ভারতীয় মহিলা ফুটবলের ভবিষ্যৎ নিয়ে আশাবাদী আশালতা দেবী

Mysepik webdesk: ভারতীয় মহিলা জাতীয় ফুটবল দলের অধিনায়ক লোয়েটাংবাম আশালতা দেবী মনে করেন যে, তিনি বিদেশে খেলার চ্যালেঞ্জ নিতে প্রস্তুত রয়েছেন। ২০১৮-১৯ মরশুমে এআইএফএফ (অল ইন্ডিয়া ফুটবল ফেডারেশন)-এর বর্ষসেরা মহিলা ফুটবলার বালা দেবী এবং অদিতি চৌহান ভারতীয় তরুণ প্রজন্মের কাছে বিদেশে ফুটবল খেলতে যাওয়ার স্বপ্ন উসকিয়েছেন। এ কথাও উল্লেখ করেছেন আশালতা।

আরও পড়ুন: কুন্তলা এবং ভারতীয় মহিলা ফুটবল

সম্প্রতি ইনস্টাগ্রাম লাইভ চ্যাটের মাধ্যমে তিনি এআইএফএফ-কে বলেছেন, ”অদিতি এবং বালা অন্যদের বিদেশে গিয়ে খেলাধুলার জন্য দরজা খুলে দিয়েছেন। তাই এখন প্রত্যেকে কঠোর পরিশ্রম করবে এবং বালা ও অদিতির কাছ থেকে অনুপ্রেরণা নিয়ে বিদেশে খেলার স্বপ্নপূরণে সচেষ্ট হবে।”

আরও পড়ুন: প্রথম ভারতীয় মহিলা হিসেবে ইউরোপে পেশাদারি ফুটবল খেলবেন বালা দেবী

উল্লেখ্য যে, বালা দেবী বিদেশি ক্লাবে পেশাদার চুক্তি নিয়ে প্রথম ভারতীয় মহিলা ফুটবলার হয়েছিলেন। তিনি সই করেছিলেন স্কটিশ ক্লাব রেঞ্জার্স-এর হয়ে। আশালতা বলেন, “প্রত্যেক খেলোয়াড় বিদেশে পেশাদার ক্লাবে খেলার স্বপ্ন দেখে। তবে আমি এই মুহূর্তে ২০২২ এএফসি মহিলা এশিয়ান কাপের দিকে বেশি মনোযোগী। তবে যদি আমি বিদেশে খেলার সুযোগ পাই, আমি তা সাদরে গ্রহণ করব।”

আরও পড়ুন: মহিলা বিশ্বকাপ আয়োজন নিয়ে ভারত উদ্বেগে থাকলেও দর্শকদের মাঠে প্রবেশ নিয়ে আশায় বালা দেবী

২৭ বছর বয়সি এই ফুটবলারের মতে, ২০২২ এএফসি মহিলা এশিয়ান কাপ, ২০২১ সালে ভারত আয়োজিত অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপ ভারতে মহিলা ফুটবলের উত্থানের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ইভেন্ট হবে। আশালতা বলেন, “অনূর্ধ্ব-১৭ ফিফা মহিলা বিশ্বকাপ আমাদের জন্য খুব বড় সুযোগ। কারণ ভারতে এমন কয়েকটি জায়গা রয়েছে, যেখানে অনেকেই জানেন না যে, সেখানে মহিলা ফুটবলের অস্তিত্ব রয়েছে। তাই আমি মনে করি যে, অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপ এবং এশিয়ান কাপ আমাদের জন্য খুব দুর্দান্ত হতে চলেছে।”

“এই মেয়েরা (অনূর্ধ্ব-১৭ মহিলা জাতীয় দল) এত অল্প বয়সে দেশের হয়ে খেলার সুযোগ পেয়ে খুব ভাগ্যবান। তারা কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে ভালো পারফরম্যান্স করবে। গোটা ভারত তাদের সমর্থন করবে। তারা যখন অনূর্ধ্ব-১৭ দল থেকে সিনিয়র দলে সুযোগ পাবে, সেখানেও তারা বহু কিছু শিখতে পারবে। তাই যে সুযোগটি এখন তারা পাচ্ছে, তার জন্য সমস্ত কিছু ঢেলে দাও, সুযোগটি হাতছাড়া কোরো না।” যুক্ত করেন আশালতা। ঘটনাচক্রে ইন্ডিয়ান ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন এরইমধ্যে আনুষ্ঠানিকভাবে ২০২৭ সালে পুরুষদের এএফসি এশিয়ান কাপ আয়োজনে তাদের আগ্রহ প্রকাশ করেছে।

মণিপুর ইম্ফলের এই ফুটবলার নিজের সম্পর্কে বলতে গিয়ে বলেন, “আমি যখন সবেমাত্র ফুটবল খেলা শুরু করেছিলাম তখন প্রচুর লড়াই করতে হয়েছিল। আমার পরিবারের কাছ থেকে প্রথমে কোনও সমর্থন পাইনি। তারা ভাবত যে, খেলাধুলা মেয়েদের জন্য নয়। তারা আমার বিয়ে সম্পর্কে বেশি চিন্তিত ছিল। আমাকে শাস্তিও দেওয়া হয়েছিল। তাই কয়েক মাস বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয়েছিলাম খেলাধুলা। তবে ধীরে ধীরে আবার খেলাধুলা শুরু করলাম। যেহেতু আমি অনূর্ধ্ব-১৭ দলে নির্বাচিত হয়েছিলাম, তখন আমার মা বুঝতে পেরেছিলেন যে, আমি এই খেলায় উন্নতি করতে পারি। তারপর থেকেই তিনি আমাকে নিঃস্বার্থভাবে সমর্থন করতে শুরু করেন। এখন তিনি চান যে, আমি যেন সর্বোচ্চ স্তরে ফুটবল খেলি। যেন শীঘ্রই অবসর নিয়ে না ভাবি।”

ভারতের জার্সি গায়ে ৩৭ ম্যাচ খেলা এই ফুটবলার আরও বলেন, “আমি যখন বুঝব যে দেশের হয়ে আমি যথেষ্ট অবদান রেখেছি তখনই আমি অবসর নেওয়ার কথা ভাবব। এখন আমার দেশের হয়ে খেলার ইচ্ছাই সবার আগে থাকবে।”

ছবি আশালতা দেবীর ইনস্টাগ্রাম থেকে নেওয়া

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *