একচিলতে ধর্মমাখা রোদ্দুর এবং অশীতিপর ওং পিং পং

Mysepik Webdesk: ৮৮ বছর বয়সি ওং পিং পং। যিনি গত ৩০ বছর ধরে ‘ঈশ্বরে’র যত্ন নিচ্ছেন। তাঁর বাড়ি হংকংয়ের ওয়াটারফল বে পার্ক। সেখানে গৌতম বুদ্ধ সহ অনেক ধর্মের দেবদেবীর মূর্তি রয়েছে। পিং পং তাঁদের তদারকি করেন। ওংয়ের কথায়, পার্কটি দেবতার রিটায়ার হোমের মতো। মানুষ এখানে পুরনো এবং খণ্ডিত ভাস্কর্যগুলি রেখে যান। এই জায়গাটির নাম দেওয়া হয়েছে ‘স্কাই ফুল অফ গডস অ্যান্ড বুদ্ধ’।

আরও পড়ুন: দুই বন্দি জওয়ানকে মুক্ত করতে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক পাকিস্তানে

ওং বলেছেন, এখানে প্রায় ৩ হাজার মূর্তি রয়েছে। কিছু মূর্তি ৩ দশকের পুরনো। মূর্তিগুলি বেশিরভাগই পাহাড়ঘেরা এলাকায় রাখা। এখানকার মানুষ বিশ্বাস করেন যে, মূর্তি ভেঙে গেলে ভাগ্যে চিড় ধরে। সেই কারণে ভাঙা মূর্তি ঘরে না রাখাই শ্রেয়। তবে ওংয়ের বিশ্বাস ব্যতিক্রমী। তিনি বলেন, ‘‘মানুষ প্রতিমাগুলি ঘরে নিয়ে আসেন ঘরে সমৃদ্ধির জন্য। তবে আপনি যখন এগুলি ফেলে দেন, তখন আপনি সমৃদ্ধিও বাইরে রেখে আসেন। তাই বাইরে ফেলে না দিয়ে প্রতিমাগুলি এখানে নিয়ে আসা ভালো।’’

আরও পড়ুন: মায়ানমারে এবার গ্রেপ্তার সু কি-ঘনিষ্ঠ উইন হেটেন

ওং বলেন, ‘‘খুব অল্প বয়স থেকে ভগবান বুদ্ধ আমার সঙ্গে রয়েছেন। তাঁর কৃপায় দেবতাদের যত্ন নিই। আমি যদি এ-কাজ না করি, তবে কে করবে? প্রতিমাগুলি যেখানে-সেখানে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে পড়ে থাকতে দেখতে পারি না আমি।’’ ওং দিনে দু’বার পার্কে আসেন। প্রথমবার, সকাল আটটায় এবং দ্বিতীয়বার, দুপুরের পরে। প্রথমে মূর্তি পরিষ্কার করেন তিনি। তাঁদের চারপাশে পাতা কাটেন। ভাঙা সমস্ত প্রতিমা আঠার সাহায্যে জোড়া লাগান। ওং বিশ্বাস করে যে, এসব করার পরে ঈশ্বরও তাঁদের যত্ন নেবেন এবং আশীর্বাদে ভরিয়ে দেবেন।

ওং বলেন, এটি একটি অত্যন্ত পবিত্র স্থান। ফেং শুই বিশেষজ্ঞরা উল্লেখ করেছেন যে, এই অংশটি পাহাড় এবং সমুদ্রের সম্মুখভাগে অবস্থিত। এটি অত্যন্ত শুভ বলে বিবেচিত হয়। সম্ভবত ঈশ্বরও চান যে, আমি এমন জায়গায় সময় কাটাব।

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *