বিজেপি নেতারা কী জগন্নাথ-বলরাম-সুভদ্রার থেকেও বড়? রায়গঞ্জের জনসভা থেকে তোপ মুখ্যমন্ত্রীর

Mysepik Webdesk: সামনেই পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচন। শাসক দলকে হারিয়ে ক্ষমতা দখলের লড়াইতে চলছে নির্বাচনের প্রচার। জনসাধারণের মন জয় করতে প্রতিটি রাজনৈতিক দলই ওপরের দোষ তুলে ধরতে ব্যস্ত। রাজ্যের প্রধান বিরোধী দল বিজেপি পরিবর্তনের ডাক দিয়ে বাংলা জুড়ে ‘‌পরিবর্তন যাত্রা’‌র তথা রথযাত্রার সূচনা করেছে। ইতিমধ্যেই বাংলায় ভোট প্রচারে এসেছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নড্ডা। আসবেন অমিত শাহ, রাজনাথ সিং, স্মৃতি ইরানি, যোগি আদিত্যনাথের মতো তাবড় তাবড় বিজেপি নেতারাও। এবার বিজেপির রথযাত্রা প্রসঙ্গে রায়গঞ্জের জনসভা থেকে তোপ দাগলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, “বিজেপি নেতারা কেন রথে চড়বে? তারা কি জগন্নাথ-বলরাম-সুভদ্রার থেকেও বড়?‌ তা হলে কি এবার থেকে বিজেপি নেতাদের আমাদের পুজো করতে হবে?”‌‌

আরও পড়ুন: স্বাস্থ্যসাথী কার্ডে ১৫-২০ শতাংশ রেট বাড়ানোর সিদ্ধান্ত

Image result for BJP rath yatra

বিজেপির রথযাত্রাকে কটাক্ষ করে এদিন মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “রথ বের করেছেন বাবুরা। সেই রথে বিরিয়ানি, মাংস, পোলাও, ছানা, কবাব দিয়ে খানাপিনা, বিশ্রাম, সাজুগুজু, গানবাজনা সব চলছে। ওই রথেই বিজেপি নেতারা জনগণের টাকায় ‘ফূর্তি’ করছে। এদিকে বলছে তারা নাকি রথযাত্রা করছে। যেভাবে এরা জগন্নাথদেবের রথযাত্রাকে কালিমালিপ্ত করছে তা দেখে আমি লজ্জিত।” তিনি আগেই বলেছিলেন, ‘১০ স্টার হোটেলে গেলে যা সুবিধা পাওয়া যায় তা রাখা রয়েছে বিজেপির ওই ‘‌পরিবর্তন যাত্রা’‌ রথে। তিনি বলেন, “এরা ধর্মের নামে অর্ধম করছে। রথ দেবতার, বিজেপি হতে পারে না। ‌ধর্মকে ভালবাসতে হলে আগে মানুষকে ভালবাসতে হয়। যারা মানুষ খুন করে, দাঙ্গা করে, লুঠপাট করে, মানুষের রক্ত নিয়ে খেলে তাঁদের মুখে কি ধর্মের কথা মানায়?‌’”

আরও পড়ুন: বিজেপির রথযাত্রা স্থগিত রাখার আর্জি খারিজ হাইকোর্টে

Image result for BJP rath yatra

রথযাত্রা প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীর কথায়, “‌আমরা সবাই জগন্নাথদেবের রথযাত্রায় যাই। আমি নিজেও রথ টানি। রথের মধ্যে থাকে জগন্নাথ-বলরাম-সুভদ্রার মূর্তি। আমরা দেখেছি দেব-দেবীর রথ চড়ে। কিন্তু এখন তো দেখছি আর দেবতারা রথে বসছেন না। পাঁচতারা হোটেল সমান রথ তৈরি করে, তার মধ্যে সমস্ত ভোগের জিনিস রেখে রথযাত্রার নামে নানারকম যাত্রা করে বেড়াচ্ছে। আর বলছে আমরা রথযাত্রা করছি।”‌

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *