ট্রেকার চালকের সততার নজির

Shatipur Auto

নদিয়া, ১৮ অক্টোবর: “অন্যের হারিয়ে যাওয়া কোনো কিছুই নিতে নেই!” পুঁথিগত শিক্ষার আগে পরিবার থেকে এমনটাই শিক্ষা পাই আমরা প্রত্যেকে। হারানো প্রাপ্তি ফেরত দেওয়ার ইচ্ছা থাকবে এটাই তো স্বাভাবিক। গতকাল শান্তিপুর ব্লকের গয়েশপুর অঞ্চলের বিএ দ্বিতীয় বর্ষে পাঠরতা সীমা ঘোষ তার এক বান্ধবীকে নিয়ে শান্তিপুর ডাকঘর থেকে হরিপুর স্ট্রিটের মিলন মল্লিকের ট্রেকারে ওঠেন বাড়ি যাওয়ার উদ্দেশ্যে। জোকারের যাত্রাপথ গয়েশপুর সংলগ্ন হিজুলিমোড়ে তারা নেমে টোটোকরে বাড়ি ফেরেন।

আরও পড়ুন: শান্তিপুরে ৫০০ বছরের অধিক পুরনো চাঁদুনি বড়ির পুজো

বাড়িতে ফিরে সীমা লক্ষ্য করেন তাঁর হাতের ব্যাগ নেই। তার ব্যাগে আনুমানিক তিন চার হাজার টাকা এবং গুরুত্বপূর্ণ কিছু ফোন নাম্বার ছিল। ঘটনাটি পাড়ার ওই টোটো চালককে জানালে, সে টেকার স্ট্যান্ড ফোন করে জানায়। অন্যদিকে ততক্ষণে মিলন বাবু ট্রেকার স্ট্যান্ডে সেই ব্যাগটি জমা দিয়েদেন।

আরও পড়ুন: বিধানসভা ভোটের প্রচার নয়, রাতের অন্ধকারেও প্রান্তিক পরিবারের বাড়ি বাড়ি ভোটার স্লিপের মত পৌঁছে গেলো নতুনবস্ত্র

আজ সকাল দশটা নাগাদ সকলের সামনে ব্যাগটি উপযুক্ত অধিকারীর হাতে তুলে দিয়ে মিলন বাবু জানান, দীর্ঘ লকডাউনে বন্ধ ছিল টেকার, প্রয়োজনে অন্যের কাছ থেকে আর্থিক সহযোগিতা চেয়েও নিয়েছি কিন্তু এ টাকা নেওয়ার শিক্ষা পরিবার থেকে পায়নি। ব্যাগটি খুলে একবার শুধু দেখেছিলাম ফোন নাম্বার আছে কি না। অন্যদিকে ছাত্রী সীমা ঘোষ জানান ডাইভার কাকুকে ধন্যবাদ জানানোর ভাষা নেই। তবে ইনাদের মত মানুষদের অপবাদ না দেওয়ার জন্যই সকলের কাছে অনুরোধ করছি।

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *