হকি জগতে নক্ষত্রপতন, একই দিনে রবিন্দরপাল সিংয়ের পর প্রয়াত এম কে কৌশিক

Mysepik Webdesk: রবিন্দরপাল সিংয়ের পর একই দিনে ১৯৮০-র মস্কো অলিম্পিকে সোনাজয়ী ভারতীয় হকি দলের আরও এক তারকা এম কে কৌশিকের জীবনাবসান। শনিবার করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে প্রাক্তন হকি খেলোয়াড় ও কোচ এম কে কৌশিক প্রয়াত হয়েছেন। এই খবরের পরে ক্রীড়া জগতে শোকের নেমে এসেছে। কৌশিক ভারতীয় জাতীয় মহিলা হকি দলের কোচও ছিলেন। ১৯৯৮ সালে তিনি অর্জুন পুরস্কার পেয়েছিলেন।

আরও পড়ুন: ৫১ লক্ষ জনসংখ্যার এক দ্বীপরাষ্ট্র দাপট দেখাচ্ছে ক্রিকেটে

৬৬ বছর বয়সি কৌশিক গত তিন সপ্তাহ ধরে করোনার সঙ্গে লড়াই করছিলেন। ১৯৮০ সালের মস্কো অলিম্পিকে স্বর্ণপদক জয়ী দলের সদস্য কৌশিকের করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসে ১৭ এপ্রিল। তাঁকে চিকিৎসার জন্য নার্সিংহোমে ভর্তি করা হয়েছিল। তাঁর পুত্র বলেন, “আজ (শনিবার) সকালে ভেন্টিলেটরে নেওয়া হয় তাঁকে। তবে তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন সেখানেই।”

আরও পড়ুন: কোভিড যুদ্ধে বিরুষ্কা দিলেন ২ কোটি

উল্লেখ্য যে, কৌশিক ভারতের সিনিয়র পুরুষ এবং মহিলা দলকে প্রশিক্ষণ দিয়েছিলেন। ভারতীয় পুরুষ দলের কোচ থাকাকালীন ১৯৯৯ সালে ব্যাঙ্কক এশিয়ান গেমসে স্বর্ণপদক জিতেছিল ভারত। তিনি কোচ থাকাকালীন ভারতীয় মহিলা দল ২০০৬ দোহা এশিয়ান গেমসে ব্রোঞ্জ পদক জিতেছিল। ১৯৯৮ সালে অর্জুন পুরস্কার সহ ২০০২ সালে দ্রোণাচার্য পুরস্কারে ভূষিত হন এই প্রবাদপ্রতিম ক্রীড়াব্যক্তিত্ব।

আরও পড়ুন: সংশয়ে টোকিও অলিম্পিক: বাতিলের জন্য অনলাইনে আবেদন

অন্যদিকে, রবীন্দরপাল সিংয়েরও প্রয়াণ ঘটেছে। তাঁকে ২৪ এপ্রিল লখনউয়ের বিবেকানন্দ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। তাঁর পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, তিনি করোনার সংক্রমণ থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছিলেন। তাঁর রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। সেই কারণে তিনি করোনার ওয়ার্ডের বাইরে ছিলেন। তবে শুক্রবার তাঁর শারীরিক অবস্থার হঠাৎ করেই অবনতি ঘটে। তাঁকে ভেন্টিলেটরে দেওয়া হয়।

আরও পড়ুন: স্থগিত হয়ে যাওয়া আইপিএলের বাকি ম্যাচ কি ইংল্যান্ডে!

১৯৮০-র পর ১৯৮৪ সালে লস অ্যাঞ্জেলেস অলিম্পিকও খেলেছিলেন রবীন্দরপাল সিং। তিনি অবিবাহিত ছিলেন। তাঁর এক ভাগ্নী প্রজ্ঞা যাদব। সীতাপুরে জন্ম নেওয়া এই সেন্টার হাফের খেলোয়াড় ১৯৭৯ থেকে ১৯৮৪ পর্যন্ত দুর্দান্ত পারফরম্যান্স করেছিলেন। দু’টি অলিম্পিক ছাড়াও তিনি ১৯৮২ এবং ১৯৮৩ সালে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি, ১৯৮২ বিশ্বকাপ এবং ১৯৮২ এশিয়া কাপে অংশগ্রহণ করেছিলেন।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *