‘টিকা মজুত নেই, অথচ বিরক্তিকর টিকাকরণ রিংটোন’, কেন্দ্রকে তিরস্কার দিল্লি হাইকোর্টের

Mysepik Webdesk: মোবাইলে কল করলেই এখন শুনতে হয় টিকাকরণের রিংটোন। এই রিংটোন নিয়েই এবার কার্যত কেন্দ্রকে তিরস্কার করল দিল্লি হাইকোর্ট। কোভিড ১৯ ভ্যাকসিন সংক্রান্ত রিংটোন সম্পর্কিত একটি মামলায় দিল্লি হাইকোর্ট কেন্দ্রীয় সরকারের উদ্দেশ্যে বলে, ‘আপনাদের ভাঁড়ারে তো পর্যাপ্ত টিকা মজুত নেই। তা সত্ত্বেও রিংটোনে অনবরত টিকা নেওয়ার বার্তা বাজিয়ে যান। মানুষকে সচেতন করার এই পদ্ধতি উল্টে মানুষের বিরক্তির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।’

আরও পড়ুন: দেশে আরও কিছুটা কমলো করোনা সংক্রমণ, মৃত্যু ৪০০০ জনের

বৃহস্পতিবার দিল্লি হাইকোর্টের বিচারপতি বিপিন সাংঘি এবং বিচারপতি রেখা পাল্লির একটি বেঞ্চ জানায়, “যখনই কোনও মোবাইলে ফোন করা হচ্ছে, বেশ কিছুক্ষন ধরে টিকা নেওয়ার বিরক্তিকর মেসেজ শুনিয়ে চলেছে। অথচ টিকা দেওয়ার সময় কেন্দ্রের কাছে পর্যাপ্ত টিকা নেই। আপনাদের কাছে টিকা না থাকলে মানুষ টিকা নেবেন কী করে। প্রয়োজনে আপনারা জনগণের কাছ থেকে টাকা নিন, কিন্তু সকলকে দ্রুত টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা করুন।”

আরও পড়ুন: কোভিশিল্ডের দু’টি ডোজ নেওয়ার মধ্যে বাড়ল সময়

গত ১৬ জানুয়ারি থেকে গোটা দেশে টিকাকরণ শুরু হতেই মাত্র কয়েকদিনের মধ্যে দেশজুড়ে টিকার আকাল দেখা গিয়েছে। এখনও পর্যন্ত প্রায় ১৮ কোটি মানুষ শুধুমাত্র প্রথম ডোজের টিকা নিতে সক্ষম হয়েছে, বেশিরভাগ মানুষ এখনও পর্যন্ত টিকার দ্বিতীয় ডোজ পাননি। এই ১৮ কোটির মধ্যে দ্বিতীয় ডোজ পেয়ে টিকাকরণ সম্পূর্ণ করেছেন মাত্র ৪ কোটি। অর্থাৎ ৫ মাস কেটে গেলেও ভারতের মোট জনসংখ্যার ১০% মানুষেরও সম্পূর্ণ টিকাকরণ হয়নি। এই পরিস্থিতিতে আবার কেন্দ্র জানিয়েছে, দু’টি টিকা গ্রহণের মধ্যে ন্যূনতম সময়সীমা ২৮ দিনের থেকে বাড়িয়ে ১২ থেকে ১৬ সপ্তাহ করা হয়েছে। বিরোধীদের দাবি, দেশে টিকা অপ্রতুল থাকার জন্য মানুষকে টিকা দিতে পারছে না কেন্দ্র, ফলে নিজেদের গাফিলতি ঢাকতেই এই সময়সীমা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

One comment

  • Malyaban Chattopadhyay

    যা বলা হচ্ছে তা শুধুমাত্র হিন্দি ও ইংরেজি তেই বলা হচ্ছে। এতে সরকারি টাকা খরচ হলেও লাভ কতটা হচ্ছে তা বোঝা যাচ্ছে না,যেহেতু ওই দুটি ভাষা দেশের ৫০% এর কম মানুষের মাতৃভাষা।রাজ্য ভেদে অন্যান্য ভাষায় ও এই বার্তা দেওয়া কাম্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *