১০৫ বনাম ৫৮-র লড়াইয়ে হেরে গেলেও মন জিতল ভারত

সায়ন ঘোষ

লড়ে হার ভারতের। দোহার জাসিম বিন হামিদ স্টেডিয়ামে ভারত আজ প্রায় দেড় বছর পর আন্তর্জাতিক ম্যাচে খেলতে নেমেছিল। প্রতিপক্ষ ছিল র‍্যাঙ্কিংয়ে ৫৮ নম্বরে থাকা কাতার। যদিও এশিয়ান চ্যাম্পিয়ন শক্তিশালী কাতারের বিরুদ্ধে ইগর স্টিম্যাচের ছেলেরা শেষ অবধি লড়ে গেছেন আজ। আজ রাহুল ভেকে লাল কার্ড না দেখলে হয়তো অন্য ফলাফল হত। ম্যাচের শুরু থেকেই মাঝমাঠের দখল নিয়ে নেয় কাতার। ৪ মিনিটে আবদুল করিমের পেনাল্টির আবেদনে রেফারি সাড়া দেননি। ৯ মিনিটে হাসানকে ফাউল করে প্রথম হলুদ কার্ড দেখেন রাহুল ভেকে। ১২ মিনিটে হাসান সুযোগ হাতছাড়া করেন। ১৬ মিনিটে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন রাহুল ভেকে। এরপর আক্রমণের চাপ বাড়ায় কাতার। এই সময় ভারতীয় অধিনায়ক সুনীলকে তুলে উদান্তাকে নামিয়ে দেন ইগর স্টিম্যাচ। কাতার অধিনায়ক হাসান বাঁ-দিক দিয়ে বারংবার বিপজ্জনক হলেন।

আরও পড়ুন: বিশ্বের প্রথম রূপান্তরকামী হিসেবে অলিম্পিকে অংশগ্রহণ করতে পারেন মার্কিন অ্যাথলেট সেসে টেলফার

https://twitter.com/IndianFootball/status/1400528288309604353?s=20

সন্দেশের নেতৃত্বে ভারতীয় ডিফেন্স লড়তে থাকে। ২৪ মিনিটে শুভাশিস কাতারের আক্রমণকে অনবদ্য ভাবে প্রতিহত করেন। ২৫ মিনিটে আবদুল করিম ফের মিস করেন।  ২৭ মিনিটে বাসামের দূরপাল্লার শট অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। ২৯ মিনিটে আশিক কুনুরিয়ানের বাড়ানো বল মনবীর পৌঁছতে পারলে গোল হত। এটিই ভারতের প্রথম গোলের সুযোগ। ৩১ মিনিটে ত্রাতার ভূমিকা অবতীর্ণ হন সন্দেশ ঝিংগান। ৪৩ মিনিটে মনবীর একক প্রচেষ্টাতে গোল করতে ব্যর্থ হন। ৪৬ মিনিটে আবদুল করিমের শট বাঁচান গুরপ্রীত সিং।

আরও পড়ুন: ১ম দিন ভেঙেছিলেন সৌরভের রেকর্ড, ২য় দিন ক্রিকেট তীর্থ লর্ডসে ডাবল সেঞ্চুরি ডেভন কনওয়ের

https://twitter.com/IndianFootball/status/1400533328269242369?s=20

দ্বিতীয়ার্ধে ও পরিস্থিতির কোনও পরিবর্তন হয়নি। ৫২ মিনিটে দলের পতনরোধ করেন গুরপ্রীত। ৬০ মিনিটে খাকুচির দূরপাল্লার শট লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। ৬৩ ও ৬৪ মিনিটে আবার পরিত্রাতা গুরপ্রীত। ৬৭ মিনিটে গ্লেনের পরিবর্তে মাঠে নামে আপুইয়া। ৭৩ মিনিটে বিপিনের জায়গায় আকাশকে নামানো হয়। ৭৪ মিনিটে ফের মিস করে মনবীর। ৮৪ মিনিটে আশিক ও সুরেশের বদলে সাহাল ও লিস্টন মাঠে আসে। তাতেও খেলার পরিবর্তন হয়নি। ভারতীয় দলের মাঝমাঠে যোগ্য মিডিওর অভাব দেখা গেল। লিস্টন কোলাসো, সাহাল না থাকায় আক্রমণ দানা বাঁধেনি। সুনীলকে তুলে নেবার পর আপ ফ্রন্টে মনবীর সিং একা হয়ে যান। কিছুটা লড়াই দেয় আশিক কুনুরিয়ান। বিপিন সিংকেও ছন্দে পাওয়া যায়নি। তবে সন্দেশের নেতৃত্বে ফিফা র‍্যাঙ্কিংয়ে ১০৫ নম্বরে ভারতীয় ডিফেন্স ছিল দুর্দান্ত। আলাদা করে বলতে হবে গোলরক্ষক গুরপ্রীত সিং সান্ধুর কথা। বেশ কয়েকটি গোল বাঁচিয়ে দেন তিনি।

আরও পড়ুন: ‘ইউরোপ সেরা’ চেলসির ইতিহাস

এই হারের পর বিশ্বকাপে স্বপ্ন শেষ হয়ে গেছে ভারতের। এখন আগামী ৭ তারিখ বাংলাদেশকে হারাতেই  হবে ২০২৩ এএফসি এশিয়ান কাপে খেলতে হলে। আগামী ম্যাচে ইগর কীভাবে দল নামান সেটাই, এখন দেখার। তবে এশিয়ান চ্যাম্পিয়নদের সঙ্গে প্রায় ৮০ মিনিট (সংযুক্ত সময় ধরে) ১০ জনে খেলে ভারতীয় ফুটবলারদের দাঁতে দাঁত চিপে লড়াই প্রশংসা পাচ্ছে। খেলার শেষে স্টেডিয়ামে উপস্থিত দর্শকরা ভারতীয় ফুটবলারদের গগনভেদী ‘ইন্ডিয়া-ইন্ডিয়া’ চিৎকারে অভিবাদন দেন।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *