বুলেট ট্রেনের সামনে করোনা

Bullet Train

Mysepik Webdesk: করোনা মহামারির জেরে মিস হতে পারে বুলেট ট্রেন চালু হওয়ার ডেডলাইন। ২০২৩ সালের মধ্যে মুম্বই-অহমদাবাদ বুলেট ট্রেন প্রকল্পের কাজ শেষ হওয়ার কথা ঘোষণা করা হয়েছিল। কিন্তু বর্তমানে করোনার জেরে যা পরিস্থিতি তাতে করে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কাজ শেষ হবে বলে মনে হচ্ছে না। কারণ জমি অধিগ্রহণের কাজ এখনও অনেক বাকি। একই অবস্থা দরপত্র খোলা নিয়েও। ফলে বুলেট ট্রেনের ডেডলাইন মিস হতে পারে।

আরও পড়ুন: সাতসকালে কেঁপে উঠল মুম্বই

সরকারি সূত্রে খবর, ন্যাশনাল হাই স্পিড রেল কর্পোরেশন (NHSRCL) এখনও পর্যন্ত ৬৩ শতাংশ জমি অধিগ্রহণ করতে পেরেছে। যার বেশির ভাগটাই গুজরাতের। এই প্রকল্পের সঙ্গে যুক্ত আধিকারিকেরা জানাচ্ছেন, মহারাষ্ট্রের পালঘর ও গুজরাতের নবসারির জমি অধিগ্রহণ এখনও করা যায়নি। সেই সঙ্গে গত বছর, ন্যাশনাল হাই স্পিড রেল কর্পোরেশন যে ন’টি সিভিল ওয়ার্কের দরপত্র নিয়েছিল মহামারির কারণে তাও খোলা যায়নি। NHSRCL-এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর অচল খরে বলেন, ‘এই প্রকল্পের উপর করোনা মহামারির কতটা প্রভাব পড়বে, কাজ শেষ করতে কত বেশি সময় লাগবে, আমি জানি না।’ তিনি জানিয়েছেন, করোনা মহামারির মধ্যেও আমরা ২০২৩-এর ডেডলাইন মাথায় রেখেই কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। তবে দরপত্র খোলা স্থগিত রাখতে হয়েছে।

আরও পড়ুন: উর্দিকে অসম্মান করবেন না, আইপিএসদের পরামর্শ দিলেন প্রধানমন্ত্রীর

দেশের প্রথম বুলেট ট্রেন প্রকল্পের মোট দূরত্ব বা দৈর্ঘ্য ৫০৮.১৭ কিলোমিটার। যা দৌঁড়াবে মুম্বই-অহমদাবাদের মধ্যে। করোনার সঙ্গে সঙ্গে জাপানি ইয়েনের বিপরীতে ভারতীয় টাকার দাম পড়ে যাওয়া একটি বড় কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। কারণ এর ফলে প্রকল্পের খরচ হঠাত্‍‌ বেড়ে গিয়েছে। বুলেট ট্রেন প্রকল্পের জন্য মোট খরচ ধরা হয়েছে ১.০৮ লক্ষ কোটি টাকা। এর মধ্যে কেন্দ্র সরকার NHSRCL-কে দেবে ১০ হাজার কোটি টাকা। দুই রাজ্য গুজরাত ও মহারাষ্ট্র দেবে ৫ হাজার কোটি টাকা করে। বাকি টাকা জাপান ধার দেবে ০.১ শতাংশ সুদে।

Similar Posts:

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *