৪১ বছর পর অলিম্পিক ফাইনালে উঠে ইতিহাস গড়তে ব্যর্থ ভারতীয় পুরুষ হকি দল

Mysepik Webdesk: ক্রীড়াপ্রেমীদের নজর ছিল আজ টোকিও অলিম্পিকের দিকে। ভারত ৪১ বছর পর অলিম্পিক হকিতে ফাইনালে ওঠার লক্ষ্যে মাঠে নেমেছিল বেলজিয়ামের বিরুদ্ধে। যদিও খেলা শুরু হতেই ২ মিনিটের মাথায় ১-০ গোলে এগিয়ে যায় বেলজিয়াম। এরপর উজ্জীবিত হকি উপহার দিতে থাকেন ‘মেন ইন ব্লু’র ছেলেরা। প্রথম ৮ মিনিটের মধ্যেই শক্তিশালী বেলজিয়ামের ডিফেন্সের ওপর আধিপত্য বিস্তার করে প্রথম ৮ মিনিটের মধ্যেই ২-১ গোলে এগিয়ে যায় ভারত। উল্লেখ্য, ম্যাচের সপ্তমে মিনিটে হরমনপ্রীতের গোলে সমতায় ফেরে ভারত। পেনাল্টি কর্নার থেকে বল বিপক্ষ দলের জালে জড়াতে কোনও ভুল করেননি তিনি। এর পরের মিনিটেই মনদীপের ফিল্ড গোলে ২-১’এ এগিয়ে যায় ভারত।

আরও পড়ুন: মেডেল জয়ের নেপথ্য নায়ক ‘ওয়ারেবল টেকনলজি

এরপর ম্যাচে ফিরে আসার চেষ্টা করে বেলজিয়াম। মুহুর্মুহু আক্রমণ তারা শানাতে থাকেন ভারতীয় ডিফেন্স লাইনের ওপর। এই সময় অনেকগুলি পেনাল্টি কর্নার আদায় করে নেয় বেলজিয়াম। ১৭ মিনিটে তিন-তিনটি পেনাল্টি কর্নার সেভ করে ভারত। দ্বিতীয় কোয়ার্টারের ১২ মিনিটে বেলজিয়াম তাদের পঞ্চম পেনাল্টি কর্নার পায়। সেই পেনাল্টি কর্নার থেকে আলেকজান্ডার রবি হেনড্রিক্স গোল করে তাঁর দলকে ২-২ গোলে সমতায় ফেরান। এটি এই টুর্নামেন্টে তাঁর ১২তম গোল।

আরও পড়ুন: অস্ট্রেলিয়া বধ শুধু ক্রিকেটে নয়, মহিলা হকিতেও: ভারত জুড়ে উন্মাদনা

এরপর অবশ্য ভারতের সামনে একটি সুযোগ চলে এসেছিল। নীলকান্ত উদ্দেশ্যে একটি অসাধারণ বল বাড়িয়েছিলেন মনদীপ। যদিও এই আক্রমণ নিষ্ফলা থাকে। বেলজিয়ামও পাল্টা আক্রমণ করে ম্যাচের ২৭ মিনিটে আরও একটি পেনাল্টি কর্নার দখল করে। তা প্রতিহত করে ভারত। তৃতীয় কোয়ার্টার শুরু হতেই প্রথম সুযোগ পায় বেলজিয়াম। কিন্তু তাদের খেলোয়াড় কিনারের শট পোস্টের বাইরে চলে যাওয়ায় পতনের হাত থেকে বাঁচে ভারত। তুল্যমূল্য খেলা চলছিল। ৩৩ মিনিটে মনদীপের বেসলাইন দিয়ে একটি দৌড় বৃথা যায়। এরপর একটা দারুণ সুযোগ চলে এসেছিল ভারতের সামনে। ৩৮ মিনিটে পেনাল্টি কর্নার পেয়ে যায় ভারত। নেপথ্যে ছিল সেই অধিনায়ক মনদীপের ডানদিক থেকে আক্রমণ। যদিও সুযোগ নষ্ট করে ভারত। হরমনপ্রীতের শট সেভ করে বেলজিয়াম। উল্লেখ্য, তৃতীয় কোয়ার্টারে ভারতীয় রক্ষণকে যথেষ্ট জমাট দেখিয়েছে।

আরও পড়ুন: ভারতীয় মহিলা হকি দলের কোচ মারিন যেন ‘চাক দে ইন্ডিয়া’র কবীর খান

চতুর্থ অর্থাৎ শেষ কোয়ার্টার শুরু হতেই গ্রিন কার্ড দেখে ২ মিনিটের জন্য বাইরে চলে যেতে হয় মনদীপকে। সুযোগ কাজে লাগায় বেলজিয়াম। দশজনে হয়ে যাওয়া ভারতীয় ডিফেন্স লাইনের ওপর আক্রমণ শানিয়ে পেনাল্টি কর্নার পেয়ে যায় বেলজিয়াম। ৪৯ মিনিটে বেলজিয়ামের পক্ষে স্কোর লাইন ৩-২ করেন সেই আলেকজান্ডার। ৫৩ মিনিটে পেনাল্টি স্ট্রোক পায় বেলজিয়াম। সেখান থেকে গোল করে চলতি অলিম্পিকে নিজের ১৪তম গোল এবং এই ম্যাচে হ্যাটট্রিক সম্পন্ন করে বেলজিয়ামকে ৪-২ গোলে এগিয়ে দেন আলেকজান্ডার। শেষে আরও একটা গোল দেয় বেলজিয়াম। ৫-২ গোলে জিতে নেয় অলিম্পিকের ফাইনালে প্রবেশ করে তারা। ১৯৮০ সালের পর অলিম্পিকে সোনা জয়ের স্বপ্ন অধরাই থাকল। যদিও এখনও থাকছে ব্রোঞ্জ জয়ের সুযোগ। ১৯৮০-র পর কোনও অলিম্পিকেই হকিতে কোনও পদকই জেতেনি ভারত। তাই ভারত যদি ব্রোঞ্জ পদকও পায়, তাহলেও চার দশক পর অলিম্পিক হকি থেকে পদক আনবে ভারত।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *