দেশজুড়ে পালিত হচ্ছে বড়দিন, দেখে নিন খণ্ডচিত্র

Mysepik Webdesk: ভারতসহ বিশ্বজুড়ে করোনার গাইডলাইনের মধ্যেই বড়দিন উদ্‌যাপিত হচ্ছে। তবে এর মধ্যেই ভক্তদের উত্সাহের কোনও খামতি নেই। প্রচুর মানুষ গির্জার বাইরে জড়ো হয়ে ক্রিসমাস উৎসব উদ্‌যাপন করছে। দিল্লি, পশ্চিমবঙ্গ, জম্মু ও কাশ্মীর, পঞ্জাব, উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ এবং গোয়া সহ দেশের প্রতিটি রাজ্যে ক্রিসমাস ধুমধামের সঙ্গে উদ্‌যাপিত হচ্ছে। ক্রিসমাস গোয়ার রাজধানী পানাজির আওয়ার লেডি অফ ইমম্যাকুলেট কনসেপ্ট চার্চে অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

আরও পড়ুন: মহামানব যিশু খ্রিস্ট, মানবপ্রেমের ঘনীভূত রূপ

কলকাতার পার্ক স্ট্রিটে প্রচুর মানুষের সমাগম হয়েছিল। শুধু তাই নয়, দিল্লিসহ প্রতিটি শহরের চার্চ সাজানো হয়েছে। কলকাতার আইকনিক সেইন্ট পলস ক্যাথিড্রাল মধ্যরাতের পরে জনসাধারণের জন্য বন্ধ ছিল। এখানে সাধারণত ক্রিসমাসের প্রাক্কালে প্রচুর সংখ্যায় মানুষ জড়ো হন। এবছর করোনার কারণে আরোপিত নিষেধাজ্ঞাগুলির তথ্য ব্যানারের মাধ্যমে দেওয়া হয়েছে। অতিরিক্ত পুলিশও মোতায়েন করা হয়েছে। গির্জার বাইরে জড়ো হওয়া কিছু মানুষ জানিয়েছেন যে, তাঁরা অখুশি, কারণ এবছর জনসাধারণের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ক্রিসমাস উপলক্ষে কলকাতায় একটি গির্জা পরিদর্শন করেছিলেন, তখন ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন বড়দিনের শুভেচ্ছা জানাতে আর্চ বিশপের বাড়িতে যান। যাইহোক, করোনার পরিপ্রেক্ষিতে এবার বড়দিনে গির্জায় একটি বড় প্রার্থনা সভা নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

আরও পড়ুন: ১৯৯৮ সালে লাগানো ক্রিসমাস ট্রি আজ বেড়ে ৫০ ফুট, ভোপালের উইলসন ফ্যামিলি এই গাছ সাজিয়েই উদ্‌যাপন করেন ক্রিসমাস

বড়দিন উপলক্ষে ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন আর্চ বিশপ ফাদার ফেলিক্স টপ্পোর কাছে গিয়ে তাঁকে বড়দিনের জন্য অভিনন্দন জানিয়েছেন। একসঙ্গে কেক কেটেছেন তাঁরা। দেশের রাজধানীতে ক্রিসমাস উপলক্ষে এবারই প্রথম দিল্লির বৃহত্তম গির্জা বন্ধ থাকবে। গতকাল বৃহস্পতিবার বন্ধ ছিল  গির্জা। আজ, শুক্রবারও বন্ধ রয়েছে গির্জা। যদিও সুন্দরভাবে সাজানো হয়েছে সেই গির্জাকে। তবে প্রবেশের অনুমতি নেই। ভাইরাস সংক্রমণের কারণে ভক্তদের প্রবেশ নিষিদ্ধ। কেবল গির্জার সদস্যরা প্রার্থনা করতে পারবেন। বিশেষ ব্যবস্থা করা হয়েছে এরজন্য। চার্চ আধিকারিকদের দাবি, প্রতিবছর ক্রিসমাসে দুই লক্ষেরও বেশি ভক্ত আসতেন, তবে এবার বন্ধ থাকার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল।

আরও পড়ুন: বিশ্বজনীন ক্রিসমাস উৎসবের কিছু অভিনব উদ্‌যাপন

গোরখপুরের একটি গির্জার দৃশ্য (পিটিআই)

সেক্রেড হার্ট ক্যাথিড্রাল চার্চের পাস্তর লরেন্সের মতে, করোনার সংক্রমণের কারণে প্রথমবারের মতো গির্জাটি বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এছাড়াও এবার কোনও ভিভিআইপি-কেও আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। প্রবেশদ্বারে ভিড় নিয়ন্ত্রণ করতে দিল্লি পুলিশের কাছে সহায়তা চাওয়া হয়েছে। একইভাবে গুজরাতে ক্রিসমাসে মানুষের সমাগম নিষিদ্ধ করা হয়েছে। মহারাষ্ট্রে গির্জার ভিতরে কেবল ৫০ জন প্রার্থনা করতে পারবেন। এছাড়াও এটি মাস্ক এবং স্যানিটাইজার ব্যবহার বাধ্যতামূলক হয়েছে।

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *