এইচআইভি পজিটিভ মহিলার শরীরে ৩২ বার মিউটেশন ঘটাল করোনা, ভেবে কুল পাচ্ছেন না চিকিৎসকরা

Mysepik Webdesk: প্রায় ৩৬ বছর ধরে এইচআইভি ভাইরাসে আক্রান্ত ছিলেন তিনি। তার ওপর থাবা বসিয়েছে মারণ করোনাভাইরাস। শুধু তাই নয়, একটানা ২১৬ দিন ধরে করোনা আক্রান্ত ছিলেন তিনি। ওই সময়ের মধ্যে তাঁর শরীরে অন্তত ১৩ বার স্পাইক প্রোটিন মিউটেশন ঘটিয়েছে করোনাভাইরাস। এছাড়াও তাঁর শরীরে ভাইরাসের অন্তত ১৯ রকমের জীনগত পরিবর্তনের প্রমাণ মিলেছে। এই খবর নতুন করে চিন্তায় ফেলে দিয়েছে ভাইরাস বিশেষজ্ঞদের। চিকিৎসকরাও ভেবে উঠতে পারছেন না কীভাবে ওই মহিলার চিকিৎসা করবেন। গত রবিবার সাউথ চায়না মর্নিং টাইমস-এ এবং চিকিৎসা বিজ্ঞান সংক্রান্ত জার্নাল ‘মেডআরএক্সআইভি’-র একটি প্রতিবেদনে এরকমই একটি খবর প্রকাশিত হয়েছে, যা রীতিমতো আলোড়ন ফেলে দিয়েছে গোটা বিশ্বে।

আরও পড়ুন: হিংসা ছড়ানোর অভিযোগে ফেসবুকে দু’বছরের জন্য ব্যান ডোনাল্ড ট্রাম্প

দক্ষিণ আফ্রিকার বাসিন্দা ওই মহিলার নাম জানা সম্ভব না হলেও জানা গিয়েছে তাঁর বয়স ৩৬ বছর। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, করোনাভাইরাসের ২ প্রজাতি- আলফা (বিজ্ঞানের ভাষায় বি.১.১.৭) এবং বিটা (বিজ্ঞানের ভাষায় বি.১.৩৫১), ওই মহিলার শরীরে পাওয়া গিয়েছে। সেখান থেকে অন্য কারও শরীরে তা সংক্রমিত হয়েছে কিনা, তা এখনও জানা যায়নি। বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, আগে থেকেই ওই মহিলা HIV পজিটিভ হওয়ার কারণে তাঁর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এমনিতেই কম। তার ওপর তিনি যখন কোভিডে আক্রান্ত হলেন, তখন থেকে শুরু করে তাঁর শরীরে করোনাভাইরাসের ১৩ বার স্পাইক প্রোটিনে এবং ১৯ বার ভাইরাসের জিনে বদল ঘটেছে।

আরও পড়ুন: ব্রিটিশ ম্যাগাজিন ভোগ-এর ‘প্রচ্ছদ কন্যা’ নোবেলজয়ী মালালা

চিকিৎসকদের মতে, একজন এইচআইভি পজিটিভ রোগীর করোনায় প্রাণ হারানোর আশঙ্কা সাধারণ রোগীর তুলনায় ২.৭৫ গুণ বেশি। সবচেয়ে আশ্চর্যের বিষয়, এতো কিছুর পরেও ওই মহিলা এখনও বেঁচে রয়েছেন। বিষয়টি সামনে আসতেই গবেষকরা ভাবতে শুরু করেছেন, তা হলে কি এইচআইভি রোগে আক্রান্তদের শরীরে দীর্ঘদিন বেঁচে থাকতে পারে করোনা ভাইরাস?প্রসঙ্গত, বিশ্বজুড়ে আমেরিকা ও ভারত-সহ আর মাত্র কয়েকটি দেশে করোনাভাইরাসের কয়েকটি শক্তিশালী ভ্যারিয়েন্টের অস্তিত্ব রয়েছে, যা দ্রুত সংক্রমণ ঘটাতে পারে। ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চিনের উহান শহরে প্রথমবারের মতো করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব ধরা পড়ে। এরপরই জিনের ক্রমাগত পরিবর্তন ঘটিয়ে ভাইরাসটি গোটা বিশ্বে মহামারীর আকার ধারণ করে।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *