১৫ আগস্ট: ভারতীয়দের অলিম্পিক ইতিহাসে এক সোনায় বাঁধানো দিন

ইন্দ্রজিৎ মেঘ

ইতিহাস গড়ার পরও মানুষটাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। কারণ, তাঁর মনখারাপ ছিল। ঘটনাটা ঘটেছিল ভারতের স্বাধীনতা অর্জনের ১১ বছর আগে ১৫ আগস্টেই। হিটলারের উপস্থিতিতে ভারত বার্লিন অলিম্পিক ফাইনালে জার্মানিকে হারিয়ে দিয়েছিল সেদিন। ধ্যানচাঁদের ক্যারিশ্মায় ভারতীয় হকি দল ইতিহাস গড়েছিল। সেই অলিম্পিক ম্যাচের গল্প এবং হিটলারের ধ্যানচাঁদের কাছে জার্মান নাগরিকত্বের প্রস্তাব ভারতীয় হকি মিথের মধ্যে অন্যতম। ধ্যানচাঁদের পুত্র এবং ১৯৭৫ বিশ্বকাপে ভারতের শিরোপা জয়ের অন্যতম নায়ক অশোক কুমার একবার বলেছিলেন, “তিনি (ধ্যানচাঁদ) কখনোই সেই দিনটি ভোলেননি। যখনই তিনি হকি নিয়ে কথা বলতেন, তিনি সেই অলিম্পিক ফাইনালের কথা উল্লেখ করতেন।”

আরও পড়ুন: রোমন্থন এবং ভালোবাসায় ১৫ আগস্ট

ভারতীয় হকি দল দীর্ঘ সমুদ্রপথ পাড়ি দিয়ে হাঙ্গেরির বিপক্ষে প্রথম ম্যাচের দু’সপ্তাহ আগে বার্লিনে পৌঁছেছিল। তবে অনুশীলন ম্যাচে জার্মান একাদশের কাছে ৪-১ গোলে হেরে যায় ভারত। কিন্তু তারপরেই বদলে যায় দলের চেহারা। সর্বশেষ দু’বারের চ্যাম্পিয়ন ভারত সেমিফাইনালে ফ্রান্সকে ১০-০ গোলে পরাজিত করেছিল এবং ধ্যানচাঁদ চারটি গোল করেছিলেন সেই ম্যাচে।

আরও পড়ুন: ক্রীড়া মন্ত্রী কিরেন রিজিজু লঞ্চ করলেন ফিট ইন্ডিয়া ফ্রিডম রান

Olympic Hockey Final

ফাইনালে জার্মান ডিফেন্ডাররা ধ্যানচাঁদকে ঘিরে ফেলেছিলেন। জার্মান গোলরক্ষক টিটো ওয়ার্নহলজের সংঘর্ষের ফলে দাঁতও ভেঙে গিয়েছিল তাঁর। বিরতির পর ধ্যানচাঁদ এবং তাঁর ভাই রূপ সিংহ পিছলে যাওয়ার আশঙ্কায় জুতো খুলে খালি পায়ে মাঠে নামেন। ধ্যানচাঁদ তিনটি এবং রূপ সিংহ একটা গোল করে ভারতকে ৮-১ গোলে জয় এনে দিয়েছিল সেদিন। অশোক বলেন, “এই ম্যাচের আগের রাতেই তিনি খেলোয়াড়দের রুমে জড়ো করে শপথ করিয়েছিলেন যে, আমাদের এই ফাইনাল ম্যাচটি জিততে হবে।”

আরও পড়ুন: ভারতে অনুষ্ঠিত মহিলা বিশ্বকাপে খেলবে ইংল্যান্ড, জার্মানি, স্পেন

When sports legend Dhyan Chand was offered a job by Adolf Hitler ...

সেই সময় বিদেশি সংবাদপত্রগুলিতে ভারত নিয়ে আলোচনার বিষয় ছিল স্বাধীনতা আন্দোলন, গান্ধিজি এবং ভারতীয় হকি। অনুদানের মাধ্যমে সংগৃহীত অর্থের ভিত্তিতে ভারতীয় দল অলিম্পিক খেলতে যায়। জার্মানির মতো শক্তিশালী একটি দলকে হারানো সহজ ছিল না। তবে ধ্যানচাঁদরা সেই অসম্ভবকে সম্ভব করেছিল। এই ম্যাচটি ভারতীয় হকিকে বিশ্বশক্তি হিসাবে প্রতিষ্ঠিত করে। এর পরে, ভারতীয় হকি বলবীর সিং সিনিয়র, উধম সিং এবং কেডি সিংবাবুর মতো দুর্দান্ত খেলোয়াড় উপহার দিয়েছে বিশ্বকে।

আরও পড়ুন: বায়ার্ন-ঝড়ে ৮-২ গোলে লজ্জার হার মেসিদের

At the 1936 Olympics, hockey wizard Dhyan Chand led by example

১৯৩৬ সালের ১৫ আগস্টের অলিম্পিক ম্যাচের পরে খেলোয়াড়রা জার্মানিতে থাকা ভারতীয়দের সঙ্গে সেলিব্রেশন করছিলেন। তবে ধ্যানচাঁদকে কোথাও দেখা যাচ্ছিল না। প্রত্যেকে তাঁর খোঁজ করছিলেন। একটু তফাতে এক জায়গায় তাঁকে বসে থাকা অবস্থায় দেখা গেল। দুঃখিত লাগছিল তাঁকে। ধ্যানচাঁদকে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল, কেন তিনি এখানে মনমরা হয়ে বসে আছেন? তাঁর উত্তর ছিল যে, ”আমরা যদি ইউনিয়ন জ্যাকের পরিবর্তে স্বাধীন দেশ হিসাবে জিততে পারতাম, তবে আমাদের স্বাধীন তেরঙা পতাকা এখানে উড়তে পারত।” এটি ছিল ধ্যানচাঁদের সর্বশেষ অলিম্পিক। তিনটি অলিম্পিকে ১২ ম্যাচে ৩৩টি গোল করা এই উইজার্ড ১৫ আগস্ট ১৯৪৭-এর ১১ বছর আগে দেশের নাম স্বর্ণাক্ষরে লিখেছিলেন।

The Indian Hockey Team, Gold Medal Winners, Berlin Olympics, 1936 ...
Facebook Twitter Email Whatsapp

2 comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *