অভিনব জালিয়াতি, মেট্রোর স্মার্ট কার্ড রিচার্জের নামে গায়েব হয়ে যাচ্ছে ব্যাঙ্কের জমানো টাকা

Mysepik Webdesk: দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর অবশেষে শুরু হতে চলেছে কলকাতা মেট্রোরেল পরিষেবা। ১৩ সেপ্টেম্বর থেকে NEET ‌পরীক্ষার্থীদের জন্য এবং আগামী সোমবার থেকে জনসাধারণের জন্য খুলে দেওয়া হচ্ছে মেট্রো রেলের দরজা। তবে সংক্রমণ এড়াতে মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষ শুধুমাত্র যাদের স্মার্ট কার্ড রয়েছে, তাদেরকেই মেট্রোরে সফরের অনুমতি দিচ্ছে। সেই কারণে মেট্রো কর্তৃপক্ষ স্মার্টকার্ড অনলাইনে রিচার্জ করারও ব্যবস্থা করে দিয়েছে। আর স্মার্টকার্ড অনলাইনে রিচার্জ করা নিয়ে শহরে নতুন এক ধরণের জালিয়াতি শুরু হয়ে গিয়েছে।

আরও পড়ুন: বিশ্বভারতীর পাঁচিল-কাণ্ডে তদন্তে জেলা পুলিশ

যেদিন থেকে মেট্রোরেল স্মার্টকার্ডের কথা ঘোষণা করেছে, সেদিন থেকেই বিধাননগর কমিশনারেট এবং কলকাতা পুলিশের বিভিন্ন থানায় স্মার্টকার্ড রিচার্জ করার নামে জালিয়াতির ভুরি ভুরি অভিযোগ জমা পড়তে শুরু করে দিয়েছে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা গিয়েছে, প্রতারকরা মেট্রো রেলের নাম ভাঁড়িয়ে ফোন করে বলছে ‘‌শীঘ্রই আপনার মেট্রোর স্মার্ট কার্ডটি রিচার্জ করতে হবে অন্যথায় সেটি বন্ধ হয়ে যেতে পারে। অনলাইনে ঘরে বসেই এখন রিচার্জ করা সম্ভব।’‌ এরপর যাদের স্মার্ট কার্ড রয়েছে তাদের কাছ থেকে জানতে চাওয়া হচ্ছে তারা কত টাকা রিচার্জ করতে চান। এরপর একটি কিউ আর কোড পাঠানো হচ্ছে তাদের কাছে। সেটি স্ক্যান করতে বলা হচ্ছে। এরপর যেকোনও পেমেন্ট অ্যাপ দিয়ে সেটি স্ক্যান করলেই সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা উধাও হয়ে যাচ্ছে।

আরও পড়ুন: খুশির খবর: ভারতে ইলিশ রপ্তানিতে ছাড়পত্র দিল বাংলাদেশ

পুলিশ আধিকারিকদের কথায়, অনলাইন জালিয়াতি নিয়ে এত প্রচারের পরও মানুষ একই ভুল বার বার করছে। কিউ আর কোড স্ক্যান করার আগে প্রত্যেকেরই ভাল করে দেখে নেওয়া উচিত কত টাকা তিনি লেনদেন করতে চলেছেন। কলকাতা মেট্রো রেলের মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক ইন্দ্রাণী বন্দ্যোপাধ্যায় এই প্রসঙ্গে জানান, মেট্রোর অ্যাপ রয়েছে, ওয়েবসাইট রয়েছে। সেখান থেকেই সহজে যে কেউ রিচার্জ করতে পারেন। তাছাড়া মেট্রো কর্তৃপক্ষ স্মার্টকার্ড গ্রাহককে ফোন করে কখনোই রিচার্জ করতে বলে না।

Similar Posts:

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *