লক্ষ্মীর ভাণ্ডারের ফর্ম দেওয়া ও সংগ্রহকে কেন্দ্র করে বিবাদের জেরে গুরুতর আহত ৬

TMC Birbhum

Mysepik Webdesk: আবারও প্রকাশ্যে তৃণমূলের গোষ্ঠী দ্বন্দ্ব। লক্ষ্মীর ভাণ্ডারের ফর্ম দেওয়া ও সংগ্রহকে কেন্দ্র করে গ্রাম্য বিবাদের জেরে সংঘর্ষ বীরভূম জেলার নানুর থানার পেঙা গ্রামে। ঘটনার জেরে গুরুতর আহত ৬। স্থানীয় সূত্রের খবর, সোমবার রাত্রে পেঙা গ্রামে লক্ষ্মীর ভাণ্ডারের ফর্ম বিলিকে কেন্দ্র করে দু’দলের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয় এবং লোহার রড, বাঁশ সহ ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করা হয় উভয় পক্ষকেই।

আরও পড়ুন: শিক্ষক সংবর্ধনা লাভপুরে

স্থানীয় বাসিন্দা রূপচাঁদ মল্লিকের জানান, “গ্রামের সমস্ত মানুষ নানা কাজে ব্যস্ত থাকে। তাই তাদের ঠিক সময়ে পঞ্চায়েত গিয়ে ফর্ম তোলা বা জমা দেওয়া সম্ভব নয়। তাই সবাই মিলে ঠিক হয়েছিল যে বাড়ি বাড়ি গিয়ে লক্ষ্মীর ভাণ্ডারের ফর্ম দিয়ে আসা হবে, যাতে কেউ বাদ না পড়ে। আবার সেই সমস্ত ফর্ম জোগাড় করে পঞ্চায়েতে দেওয়া হবে।”

তিনি অভিযোগ করেন, “লক্ষ্মীর ভাণ্ডারের ফর্ম নিয়ে সোমবার সন্ধ্যাবেলা যখন আলোচনা হচ্ছিল, তখন আলম শেখ, আহাদ শেখ, আমান শেখ ও বজাই শেখের নেতৃত্বে বেশ কিছু লোক আমাদের উপর চড়াও হয়। লাঠি, বাঁশ, রড, ধারালো অস্ত্র দিয়ে আমাদের মারধর করা হয়।”

আরও পড়ুন: বদলে গেল আন্দোলনের রূপরেখা, অনশনে বসলেন বহিষ্কৃত এক ছাত্রী ও অধ্যাপক

অভিযুক্তরা সকলেই আগে সিপিআইএম করতেন বলে অভিযোগ করেছেন আক্রান্তরা। তারা সম্প্রতি দল ছেড়ে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিয়েছে। ঘটনায় গুরুতর আহত ৬ জনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় বোলপুর মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আহত মেহের শেখ জানান, “আমরা অশান্তি চাইনা। আমরা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল করি। তাই গ্রামে শান্তিতে সকলকে নিয়ে থাকতে চাই। কিন্তু ওরা যেভাবে কাল আমাদের আক্রমণ করেছে তা বলার কথা নয়।” আহত মেহেরের মাথায় পায়ে প্রচুর সেলাই পড়েছে তার ডান হাতও ভেঙেছে। ইতিমধ্যেই এই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে নানুর থানার পুলিশ। যদিও এখনও পর্যন্ত কেউ গ্রেফতার হয়নি।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *