করোনার থাবা এবার আন্টার্টিকাতেও, আক্রান্ত অন্তত ৩৬ জন

Mysepik Webdesk: বিশ্বের আর কোথাও করোনার থাবা পড়তে বাকি নেই। এতদিন পর্যন্ত পৃথিবীর শেষপ্রান্ত আন্টার্টিকায় করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি। তবে এবার সেখানেও থাবা বসিয়েছে কারোনাভাইরাস। সম্প্রতি ঠান্ডা বরফ, সমুদ্র ও হিমশৈল দিয়ে ঘেরা আন্টার্টিকার একটি গবেষণা কেন্দ্রে ৩৬ জনের করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গিয়েছে। ওই গবেষণা কেন্দ্র থেকে সব স্বাস্থ্যকর্মী ও সেনা অফিসারদের সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তাঁদেরকে বর্তমানে একটি কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে রাখা হয়েছে।

আরও পড়ুন: করোনার দ্বিতীয় ঢেউ! ফের লকডাউনে ফিরছে ভুটান

Covid-19: Antarctica the only coronavirus-free continent left - AS.com

চিলি সেনাবাহিনী সূত্রে খবর, আক্রান্তদের মধ্যে ২৬ জন জওয়ান ও ১০ জন স্বাস্থ্যকর্মী রয়েছেন। তাঁদের স্বাস্থ্যের ওপর কড়া নজর রাখা হয়েছে। যদিও তাঁরা বর্তমানে স্থিতিশীল রয়েছেন বলেই জানা গিয়েছে। আন্টার্কটিক সার্ভের ব্রিটিশ গবেষকরা জানিয়েছেন, আন্টার্কটিকায় বর্তমানে মোট ৩৮ টি গবেষণা কেন্দ্র রয়েছে। ওই গবেষণা কেন্দ্রগুলিতে মোট ১০০০ জন বিজ্ঞানী গবেষণা করেন। গ্রীষ্ম ও বসন্তে পর্যটন শুরু হওয়ার পর থেকেই সেখানে প্রথম সংক্রমণ শুরু হয়। ডিসেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে সেখানে প্রথম দুই সেনা আধিকারিকের করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া যায়।

আরও পড়ুন: ‘লিজিয়ন অফ মেরিট’ সম্মানে ভূষিত প্রধানমন্ত্রী

Coronavirus : आता अंटार्क्टिकामध्येही कोरोना दाखल | Coronavirus reaches  Antarctica, last untouched continent |

চিলির নৌবাহিনী সূত্রে খবর, নভেম্বর থেকে ডিসেম্বরের মধ্যে আন্টার্কটিক এলাকায় একটি মালবাহী জাহাজ আসে। সেখান থেকে প্রয়োজনীয় মালপত্র নামিয়ে ফের জাহাজটি ফিরে যায়। সেই জাহাজে মোট ২০৮ জন সদস্য ছিল। জাহাজ ফিরে যাওয়ার পরই সেখানে তিনজনের শরীরে করোনাভাইরাস ধরা পড়ে। এদিকে জাহাজের ক্যাপ্টেনের বক্তব্য, জাহাজ পাড়ি দেওয়ার সময় তাদের কোনও কর্মীর শরীরে করোনাভাইরাস ধরা পড়েনি। তাঁদের জাহাজে ওঠার আগে করোনা পরীক্ষা কড়া হয়েছিল। তারপরেই তাদের জাহাজে ওঠার অনুমতি দেওয়া হয়।

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *