Latest News

Popular Posts

বাড়িতে চা খাওয়ার পর চায়ের পাতা ফেলে দেবেন না, ত্বকের উপকারে কাজে লাগান

বাড়িতে চা খাওয়ার পর চায়ের পাতা ফেলে দেবেন না, ত্বকের উপকারে কাজে লাগান

Mysepik Webdesk: আমাদের মধ্যে অনেকেই আছেন যারা সকালে ঘুম থেকে উঠেই এক কাপ চায়ের জন্যে চটপট করেন। আবার বাড়িতে কোনো অতিথি এলেই আমরা প্রথমে চায়ের অফার করে থাকি। কিন্তু চা বানানোর পরে আমরা সচরাচর চায়ের পাতা ফেলে দেই। কিন্তু এই ব্যবহৃত চা পাতার উপকারিতা জানলে আপনি কিন্তু আর চা বানানোর পর চায়ের পাতা ফেলার কথা ভাবতেই পারবেন না। জেনে নিন ব্যবহৃত চা পাতার কি কি গুন রয়েছে।

ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায়: ত্বক থেকে তেলতেলে ভাব দূর করতে চায়ের লিকারের থেকে আর ভালো কিছু হতে পারে না। একটি পাত্রে চায়ের লিকারের সাথে ভালো করে লেবুর রস মাখান। একটি কৌটোতে ভর্তি করে ফ্রীজে রেখে দিন। প্রতিদিন একটু একটু করে মিশ্রণটি টোনার হিসেবে ব্যবহার করুন। ত্বক কয়েক দিনের মধ্যেই দারুন উজ্জ্বল হয়ে উঠবে।

মুখের ডার্ক সার্কেল কমায়: চা পাতায় ট্যানিন ও ক্যাফিন প্রচুর পরিমানে থাকে যা চোখের ফোলা ফোলা ভাব কমাতে সাহায্য করে এবং সেই সাথে ডার্ক সার্কলকেও দূর করতে সাহায্য করে। একটি টি ব্যাগ নিয়ে বরফজলে কিছুক্ষন ভিজিয়ে রাখার পর ঠান্ডা টি ব্যাগটি চোখের ওপর প্রায় ১০ মিনিট ধরে রাখুন। প্রতিদিন ঘুমানোর আগে এই কাজটি যদি আপনি নিয়মিত করেন তাহলে দুই সপ্তাহের মধ্যেই আপনার চোখের আশেপাশের ডার্ক সার্কল দূর হয়ে যাবে।

ত্বকের পোড়াভাব দূর করে: ত্বক থেকে পোড়াভাব দূর করতে চা পাতা দারুন উপকারী। কড়া করে চা পাতা জলে ফুটিয়ে লিকার বানিয়ে নিন তারপর সেগুলি ট্যান পড়া অংশে নিয়মিত লাগান, এতে রোদে পোড়া ত্বকের কালচে ভাব দূর হয়ে যাবে এবং আপনার ত্বক পুনরায় আগের মতো চকচকে হবে।

স্ক্র্যাব করুন: টি ব্যাগ থেকে চা পাতা বের করে নিন, অথবা ব্যবহৃত চা পাতাকে ভালো করে রোদে শুকিয়ে নিন, তারপর সেগুলিকে গোলাপ জলের সাথে ভালো করে মিশিয়ে মুখে ধীরে ধীরে স্ক্র্যাব করুন। কিছুদিন ব্যবহার করার পর আপনি নিজেই পার্থক্য বুঝতে পারবেন।

কন্ডিশনার হিসেবে ব্যবহার করুন: পয়সা খরচ করে কেন কন্ডিশনার কিনতে যাবেন? স্নান করার পর চুলে ভালো করে শ্যাম্পু করে নিন, তারপর কন্ডিশনার এর বদলে চুলের মধ্যে ভালো করে লাগিয়ে নিন চায়ের লিকার। দশ থেকে পনেরো মিনিট রেখে তারপর ভালো করে ধুয়ে নিন। দেখবেন আপনার চুল কেমন সিল্কি হয়ে গেছে।

তাহলে কি ভাবছেন? এখনো ব্যবহৃত চায়ের পাতা ফেলে দেবেন নাকি পুনরায় কাজে লাগাবেন?

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *