ভুয়ো অভিযোগের ভিত্তিতে স্ত্রী আলিয়া সিদ্দিকিকে পাল্টা আইনি নোটিস পাঠালেন নওয়াজউদ্দিন

Mysepik Webdesk: স্ত্রী আলিয়া সিদ্দিকিকে আইনি নোটিশ পাঠালেন অভিনেতা নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকি। উল্লেখ্য, গত ৭ মে ডিভোর্সের জন্য নওয়াজকে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছিলেন তাঁর স্ত্রী আলিয়া সিদ্দিকি। তাঁর উত্তরে এবার পাল্টা আইনি নোটিশ পাঠালেন অভিনেতাও। তিনি এই নোটিশে দাবি করেছেন তাঁর স্ত্রী তাঁর বিরুদ্ধে যে অভিযোগ এনেছে, তা আদতে ভুয়ো এবং তাঁকে পরিকল্পনা করে তাঁর মানহানি করেছেন আলিয়া।

আরও পড়ুন: বিশ্বজুড়ে করোনার প্রতিষেধক তৈরিতে কারা এগিয়ে, জানিয়ে দিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

পাল্টা স্ত্রীকে পাঠানো আইনি নোটিসে অভিনেতা দাবি করেছেন, আলিয়া যেদিন তাঁকে ডিভোর্সের নোটিশ পাঠিয়েছিল, তাঁর ১৫ দিনের মধ্যেই তিনি তার উত্তর দিয়েছিলেন। প্রসঙ্গত, কয়েকদিন আগেই আলিয়া এক সংবাদ মাধ্যমের কাছে একটি সাক্ষাৎকারে জানিয়েছিলেন, তাঁর স্বামী (নওয়াজউদ্দিন) তাঁকে টাকা পাঠানো বন্ধ করায় তিনি সন্তানদের স্কুলের বেতন দিতে পারছেন না। যদিও নওয়াজের আইনজীবী আদনান শেখ আলিয়ার এই দাবি উড়িয়ে দিয়েছেন। তিনি জানিয়েছেন, “প্রত্যেক মাসেই আমার ক্লায়েন্ট (নওয়াজউদ্দিন) স্ত্রীকে টাকা পাঠাচ্ছেন। সন্তানদের জন্যও খরচ পাঠাচ্ছেন তিনি। তার সব রশিদ আমাদের কাছে আছে। এমনকি লকডাউনের আগেও আলিয়াকে এককালীন একটা বড় অঙ্কের টাকা পাঠানো হয়েছিল। পাশাপাশি ডিভোর্সের নোটিশের উত্তরও দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তাঁর (আলিয়া) উদ্দেশ্য আসলে মানহানির মামলা করা। তাই তিনি বলছেন, কোনও উত্তর দেননি নওয়াজ। সেই কারণে আমরাও (আইনজীবী এবং নওয়াজউদ্দিন) তাঁকে বলেছি অভিনেতার বিরুদ্ধে মানহানির অপবাদ দেওয়ার লিখিত ব্যখ্যা দিতে।”

আরও পড়ুন: হিজবুলের মাথা নিকেশ, কাশ্মীরের ডোডা জেলাকে জঙ্গিমুক্ত ঘোষণা

আদনান শেখ (নওয়াজের আইনজীবী) আরও জানিয়েছেন, “বিবাহ-বিচ্ছেদের নোটিশের জবাব আমরা দিয়েছি। এখন তার পদক্ষেপ নেওয়ার পালা। আইনত আমাদের ক্ষতি হলে আমরা পরবর্তী পদক্ষেপ নেব। সে ক্ষেত্রে বলা চলে আমার মক্কেলকে (নওয়াজউদ্দিন) মানহানি করা হয়েছে। এরকম চলতে থাকলে আমরা পরবর্তী আইনি পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হব।” উল্লেখ্য, নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকি এবং আলিয়ার ১০ বছর বৈবাহিক জীবন হলেও, বিয়ের পরেই তাদের মধ্যে সমস্যা শুরু হয়েছিল। এই কারণেই বিগত ৪-৫ বছর ধরে তাঁরা আলাদাই রয়েছেন। আলিয়ার অভিযোগ, বিয়ের পরেই তিনি বুঝতে পেরেছিলেন, নওয়াজ ও তাঁর দাদা কেউই মহিলাদের সম্মান করে কথা বলেন না। তাঁকে প্রায়ই কোনও না কোনও কারণ নিয়ে অপমানিত হতে হত। কথা কাটাকাটির সময় নওয়াজ খুব চিৎকার চেঁচামেচি করতেন। কিন্তু কখনো গায়ে হাত তোলেন নি। কিন্তু নওয়াজের দাদা তাঁকে মারধরও করেছেন বলে অভিযোগ করেন আলিয়া।

Facebook Twitter Print Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *