পেল ট্রায়ালের ছাড়পত্র, জুলাইতে মানবদেহে পরীক্ষামূলক প্রয়োগ করোনার টিকা ‘কোভ্যাক্সিন’-এর

Mysepik Webdesk: গোটা বিশ্বে ইতিমধ্যেই এক কোটি ছাড়িয়ে গেছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। ইতিমধ্যেই কয়েক লক্ষ মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন করোনাভাইরাস সংক্রমিত হয়ে। বিজ্ঞানীরা দিনরাত পরিশ্রম করে চলেছেন করোনার টিকা আবিষ্কারের জন্য। এরই মধ্যে ভারতে মানব শরীরে ট্রায়ালের জন্য ছাড়পত্র পেয়ে গেল ভারত বায়োটেকের তৈরি করোনার টিকা কোভ্যাক্সিন।

আরও পড়ুন: অস্ত্রোপচারের ভয়ে অপারেশন থিয়েটার থেকে পাইপ বেয়ে পালানোর চেষ্টা রোগীর

সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই ভারতের ওষুধপ্রস্তুতকারক সংস্থা ভারত বায়োটেক তৈরি করে ফেলেছে কোভিডের ভ্যাকসিন! সোমবার রাতেই ওই সংস্থা মানব শরীরে ট্রায়ালের ছাড়পত্র পায়। ইতিমধ্যেই অন্য প্রাণীর শরীরে প্রয়োগ করে সাফল্যও মিলেছে। এবার গোটা ভারত জুড়ে জুলাই মাসে প্রথম দুই পর্বের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চলবে। এই কাজে ভারত বায়োটেককে সাহায্য করছে ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ভাইরোলজি।

আরও পড়ুন: TIKTOK-সহ ফোনে চিনা অ্যাপ ইনস্টল থাকলে কী হতে পারে?

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (WHO) তালিকা অনুযায়ী, বিশ্বজুড়ে এই মুহূর্তে নোভেল করোনাভাইরাসের মোট ১২০টি ভ্যাকসিনের কাজ চলছে। যার মধ্যে কোভ্যাক্সিন এবং চ্যাডক্সের নাম রয়েছে প্রথম সারিতে। পাশাপাশি বেজিংয়ের একটিও ল্যাবও দ্রুত গতিতে কাজ করে চলেছে। যদিও সেরকম আশার আলো দেখছেন না বিশেষজ্ঞরা। এই প্রসঙ্গে ভারতীয় ফার্মাসিউটিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের এক্সিকিউটিভ সদস্য অরিত্র চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছেন, “প্রতিষেধক তৈরি করা গিয়েছে মানেই করোনার অ্যান্টিবডি মানব শরীরে প্রয়োগ করা সম্ভব। কিন্তু সেই অ্যান্টিবডি মানব শরীরে কতদিন পর্যন্ত স্থায়ী হবে, ফের কি বুস্টার ডোজ নিতে হতে পারে? সেই প্রশ্নগুলো কিন্তু থেকেই যাচ্ছে।”

Facebook Twitter Print Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *