ব্যাটিংয়েও অনবদ্য অশ্বিন, জয়ের দোরগোড়ায় ভারত

Mysepik Webdesk: ইংল্যান্ডের সামনে ৪৮২ রানের বিশাল লক্ষ্য রেখেছে টিম ইন্ডিয়া। দ্বিতীয় ইনিংসে ২৮৬ রান করে ভারত। প্রথম ইনিংসে বিরাট বাহিনী ১৯৫ রানের লিড নিয়েছিল। টেস্টে সবচেয়ে বড় লক্ষ্য তাড়া করে জেতার রেকর্ডটি রয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের নামে। ২০০৩ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে তারা ৪১৮ রানের লক্ষ্য তারা করে জিতেছিল। ভারতীয় মাটিতে এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ ৩৮৭ রানের লক্ষ্য তাড়া করে জেতার রেকর্ড রয়েছে। ২০০৮ সালের ডিসেম্বরে, ভারত চেন্নাইয়ের একই মাঠে টেস্টে ইংল্যান্ডকে ৪ উইকেটে হারিয়েছিল। অন্যদিকে, বিদেশি দলের কথা বলতে গেলে ওয়েস্ট ইন্ডিজই ভারতের বৃহত্তম ২৭৬ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে পেরেছিল। ১৯৮৭ সালে দিল্লি টেস্টে তারা ভারতকে ৫ উইকেটে পরাজিত করেছিল। এত বড় লক্ষ্য এখনও অবধি কোনও বিদেশি দল ভারতে তাড়া করে জিততে পারেনি।

আরও পড়ুন: আইপিএল নিলামের আগে এক ওভারে পাঁচ ছক্কা হাঁকালেন শচীন-পুত্র

Image

দ্বিতীয় ইনিংসে ৮ নম্বরে ব্যাট করে অশ্বিন সর্বোচ্চ ১০৬ রানের ইনিংস। এটি তাঁর টেস্ট কেরিয়ারের পঞ্চম শতক। আশ্বিন ৪০ টেস্ট এবং ৫৪ মাস পর সেঞ্চুরি করেন। এর আগে ২০১৬ সালের আগস্টে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সেঞ্চুরি (১১৮) করেছিলেন তিনি। ঘরের মাটিতে শেষ সেঞ্চুরিটি ছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে নভেম্বর ২০১৩ সালে, কলকাতায়। ওই ম্যাচে ১২৪ রানের অসাধারণ ইনিংস খেলেছিলেন ৩৪ বছরের এই দক্ষিণী ক্রিকেটার। ইডেন গার্ডেন্সে করা সেঞ্চুরিটিই এখনও পর্যন্ত তাঁর টেস্ট কেরিয়ারের সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত স্কোর।

দ্বিতীয় ইনিংসে দু’বার জীবনদান পেয়েছিলেন আশ্বিন। প্রথমবার ৪৫তম ওভারের চতুর্থ বলে একটি জীবন পান তিনি। স্টুয়ার্ট ব্রডের বলে স্লিপে সহজ ক্যাচ মিস করেন বেন স্টোকস। তখন তিনি ২৮ রানে অপরাজিত ছিলেন। এর পরে ৬৭তম ওভারের তৃতীয় বলে অশ্বিন দ্বিতীয় জীবন পান। আবারও ব্রডের বলে উইকেটরক্ষক বেন ফোকস ক্যাচ ফেলেন। আশ্বিন তখন ৫৬ রানে অপরাজিত। দ্বিতীয় ইনিংসে ১ উইকেটে ৫৪ রান করে তৃতীয় দিন শুরু করেছিল টিম ইন্ডিয়া। যদিও শুরুটা একেবারেই ভালো হয়নি টিম ইন্ডিয়ার। তারা স্কোরবোর্ডে মাত্র ১১ রান যোগ করতে না করতে ৩টি গুরুত্বপূর্ণ উইকেট হারিয়ে ফেলে। শুভমান গিল, চেতেশ্বর পুজারা এবং ঋষভ পন্থ প্যাভিলিয়নে ফেরেন।

আরও পড়ুন: ক্রিকেটে পাকিস্তানের চেয়ে এগিয়ে ভারত, নিজের মুখেই স্বীকার করলেন পাক-প্রধানমন্ত্রী

এক সময় ১০৬ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে ফেলেছিল ভারত। এরপরে অধিনায়ক বিরাট কোহলি এবং অলরাউন্ডার রবিচন্দ্রন অশ্বিন ইনিংসটি পরিচালনার দায়িত্ব নেন। সপ্তম উইকেটে তাঁরা ১৭৭ বলে ৯৬ রানের জুটি গড়েন। ভারতের পক্ষে অশ্বিন সর্বোচ্চ ১০৬ এবং কোহলি ৬২ রান করেছিলেন। দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিং করতে নেমে তৃতীয় দিনের শেষে ইংল্যান্ডের রান ৩ উইকেটে ৫৩ রান। রুট-বাহিনীকে জিততে গেলে দরকার ৪২৯ রান, যা আপাতত শত যোজন দূরে।

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *