নাদালের পর অলিম্পিক থেকে সরে গেলেন ফেডেরার, সংশয় জোকোভিচকে নিয়েও

Olympics Tennis

Mysepik Webdesk: ২৩ জুলাই থেকে জাপানের রাজধানী টোকিওতে শুরু হতে চলেছে গেমসের ‘মহাকুম্ভ’ অলিম্পিক। তবে করোনার প্রভাব এখনও কমেনি ‘উদীয়মান সূর্যের দেশে’। এই কারণে গত মাসে স্প্যানিশ তারকা রাফায়েল নাদাল অলিম্পিক থেকে নাম প্রত্যাহার করেছিলেন। এখন সুইস তারকা রজার ফেডেরারও অলিম্পিকে না খেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। একইসঙ্গে বিশ্বের ১ নম্বর সার্বিয়ার টেনিস তারকা নোভাক জোকোভিচের অলিম্পিক অংশগ্রহণ নিয়েও সংশয় দেখা দিয়েছে। উল্লেখ্য যে, নাদাল, ফেডেরার এবং জোকোভিচ বিশ্ব টেনিসের এই তিন মহাতারকাই ২০টি করে গ্র্যান্ড স্ল্যাম খেতাব অর্জন করেছেন।

আরও পড়ুন: ঐতিহাসিক ন্যাটওয়েস্ট জয়ের ১৯ বছর পূর্তির দিনে বায়োপিকে রাজি হলেন ‘দাদা’

অলিম্পিক চলবে ২৩ জুলাই থেকে ৮ আগস্ট পর্যন্ত। তবে, টোকিওতে করোনার কারণে জরুরি অবস্থা জারি রয়েছে এবং স্টেডিয়ামে সমর্থকদের আগমন নিয়েও নিষেধাজ্ঞাও রয়েছে। এ কারণেই জোকোভিচ টোকিও যাওয়ার ব্যাপারে দ্বিধায় রয়েছেন বলে মনে করা হচ্ছে। অন্যদিকে, নাদাল ও ফেডেরার চোটের কারণে বিশ্রাম নিয়েছেন। নাদাল ও ফেডেরার পর যদি জোকোভিচও অলিম্পিক থেকে নাম তুলে নেন, তবে অলিম্পিকের টেনিস ইভেন্ট যে জৌলুস হারাবে অনেকটাই, তা বলাই বাহুল্য।

ফেডারার মঙ্গলবার বলেছেন যে, ‘‘ঘাসের কোর্ট সিজনে (উইম্বলডন ২০২১) আমি বুঝতে পেরেছিলাম আমার হাঁটুর ইনজুরি সমস্যা তৈরি করছে। সে কারণেই আমি টোকিও অলিম্পিক থেকে সরে আসার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। অলিম্পিক খেলা এবং সুইজারল্যান্ডের প্রতিনিধিত্ব করা আমার পক্ষে বরাবরই গর্বের বিষয়। আমি এই জন্য সবসময়েই প্রস্তুত। কিন্তু আপাতত, চোটের কারণে এটি সম্ভব নয়।”

আরও পড়ুন: ভিডিয়ো কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে অলিম্পিকে যাওয়ার আগে দেশের অ্যাথলেটদের টোটকা দিলেন নরেন্দ্র মোদি

সম্প্রতি, জোকোভিচ ষষ্ঠবারের মতো উইম্বলডন শিরোপা জিতেছেন। ফাইনাল জয়ের পরে তিনি বলেছিলেন, ‘‘আমি সবসময় অলিম্পিকে খেলতে চেয়েছিলাম। তবে বর্তমান পরিস্থিতি অনুকূল নয়। আমি যা শুনছি, তা দেখে আমি কোনও সিদ্ধান্ত নিতে পারছি না। অলিম্পিকে খেলার ব্যাপারে ভাবনাচিন্তা করতে হবে।”

অন্যদিকে, ফ্রেঞ্চ ওপেনের সেমিফাইনালে জোকোভিচের কাছে হারের পর নাদাল বলেছিলেন, ‘‘ফরাসি ওপেন এবং উইম্বলডনের মধ্যে মাত্র দুই সপ্তাহের ব্যবধান ছিল। এই সময়ে আমার শরীরকে বিশ্রাম দেওয়া এবং আবার খেলা সহজ নয়। বিশ্রাম সবসময়ই প্রয়োজন, বিশেষত সুরকির কোর্টে খেলার পরে। আমি আমার কেরিয়ার দীর্ঘায়িত করতে অলিম্পিক এবং উইম্বলডনে না খেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এই বয়সে আমাকে কিছু কঠোর সিদ্ধান্ত নিতে হবে, যাতে আমি আমার কেরিয়ার দীর্ঘায়িত করতে পারি।”

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *