বিদ্যার দেবী সরস্বতী পূজিত হওয়ার আগে মৃৎশিল্পীরা সরকারের উদেশ্যে যা জানালেন

Puja 001

Mysepik Webdesk: আর মাত্র একদিনের অপেক্ষা তারপরই সমগ্র রাজ্যজুড়ে স্কুল অফিস-আদালত কলেজ ও বাঙালির ঘরে ঘরে পূজিত হবেন বিদ্যার দেবী সরস্বতী। হাতে সময় খুবই কম তাই তো দেখা গেল দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা জুড়ে বিভিন্ন জায়গার কুমোরটুলিতে। মৃৎশিল্পীরা এখন নাওয়া-খাওয়া ভুলে কোমর বেঁধে সরস্বতী প্রতিমা বানাতে ব্যস্ত।

আরও পড়ুন: মতুয়া সম্প্রদায় থেকে মন্ত্রিত্বের দাবি

প্রসঙ্গত, গত বছর শুরুর দিকে করোনা মহামারীর কবলে পড়েছিল দেশ। টানা সাত-আট মাস লকডাউন ছিল করোনার সঙ্গে মোকাবিলা করার জন্য। এই সময়ে সাধারণ মানুষের লক্ষীর ভাঁড়ে টান পড়েছিল, বাদ পড়েননি মৃৎশিল্পীরা। জমানো তাকাতে সংসার চালাতে রীতিমত হিমশিম খেতে হয়েছে তাঁদের। সরকারি ও বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী এবং ক্লাবের তরফ থেকে কিছু কিছু অনুদান পেলেও তাঁরা প্রতিমা বিক্রি করতে পারেননি। গতবছর দুর্গাপুজো-কালীপুজোতেও তাঁদের লক্ষীর ভাঁড় ছিল প্রায় শূন্য।

চলতি বছরেও সরস্বতী পুজো হবে কি না তা নিয়ে যথেষ্ট সংশয় ছিলেন দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার মৃৎশিল্পীরা। তবে পশ্চিমবাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির নির্দেশে স্কুল-কলেজ আদালতে সরস্বতী পুজো হবে। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এবং সরকারি বিধি মেনেই পালিত হবে সরস্বতী।

আরও পড়ুন: পাল্টে যাচ্ছে উচ্চ মাধ্যমিক প্রশ্নপত্রের ধরণ, বিজ্ঞপ্তি জারি উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা পর্ষদের

হাতে মাত্র একদিন তার আগে বিভিন্ন মৃৎশিল্পীরা জানান, যদি কোনো সরকারি সুযোগ-সুবিধা পেতাম তাহলে খুব উপকৃত হতাম। এদিন দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার গঙ্গারামপুর পৌরসভার ১২ নং ওয়ার্ডের দত্তপাড়া এলাকায় মৃৎশিল্পী ভুবন শীল জানান, লকডাউনে মানে মানে করে কাটিয়ে দিয়েছে কিন্তু এবছর জিনিসের দাম বেড়েছে প্রচুর, কাঁচামালের দাম আকাশছোঁয়া। তাছাড়া লকডাউনের শুরু থেকেই হিমশিম খাচ্ছি জানিনা কতদিন এভাবে চলবে। তবে সরকারকে আমাদের অবস্থার দিকে একটু দৃষ্টিপাত করার আর্জি ও অনুরোধ জানাচ্ছি। যদি সরকার আমাদের দিকে একটু দেখেন খুব উপকৃত হতাম। তবে খুব ভালো লাগছে যে এবছর সরস্বতী পুজো হচ্ছে এবং বিভিন্ন জায়গা থেকে ইতিমধ্যেই অর্ডার আসতে শুরু করেছে।

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *