নির্ধারিত সময়ের পূর্বেই আছড়ে পড়ল ঘূর্ণিঝড় ইয়াস

Mysepik Webdesk: নির্ধারিত সময়ের আগেই আছড়ে পড়ল ঘূর্ণিঝড় ইয়াস। ওড়িশার ধামড়া এবং বালাসোরের মাঝে আছড়ে পড়েছে এই ঘূর্ণিঝড়। সকাল ৯টা নাগাদ ল্যান্ডফল শুরু হয়। জানা গিয়েছে যে, এই ল্যান্ডফল চলবে কয়েক ঘণ্টা ধরে। জানা গিয়েছে যে, ওড়িশার উত্তরের উপকূল রেখা বরাবর প্রবল শক্তিশালী বাতাস এবং বৃষ্টিপাতের সঙ্গে ঝড় বইতে শুরু করে। সকাল ৯টা নাগাদ বাহানাগা ব্লকের উপর দিয়ে প্রবল ঝড় বয়ে যায়, যার গতিবেগ ছিল প্রতি ঘণ্টায় ১৩০-১৪০ কিলোমিটার। বিশেষজ্ঞদের অনেকের মতে, এই গতিবেগ ঘণ্টায় ছিল ১৫৫ কিমি।

আরও পড়ুন: ব্যাঙ্কিক পরিষেবার চার্জ ১ জুলাই থেকে বাড়াচ্ছে SBI

আঞ্চলিক মিটারোলজিকাল সেন্টারের ডিরেক্টর এইচ আর বিশ্বাস বলেছেন, ভদ্রক ও বালাসোর জেলাগুলিতে ঝড়ের গতিবেগ থাকবে প্রতি ঘণ্টায় ১৩০ থেকে ১৪০ কিমি। যা বেড়ে ১৫৫ কিমিও হতে পারে। এই ল্যান্ডফলিং ৪ ঘণ্টা অব্যাহত থাকবে। একইভাবে, বায়ুর গতিবেগটি কেন্দ্রপাড়া জেলা ও এর আশপাশে প্রতি ঘণ্টায় ১০০-১১০ কিলোমিটার বেগে থাকবে, যা বেড়ে ১২০ কিলোমিটার হতে পারে। এরপর ঝড়ের গতিবেগ ধীরে ধীরে হ্রাস পাবে। সন্ধ্যার মধ্যে ঝড়ের গতিবেগ নেমে গিয়ে প্রতি ঘণ্টায় ৬৫-৭৫ কিলোমিটার হবে, যা বেড়ে প্রতি ঘণ্টায় ৮৫ কিলোমিটার বেগে পরিণত হতে পারে। ল্যান্ডফলের পরে ঝড় ওড়িশার অভ্যন্তরীণ জেলাগুলির উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হবে এবং ধীরে ধীরে তা দুর্বল হবে।

আরও পড়ুন: নির্ধারিত সময়ের পূর্বেই আছড়ে পড়ল ঘূর্ণিঝড় ইয়াস

ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে ভদ্রকের চাঁদবালি এবং জগৎসিংহপুর জেলার পারাদীপ থেকে খুব ভারী বৃষ্টিপাতের খবর পাওয়া গেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় চাঁদবালি ২৭.৩ সেন্টিমিটার বৃষ্টিপাতের খবর মিলেছে। পারাদীপে ১৯.৭ সেমি বৃষ্টিপাত হয়েছে। জলোচ্ছ্বাসের কারণে, বালাসোর জেলার জলেশ্বর ব্লকের তালসারা অঞ্চলে গ্রামগুলিতে সমুদ্রের জল প্রবেশ করেছে।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *