ঝিপঝিপে বৃষ্টি ও সঙ্গে লকডাউনে জনশূন্য বীরভূমের পথঘাট

সিউড়ি, ২৭ আগস্ট: পূর্ব ঘোষণামতো বৃহস্পতিবার ২৭ আগস্ট লকডাউন সম্পূর্ণ রূপে জারি রয়েছে বীরভূমে। সকাল ছ’টা থেকেই সিউড়ি, বোলপুর, রামপুরহাট, দুবরাজপুর, সাঁইথিয়া, নলহাটি সহ জেলার সর্বত্রই লকডাউনের ছবি স্পষ্ট। রাস্তাঘাট জনমানব শূন্য। সকাল থেকেই প্রতিটি থানার পুলিশ আধিকারিক সহ পদস্থ আধিকারিকদেরও দেখা গেছে রাস্তায় দাঁড়িয়ে লকডাউন কার্যকর করতে। অনেক মানুষ খুব প্রয়োজনে যাঁরা বৃষ্টিকে উপেক্ষা করেই রেনকোট পরে বাইক নিয়ে বা সাইকেলে মাথায় ছাতা নিয়ে বের হচ্ছেন, তাঁদেরকেও আটকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ। যর্থাথ কারণ না দেখাতে পারলে তাঁদের ফিরিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

আরও পড়ুন: করোনা আক্রান্ত প্রাক্তন ডেপুটি মেয়র অতীন ঘোষ

কোভিড-১৯ জেরে লকডাউন কার্যকর করে রাস্তাঘাট জনমানব শূন্য করে রাখা হয়েছে। পাশাপাশি সকাল থেকেই মেঘলা আকাশ সঙ্গে ঝিপঝিপে বৃষ্টির ফলে মানুষও বাড়ি থেকে বের হয়নি। অবস্থাপন্ন আর্থিকভাবে স্বচ্ছল পরিবারগুলি বাড়িতে পিকনিক আমেজে দিনটিকে উপভোগ করছে। মানুষের তৈরি করা নিয়মে লকডাউন, প্রকৃতির নির্দেশে দিনভর বৃষ্টি, এই দিনে সমাজের এক শ্রেণির মানুষ যেমন দিনটিকে হাঁসিখুশি ভাবে উপভোগ করছেন, তেমনি অন্যদিকে একটা বড় অংশের কাছে এমন সময়ের প্রভাবে চরম আর্থিক সংকটের। প্রতিদিন পেট পুরে খাবারও জুটছে না এমন পরিবারও অনেক রয়েছে। যাদের কাছে এমন লকডাউনের দিনে বৃষ্টি তাদের কাছে প্রকৃতির অভিশাপ।

আরও পড়ুন: রাতভর বৃষ্টি, খাস কলকাতার বুকে হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ল ১৫০ বছরের পুরনো বাড়ি

ইলামবাজারের প্রত্যাশা নামের স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সম্পাদক আব্দুল খালেক মল্লিক, এ্যালাইভ ইন্ডিয়া চ্যারিটেবল ট্রাষ্টের কর্ণধার মহম্মদ আলি বলেন, “লকডাউনে মানুষ কাজ হারিয়েছে। মানুষের হাতে কাজ ও টাকা দু’টোই এখন নেই। আমরা আমাদের সাধ্যমতো গ্রাম বা শহর এলাকার গরিব মানুষদের চাল, ডাল, যতটা পেরেছি দিয়েছি। এখনও প্রচুর মানুষ চরম আর্থিক সংকটে ভুগছেন। তাঁদের কাছে একটা দিনের লকডাউন মানেই কর্মহীন হয়ে পড়া।” করনো ভাইরাসের দাপটে লকডাউন, সামাজিক দূরত্ববিধির প্রয়োজন আছে ঠিকই। পাশাপাশি এটাও আমাদের ভাবাচ্ছে রোগ থেকে বাঁচতে গিয়ে অভুক্ত হয়ে অন্য রোগে আক্রান্ত হতে হবে কিনা, সেটা আমাদের ভাবাচ্ছে, জানান সমাজকর্মী আব্দুল খালেক।

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *