জ্বালানির ঐতিহাসিক মূল্যবৃদ্ধি, অদ্ভুত ট্যাগলাইনে টুইটারে মোদিকে বিঁধলেন অভিষেক-পার্থ

Mysepik Webdesk: পেট্রোপণ্যের লাগামছাড়া মূল্যবৃদ্ধির জেরে জেরবার আমজনতা। পরিবহন খরচ বাড়ার ফলে বাড়ছে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম। ইতিমধ্যেই ভারতের বেশ কয়েকটি শহর যেমন মুম্বই, ভোপালে পেট্রোলের দাম লিটারপিছু ১০০ টাকা পেরিয়ে গিয়েছে। যে হারে দাম বাড়ছে, তাতে কলকাতায় এখনও পর্যন্ত পেট্রোলের দাম সেঞ্চুরি না করলেও আগামী দু’এক দিনের মধ্যেই তা লিটার প্রতি ১০০ টাকা পেরিয়ে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে। ইতিমধ্যেই বাংলারও বেশ কয়েকটি জেলায় যেমন কোচবিহার, আলিপুরদুয়ার ও উত্তর দিনাজপুর, দার্জিলিঙে পেট্রোলের দাম ১০০ টাকা পেরিয়ে গিয়েছে। এই পরিস্থিতিতে এবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে টুইট করে সরাসরি আক্রমণ করলেন তৃণমূল নেতা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।

আরও পড়ুন: ছ’ বছরে দশটি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে প্রায় ৩ কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছে দেবাঞ্জন, প্রকাশ্যে চাঞ্চল্যকর তথ্য

গত বছর পেট্রোপণ্যের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে একটি টুইট করেছিলেন অভিষেক। সেই টুইটকেই রবিবার ফের তুলে এনে অভিষেক ‘মোদি বাবু, পেট্রল বেকাবু’ ট্যাগলাইন ব্যবহার করেন। তিনি লিখেছিলেন, “বিজেপি সরকারের আমলে ঐতিহাসিকভাবে জ্বালানি তেলের দাম বেড়েছে। তাঁরা অদম্য চেষ্টা করে সাধারণ মানুষের উপর বোঝা বাড়িয়ে চলেছেন। গত ২০২০ সাল থেকে কিছুই পরিবর্তন হয়নি। মানুষ যখন এই অবস্থা থেকে মুক্তি চাইছে, বিজেপি তখন অন্যকে দোষারোপ করার খেলায় মেতে রয়েছে।”

আরও পড়ুন: রাজ্যপাল-সহ তুষার মেহেতার অপসারণের দাবি নিয়ে রাষ্ট্রপতির দ্বারস্থ হতে চলেছে তৃণমূল

অন্যদিকে তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় লেখেন, “এতদিন ধরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নাটক দেখতে দেখতে মানুষ এখন ক্লান্ত। আকাশছোঁয়া পেট্রলের দাম, কিন্তু এখন আর তাঁর দেখা নেই। মনে হয় আরও একটা বড় মাপের মিথ্যে ভাষণ দেওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন।” প্রসঙ্গত, পেট্রোলের মূল্যবৃদ্ধি রবিবারেও অব্যহত রয়েছে। কলকাতায় রবিবার পেট্রোলের দাম বেড়েছে ৪১ পয়সা। ফলে, কলকাতায় প্রতিলিতের পেট্রল কিনতে গেলে দিতে হচ্ছে ৯৯ টাকা ৪৫ পয়সা। ২৪ পয়সা করে প্রতি লিটার ডিজেলের দাম বেড়ে হয়েছে ৯২ টাকা ২৭ পয়সা।

আরও পড়ুন: রাজ্যে শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে ৭ দিনের মধ্যে নম্বর-সহ মেধা তালিকা প্রকাশ করতে হবে, নির্দেশ হাইকোর্টের

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *