের লোকেরাই খুলে ফেলল ভেন্টিলেশনের প্লাগ, মৃত্যু রোগীর

এলপিজি সিলিন্ডার ভর্তি করার ক্ষেত্রে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে যে সাবসিডির (Subsidy) টাকা ঢোকে সেটা আর অ্যাকাউন্টে না এসে তেল সংস্থাকে দেওয়া হবে। যতদিন না পর্যন্ত ১৬০০ টাকা শোধ হবে ততদিন পর্যন্ত কোনও সাবসিডির টাকা অ্যাকাউন্টে আসবে না। ১৬০০ টাকা শোধ হয়ে গেলে তারপর থেকে সাবসিডির টাকা ব্যাঙ্কে ঢুকতে থাকবে। ১৪ কিলো গ্যাসের ক্ষেত্রে প্রথম ৬ টি সিলিন্ডারে কোনও ইএমআই দিতে হবে না। একবছরের মধ্যে প্রথম ৬ টি সিলিন্ডারে ছাড়ের পর ৭ নম্বর সিলিন্ডার থেকে ইএমআই দিতে হবে। একইভাবে ৫ কিলো সিলিন্ডারের ক্ষেত্রে প্রথম ১৭ টি সিলিন্ডারে কোনও ইএমআই দিতে হবে না। ১৮ নম্বর সিলিন্ডার থেকে ইএমআই দিতে হবে। ইএমআই -এর সুবিধা না নিলে ভর্তুকি রেটেই গ্রাহকরা সিলিন্ডার পাবেন। ২০১৯ সালের পর থেকে যারা নতুন কানেকশন নিয়েছেন তারা এই সুবিধা পাবেন।

আরও পড়ুন: ভারতের কোনও অংশই দখল করেনি চিন, সর্বদলীয় বৈঠকে জানালেন প্রধানমন্ত্রী

এই সুবিধা পাওয়ার জন্য দারিদ্র সীমার নীচে থাকা পরিবারের যে কোনও মহিলা এর জন্য আবেদন করতে পারবেন। এর জন্য KYC ফর্ম ফিলআপ করে নিকটবর্তী এলপিজি কেন্দ্রে জমা করতে হবে ফর্ম ফিলআপ করে নিকটবর্তী এলপিজি কেন্দ্রে জমা করতে হবে। পাশাপাশি নতুন গ্রাহকদের জনধন অ্যাকাউন্ট নম্বর ও আধার কার্ড নম্বর দিতে হবে। আবেদন করার সময় জানাতে হবে আপনি ১৪.২ না ৫ কেজির গ্যাস সিলিন্ডার নিতে চান ৷ এই ফর্ম যেকোনও এলপিজি কেন্দ্র থেকে সংগ্রহ করা যেতে পারে, কিংবা PMUY ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোড করা যাবে।

Facebook Twitter Print Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *