পুজো মণ্ডপে নিষিদ্ধ অঞ্জলি-সিঁদুর খেলা: হাইকোর্ট

Durga Puja 2020

Mysepik Webdesk: পুষ্পাঞ্জলি, সন্ধি পুজো ও সিঁদূর খেলায় ক্ষেত্রে কোনও ছাড় দিল না কলকাতা হাইকোর্ট। এদিন হাইকোর্ট স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে আগের রায় কোনও ভাবেই বদলানো সম্ভব নয়। তবে জীবিকার কথা ভেবে ঢাকিদের ক্ষেত্রে কিছুটা ছাড় দিয়েছে আদালত। সেক্ষেত্রে আদালতের পক্ষ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, নো এন্ট্রি জোনের ভিতরে ঢুকতে পারবেন ঢাকিরা।

আরও পড়ুন: পুজোর মুখে কেমন আছেন শান্তিপুর, কৃষ্ণনগরের শোলাশিল্পীরা?

মঙ্গলবার দুর্গাপুজো সংগঠনগুলির সমন্বয় কমিটি ফোরাম ফর দুর্গোৎসব পুজো-মণ্ডপ দর্শনার্থী-শূন্য রাখার নির্দেশ পুনর্বিবেচনার জন্য হাই কোর্টে আবেদন জানিয়েছিল। এদিন বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় ও বিচারপতি অরিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডিভিশন বেঞ্চ স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে করোনাভাইরাস সংক্রমণ রুখতে আগের রায় কোনও মতেই পরিবর্তন করা সম্ভব নয়। ফোরাম ফর দুর্গোৎসব কমিটির পক্ষ থেকে আইনজীবী কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন আদালতে প্রথা মেনে সিঁদুর খেলার পাশাপাশি ধাপে ধাপে দর্শনার্থীদের ঢুকতে দেওয়ার দাবি জানান। সেই দাবি খারিজ করে দেয় হাইকোর্ট।

আরও পড়ুন: বহাল থাকছে আগের রায়, পূজামণ্ডপ দর্শনার্থী-শূন্যই থাকছে

হাইকোর্ট আগের রায় পুনর্বিবেচনা করে জানায়, নো এন্ট্রি জোনের ভিতরে ও মণ্ডপের বাইরে কয়েকজন ঢাকি শুধু উপস্থিত থাকতে পারবেন। এ ছাড়া হাইকোর্ট জানায়, ছোট পুজো উদ্যোক্তাদের মণ্ডপে ঢোকার ক্ষেত্রে ২৫ জনের নামের তালিকা প্রতিদিন সকাল বেলায় পুলিশকে দিতে হবে এবং বড় পুজোর ক্ষেত্রে ৬০ জনের নামের তালিকা দিতে হবে। তার মধ্যে কেবলমাত্র ৪৫ জন মণ্ডপ এলাকায় ঢুকতে পারবেন। এর বাইরে সিঁদুর খেলা, অঞ্জলি জন্য পর্যায়ক্রমে মণ্ডপে ঢোকার যে আবেদন করা হয়েছিল, তা খারিজ করে দিয়েছে আদালত। বিচারপতিরা জানিয়েছেন, যে কারণে আগের নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল, তার গুরুত্ব বুঝে রায় পরিবর্তন করা সম্ভব নয়।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *