ব্রিগেড সমাবেশে আসার ইচ্ছে প্রকাশ করে বার্তা পাঠালেন বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য

Mysepik Webdesk: কিছুদিন আগেই তিনি শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যার কারণে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। বেশ কয়েকদিন ধরে দক্ষিণ কলকাতার উডল্যান্ড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকার পর ছাড়া পেয়েছিলেন। হাসপাতাল থেকেই তাঁর দলীয় সহকর্মীদের বার্তা দিয়েছিলেন, আপাতত তিনি কিছুদিন তাঁর বই লেখার কাজ নিয়েই ব্যস্ত থাকতে চান। রবিবার বামেদের ‘দশলাখি’ ব্রিগেডে সমাবেশ। এই পরিস্থিতিতে দলের কাছে ব্রিগেড সমাবেশে আসার ইচ্ছে প্রকাশ করে বার্তা পাঠিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ।

আরও পড়ুন: ভোটের দামামা বাজতেই আসরে হাজির পিকে, ‘আমার কথা মিলিয়ে নেবেন’ টুইট করে ফের চ্যালেঞ্জ

Former Bengal CM Buddhadeb Bhattacharya hospitalised, condition critical -  INDIA - GENERAL | Kerala Kaumudi Online

বামেদের ব্রিগেডে তাবড় নেতারা উপস্থিত থাকলেও প্রথম থেকেই বাম নেতাদের ইচ্ছা ছিল বাম কর্মী-সমর্থকদের কাছে বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের বার্তা পৌঁছে দেওয়া। কিন্তু সেক্ষেত্রে বাধা হয়ে দাঁড়ায় তাঁর অসুস্থতা। সম্প্রতি শ্বাসকষ্টের পাশাপাশি তিনি চোখের সমস্যাতেও ভুগছেন। রাজ্য সিপিআইএম নেতৃত্বও চেয়েছিল, অল্প সময়ের জন্য হলেও সমাবেশে আসুক বুদ্ধদেববাবু। আলিমুদ্দিনের নেতাদের চিম্ভাবনাও ছিল কোনও ভাবে অন্তত ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে হলেও তাঁকে বাম সমর্থকদের সামনে আনা। এই পরিস্থিতিতে বুদ্ধদেববাবু নিজেই শনিবার ব্রিগেডে আসার জন্য ইচ্ছা প্রকাশ করে চিঠি দিয়েছেন দলীয় নেতাদের।

আরও পড়ুন: ব্রিগেড জনসভার প্রচারক হিসেবে চাকদহে সুজন চক্রবর্তী

Former CM Buddhadeb Bhattacharya shows slight improvement in health, but  remains critical - India News

তবে তাঁর ব্রিগেডে আসার জন্য আপাতত ভরসা চিকিৎসকরা। তাঁরাই বুদ্ধবাবুর শারীরিক পরিস্থিতি বিচার করে জানাবেন তিনি ব্রিগেড সমাবেশে আসতে পারবেন কিনা। আর সেই কারণেই তাঁর আসার বিষয়টি এখনও পর্যন্ত অনিশ্চিত রয়েছে। সূত্রের খবর, বুদ্ধদেববাবুর মেডিক্যাল টিমকে ইতিমধ্যেই দলের পক্ষ থেকে অনুরোধ করা হয়েছে, অন্তত যদি পাঁচ মিনিটর জন্য হলেও তাঁকে ব্রিগেডে উপস্থিত হওয়ার অনুমতি দেওয়া হোক। সেক্ষেত্রে সবচেয়ে বড়ো সমস্যা হল ধূলোর সমস্যা। এমনিতেই ব্রিগেডে প্রচুর ধূলো ওড়ে। অন্যদিকে বুদ্ধবাবুর শরীরের জন্য ধূলো ব্যাপক ক্ষতিকর। সেই কারণেই চিকিৎসকরা তাঁকে শেষ মুহূর্তে ব্রিগেডে যাওয়ার অনুমতি দেবেন কিনা, সেটাই এখন দেখার বিষয়।

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *