সর্বভারতীয় ইঞ্জিনিয়ারিং পরীক্ষায় সপ্তম স্থান অধিকার করেছিলেন সুশান্ত, জানুন স্টারকিডদের পড়াশোনার বহর

Mysepik Webdesk: পড়াশোনায় তুখোড় ছিলেন সুশান্ত সিং রাজপূত। শুধু তাই নয়, পদার্থবিদ্যা নিয়ে তিনি প্রচুর পড়াশোনা করেছিলেন। পাশাপাশি গান, নাচ, অভিনয়, গিটার বাজানো অনেকক্ষেত্রেই তাঁর দারুন দখল ছিল। মহাকাশ নিয়ে তাঁর কৌতূহল কারও অজানা নয়। পাটনার সেন্ট করিন্স হাই স্কুল থেকে প্রাথমিক পড়াশোনা শেষ করার পর সর্বভারতীয় AIEEE ইঞ্জিনিয়ারিং পরীক্ষায় তিনি সপ্তম স্থান অধিকার করেছিলেন। ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তে পড়তেই তিনি মাঝপথে ছেড়ে দিয়ে বলিউডে পা রাখেন।

আরও পড়ুন: করিনার কালো পোশাকে শরীরচর্চা করার ছবি ভাইরাল

এই সুশান্তকেই একাধিকবার অপমান করছিলেন ষ্টারকিডরা। অথচ তাদের মধ্যে কয়েকজনের পড়াশোনার দৌড় দেখলে আপনিও চমকে যাবেন। আসুন একঝলকে দেখে নেওয়া যাক বলিউডের স্টারকিডদের শিক্ষার বহর কতদূর।

সোনম কাপুর: করণের একটি শোএ এসে তিনি সুশান্তকে চিনতেই পারেননি। ইনস্টাগ্রামে নেপোটিজমের স্বপক্ষে মুখ খুলে নেটিজেনদের রোষের মুখে পড়েন তিনি। সোনম ক্লাস টুয়েলভ পর্যন্ত পড়েই পড়াশোনা ছেড়ে দিয়েছেন।

আলিয়া ভাট: ‘কফি উইথ করণ’-এর মঞ্চে তিনিও সুশান্তকে চিনতে অস্বীকার করেছিলেন। মুম্বইয়ের যমুনাবাঈ নার্সি স্কুল থেকে স্কুলিং শেষ করেই তিনি বলিউডে ঢুকে পড়েন। আর পড়াশোনা করেননি।

করিশ্মা কাপুর: স্কুলের গন্ডিও পেরোননি। ১৬ বছর বয়সেই বলিউডে পা রেখেই তিনি পড়াশোনা ছেড়ে দিয়েছিলেন।

আরও পড়ুন: হাতে মেহেন্দি ! মাথায় ফুল ! নীল পোশাকে নতুন রূপে ধরা দিলেন নুসরত !

সলমন খান: ইনিও স্কুলের গন্ডি পার করেননি। নেপোটিজমের জন্য সলমনের নামে ভুরি ভুরি অভিযোগ রয়েছে।

রণবীর কাপুর: ক্লাস টেনে পরীক্ষায় তিনি মাত্র ৫৪ শতাংশ নম্বর পেয়েছিলেন, তারপরেই তিনি পড়াশোনা ছেড়ে দেন।

অর্জুন কাপুর: দ্বাদশ শ্রেণীর পরীক্ষায় ফেল করার পরেই তিনি পড়াশোনা ছেড়ে বলিউডে প্রবেশ করেছিলেন।

শ্রদ্ধা কাপুর: যমুনাবাঈ নার্সি স্কুল পাস করার পর শ্রদ্ধা ভর্তি হন আমেরিকান স্কুল অব বম্বেতে। সেখান থেকে বস্টন ইউনিভার্সিটিতে পড়াশোনা করতে করতে মাঝপথেই চলে আসেন বলিউডে।

Facebook Twitter Print Whatsapp

3 comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *