অরুণাচল প্রদেশে ড্রাগনদের গ্রাম স্থাপন! চিদম্বরম বললেন, সরকার কি আবার চিনকে ক্লিন চিট দেবে?

Mysepik Webdesk: অরুণাচল প্রদেশে চিনের একটি বসতি স্থাপনের রিপোর্টে ভারতে চর্চা শুরু হয়েছে। এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চিন অরুণাচল প্রদেশের বিতর্কিত এলাকায় একটি নতুন গ্রাম প্রতিষ্ঠা করেছে। সেখানে প্রায় ১০১টি বাড়ি রয়েছে। এই প্রতিবেদনের পর কংগ্রেস নেতা ও প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী পি চিদম্বরম মোদি সরকারকে আক্রমণ করেছেন। চিদম্বরম টুইট করেছেন যে, সরকার কি চিনকে আরও একটি ক্লিন চিট দেবে? কংগ্রেসের দিগ্‌গজ নেতা পি চিদম্বরম সোমবার বিজেপি সাংসদ তপীর গাও-র এই দাবিতে সরকারের প্রতিক্রিয়া চেয়েছিলেন। উল্লেখ্য যে, গাও জানিয়েছিলেন যে, চিন অরুণাচল প্রদেশের মধ্যে বিতর্কিত অঞ্চলে একশত বাড়ি তৈরি করেছে। চিদম্বরম বলেছেন― বিজেপি সাংসদের দাবি যদি সত্য হয়, তবে সরকার কি চিনকে ক্লিন চিট দিয়ে পূর্ববর্তী সরকারকে দোষ দেবে?

আরও পড়ুন: দেশে প্রথম করোনা টিকা পেলেন এইমসের সাফাইকর্মী

চিদম্বরম একটি টুইটে লিখেছেন, ‘‘বিজেপির সাংসদ তপীর গাও অভিযোগ করেছেন যে, অরুণাচল প্রদেশের ভারতীয় ভূখণ্ডের মধ্যে ‘বিতর্কিত অঞ্চলে’ গত বছর চিনারা ১০০ বসতির গ্রাম, একটি বাজার এবং দু’টি লেন তৈরি করেছিল। রাস্তাও তৈরি হয়েছে। যদি এটি সত্য হয়, তবে এটি স্পষ্ট যে বিতর্কিত অঞ্চলটিকে চিনা নাগরিকদের স্থায়ী বসতিতে পরিণত করে চিন স্থিতাবস্থার পরিবর্তন করেছে। এই ঘটনা সম্পর্কে সরকারের কী বক্তব্য রয়েছে? সরকার কি চিনকে আর একটি ক্লিন চিট দেবে? নাকি সরকার পূর্ববর্তী সরকারকে দোষ দেবে?” তাৎপর্যপূর্ণভাবে, চিন ভারতের অরুণাচল প্রদেশের কিছু বিতর্কিত অংশকে তাদের অঞ্চল হিসাবে বিবেচনা করে।

আরও পড়ুন: আগামীকাল ২০ লক্ষ টিকা ভারত থেকে বাংলাদেশ পৌঁছবে

অন্যদিকে, ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রক বলেছে, ‘‘চিন ভারতের সীমান্তবর্তী এলাকায় নির্মাণকাজ করার সাম্প্রতিক রিপোর্ট দেখেছি। চিন বছরের পর বছর ধরে এ জাতীয় ইনফ্রাস্ট্রাকচার নির্মাণ কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। এর জবাবে আমাদের সরকার সীমান্তে ইনফ্রাস্ট্রাকচার নির্মাণসহ রাস্তা, সেতু ইত্যাদি নির্মাণের কাজও ত্বরান্বিত করেছে, যা সীমান্ত অঞ্চলে বসবাসকারী স্থানীয় জনগণের জন্য প্রয়োজনীয় সংযোগ সরবরাহ করেছে।” মন্ত্রক আরও বলেছে যে, সরকার অরুণাচল প্রদেশের জনগণসহ নাগরিকদের জীবিকা নির্বাহের জন্য সীমান্ত অঞ্চলে ইনফ্রাস্ট্রাকচার তৈরির লক্ষ্যে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। সরকার এ জাতীয় সব ঘটনাবলির ওপর অবিচলিত নজর রাখে, যা ভারতের সুরক্ষায় প্রভাব ফেলে এবং এর সর্বভৌমত্ব ও আঞ্চলিক অখণ্ডতা রক্ষায় প্রয়োজনীয় সকল পদক্ষেপ গ্রহণ করে।”

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *