শীতলকুচি নিয়ে বিস্ফোরক রাহুল সিনহা, ‘৪ জন নয় ৮ জনকে গুলি করে মারা উচিত ছিল’

Mysepik Webdesk: গতকালই শীতলকুচি নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করেছিলেন রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তার ২৪ ঘন্টার মধ্যেই ফের বিতর্কিত মন্তব্য করে বসলেন বিজেপি নেতা রাহুল সিনহা। শীতলকুচি প্রসঙ্গে রাহুল সিনহার কাছে সংবাদমাধ্যম তার প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি জানান, “চারজন নয়, আটজনকে গুলি করে মারা উচিত ছিল।” তিনি আরও বলেন, ভোট দেওয়ার জন্য লাইনে দাঁড়িয়ে থাকা একটা ছেলেকে যারা গুলি করেছে মেরেছে, তাদের নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দিন শেষ হয়ে গিয়েছে।”

আরও পড়ুন: শীতলকুচির ঘটনার পেছনে রয়েছে মমতার প্ররোচনা, বিস্ফোরক অমিত শাহ

Sulking Rahul Sinha cold to BJP peacemakers' calls - Telegraph India

প্রসঙ্গত, রবিবার বড়নগরে বিজেপি প্রার্থী পার্নো মিত্রের সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে দিলীপ ঘোষ কার্যত হুমকির সুরে বলেন, “বেশি বাড়াবাড়ি করলে জায়গায়-জায়গায় শীতলকুচির মতো ঘটনা ঘটবে।” এদিন শীতলকুচির ঘটনা নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আক্রমণ করতে গিয়ে তিনি বলেন, “উনি পাপ করছেন, অন্যায় করছেন। মানুষকে উস্কানি দিচ্ছেন। অবিলম্বে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রচার বন্ধ করে দেওয়া উচিত। উনার বিরুদ্ধে মামলা করা উচিত।” তারপরেই তিনি এহেন মন্তব্য করে বসেন।

আরও পড়ুন: ‘বেশি বাড়াবাড়ি করলে আরও শীতলকুচির মতো ঘটনা ঘটবে’, ফের বেলাগাম দিলীপ ঘোষ

Carry lathis to all rallies: BJP national secretary Rahul Sinha's sermon to  party workers - India News

শনিবার শীতলকুচির জোড়পাটকির ১২৬ নং বুথে শনিবার সকালে ভোট শুরু হওয়ার কিছু পরেই আচমকা কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানদের বিরুদ্ধে ভোটারদের লক্ষ করে এলোপাথাড়ি গুলি চালানোর অভিযোগ ওঠে। গুলি লেগে মৃত্যু হয় চার জনের। অভিযোগ, প্রায় ৩০০ জন দলীয় কর্মী কেন্দ্রীয় বাহিনীকে ঘিরে ঘরে তাদের রাইফেল কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। তাই প্রাণ বাঁচাতে বাধ্য হয়ে ওই কর্মীদের লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে কেন্দ্রীয় বাহিনী। একই দাবি করে নির্বাচন কমিশনও। যদিও এই দাবি মানতে নারাজ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর দাবি, ইচ্ছাকৃতভাবে এই ঘটনা ঘটানো হয়েছে। এই ঘটনাকে তিনি একপ্রকার ‘গণহত্যা’ বলে ব্যাখ্যা করেন। ঘটনার পর সাংবাদিকদের দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি এমনটাই দাবি করেন।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *