ইতিহাসের সামনে দাঁড়িয়ে অলিম্পিকে জায়গা পাওয়া প্রথম ভারতীয় তলোয়ারবাজ ভবানী দেবী

Mysepik Webdesk: টোকিও অলিম্পিকের জন্য যোগ্যতা অর্জনকারী প্রথম ভারতীয় তলোয়ারবাজ সিএ ভবানী দেবী। তিনি এখন টোকিওয় অনুশীলনে ব্যস্ত রয়েছেন। ২৭ বছর বয়সি এই তলোয়ারবাজ যখন স্কুলে পড়তেন, বাধ্য হয়েই বেছে নিয়েছিলেন এই খেলাটিকে। তিনি এখন টোকিওয় ইতিহাসের সামনে দাঁড়িয়ে আছেন। ইতালিতে তিনি অলিম্পিকের জন্য প্রস্তুতি নিতে গিয়েছিলেন। সেখানেই করেছেন চুটিয়ে অনুশীলনও।

আরও পড়ুন: তৃতীয় এবং চতুর্থ সেটে রুদ্ধশ্বাস জয়, কোয়ার্টার ফাইনালে দীপিকা-প্রবীণ জুটি

ভবনী দেবী বলেন, “স্কুলে ফেন্সিং ছাড়াও আরও ছ’টি খেলার বিকল্প ছিল। কিন্তু যখন আমার নাম নথিভুক্ত হয়, সেই সময় অন্যান্য খেলাধুলা সমস্ত জায়গা পূরণ হয়ে গিয়েছিল। তাই আমার কাছে ফেন্সিং বেছে নেওয়া ছাড়া আর কোনও উপায় ছিল না। এটি এমন একটি খেলা, যার সম্পর্কে লোকে খুব একটা বেশি কিছু জানত না। তো আমি অত্যন্ত সিরিয়াস ভাবে এই খেলাটি নিয়েই এগোনোর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। খুব আনন্দিত এই ভেবে যে, আমি এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। কারণ এখন আমি এই খেলাটিকে ভালোবেসে ফেলেছি।” উল্লেখ্য যে, ১৭ বছর আগে ২০০৪ সালে চেন্নাইতে বেশ কয়েকটি ট্রায়াল অনুষ্ঠিত হয়েছিল। এর মধ্যে স্কোয়াশ, জিমন্যাস্টিক্স, ভলিবল এবং ফেন্সিংয়ের মতো খেলা অন্তর্ভুক্ত ছিল। অন্যান্য খেলায় কোটা পূর্ণ হওয়ার পরে একমাত্র ফেন্সিংয়েই জায়গা বেঁচেছিল। ভবানীর ফেন্সিং কেরিয়ার শুরু হয়েছিল এখান থেকেই।

আরও পড়ুন: দেখে নিন এবারের অলিম্পিকের প্রথম স্বর্ণপদক জিতলেন কে

তিনি অ্যাডজাস্টেড অফিসিয়াল র‌্যাঙ্কিং (এওআর)-এর ভিত্তিতে অলিম্পিকের জন্য যোগ্যতা অর্জন করেছিলেন। ভবানী ২০১৭ সালে প্রথমবারের মতো আইসল্যান্ডে একটি আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট জিতেছিলেন। আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে ফেন্সিংয়ে পদক জিতে আসা প্রথম খেলোয়াড়ও ছিলেন তিনি। ভবানী গত ৪ বছর ধরে নিকোলা জনোটির সঙ্গে প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন। নিকোলা অনেক স্বর্ণপদকপ্রাপ্তকেই প্রশিক্ষণ দিয়েছেন। ২০০৪ সালে ফেন্সিংকে কেরিয়ার হিসাবে বেছে নেওয়া ভবানী ৮ বার জাতীয় চ্যাম্পিয়নও হয়েছেন। তিনি ২০১৬ সালের রিও অলিম্পিকের জন্য যোগ্যতা অর্জন করতে পারেননি। এই তরোয়ালবাজ হাঙ্গেরি বিশ্বকাপেও জায়গা করে নিয়েছিল। বর্তমানে বিশ্ব র‍্যাঙ্কিংয়ে ৪২ নম্বরে থাকা ভবানী বুধাপেস্টে সাবের ফেন্সিং বিশ্বকাপের টিম ইভেন্টে দক্ষিণ কোরিয়ার কোয়ার্টার ফাইনালে হাঙ্গেরিকে পরাজিত করে অলিম্পিকে সুযোগ পেয়েছিলেন।

আরও পড়ুন: নিউজিল্যান্ডকে হকিতে ৩-২ গোলে হারিয়ে অলিম্পিক অভিযান শুরু ভারতের

ভবানী ২০০৯ কমনওয়েলথ চ্যাম্পিয়নশিপে তৃতীয় স্থান অর্জন করে প্রথম আন্তর্জাতিক পদক জিতেছিলেন। তিনি ২০১৪ এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে সিঙ্গেল ইভেন্টে রুপোর পদক জিতেছিলেন, পরের বছর তিনি একই চ্যাম্পিয়নশিপের একই ইভেন্টে ব্রোঞ্জ পদক জিতেছিলেন। ভবানী ২০১৭ সালে মহিলা বিশ্বকাপে আন্তর্জাতিক স্বর্ণপদক জেতা প্রথম ভারতীয় তরোয়ালবিদ। ২০১৮ সালে, তিনি অস্ট্রেলিয়ায় সিনিয়র কমনওয়েলথ ফেন্সিং চ্যাম্পিয়নশিপে স্বর্ণপদক জিতেছিলেন। প্রসঙ্গত উল্লেখযোগ্য, ১৮৯৬ এথেন্স অলিম্পিকে ফেন্সিং অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল। তখন থেকেই এটি স্পোর্টস ইভেন্টের একটি অংশ। মহিলা ফেন্সিং ১৯২৪ সালে প্যারিস অলিম্পিকে অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *