মাছের বর্জ্যই মাছের খাদ্য, বিজ্ঞানে স্নাতক ছাত্রের ‘বায়োফ্লক’ পদ্ধতিতে মাছ চাষের সুলুক সন্ধান

Bioflock

নদিয়া, ২২সেপ্টেম্বর: আধুনিক সভ্যতার দাপটে চাষের জমি হোক বা জলাশয়, প্রায় সবই ক্রমশ বিলুপ্তের পথে। অন্যদিকে ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার ফলে আগামী দিনে তীব্র খাদ্য সংকটের মুখোমুখো হতে চলেছি আমরা। এই ধরণের চিন্তাভাবনা থেকে ১৯৮০ সালে ইজরায়েলের এক মৎস্য বিজ্ঞানী প্রফেসর ইওরম এভনিমেলাচ ‘বায়ো’ অর্থাৎ জৈব এবং ‘ফ্লক’ অর্থাৎ দল অর্থাৎ জৈব পদ্ধতিতে আবদ্ধ জায়গায় জল পরিবর্তন না করেই শুধুমাত্র ব্যাকটেরিয়াকে কাজে লাগিয়ে মাছের চাষ করেছিলেন। সেক্ষেত্রে তিনি মাছের বর্জ্য থেকে উৎপাদিত অ্যামোনিয়া ও নাইট্রেটকে ধ্বংস করে ব্যাকটেরিয়ার সেলকে প্রোটিনে রূপান্তরিত করে মাছের খাদ্য হিসাবে পুনরায় ব্যবহার করছিলেন, যা আগামী দিনে “বায়োফ্লক” পদ্ধতি নাম পরিচিত।

আরও পড়ুন: একটি নম্বর দিয়ে একসঙ্গে চারটি ফোন করা যাবে হোয়াটসঅ্যাপ, আসছে নতুন ফিচার

পশ্চিমবঙ্গের ক্ষেত্রে বায়োফ্লক চাষীরা কই ,তেলাপিয়া, মনোপিয়া, শিঙ্গি, মাগুর চাষ করে এসেছেন এতদিন পর্যন্ত। তবে ইদানিং পাবদা ট্যাংরা, বাটা চাষেও সফলতা পাচ্ছে বর্তমান বায়োফ্লক মৎস্যচাষিরা। কিন্তু বায়োফ্লক পদ্ধতিতে এই প্রথম চিংড়ি চাষ করে অসম্ভবকে সম্ভব করে তুললেন অরূপবাবু ৷ তিনি জানালেন, জলের মধ্যে অম্ল ও ক্ষারের ভারসাম্য বজায় রাখার পাশাপাশি জলে দ্রবীভূত লবণ, মিনারেল ক্যালসিয়াম, ক্লোরিন, টিডিএসের মাত্রা, পিএইচ এর মাত্রা, এয়ার পাম্পের সাহায্যে জলে দ্রবীভূত অক্সিজেনের মাত্রা এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রোটোবায়োটিক অর্থাৎ ব্যাকটেরিয়া প্রয়োগের মাত্রা সঠিক থাকলে এবং উপযুক্ত মাছের খাদ্য খাবার জোগান দিতে পারলেই আপনি সফল।

আরও পড়ুন: হোয়াটস অ্যাপের চ্যাট ভুল করে ডিলিট হয়ে গেছে? ফিরিয়ে আনুন এই পদ্ধতিতে

নদিয়ার শান্তিপুর শহরের বিজ্ঞানে স্নাতক কৃতি ছাত্র অরূপ দেব চাকরির একঘেয়েমি কাটাতে এবং বর্তমান বেকার যুবকদের রোজগারের সঠিক দিশা দেখাতে ‘বায়োফ্লক এর সহজ পাঠ’ নামক একটি বই প্রকাশ করেছেন। তাঁর কথায়, “ইউটিউব ভিডিও বা অনভিজ্ঞ প্রশিক্ষকের কাছ থেকে ট্রেনিং নিয়ে সর্বস্বান্ত হয়েছেন অনেক বেকার যুবক। তাই প্রশিক্ষণ সংস্থার সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জেনে তবেই নামা উচিত এই ব্যবসায়। এই চাষের প্রতি বর্তমান কর্মহীন যুবকদের আগ্রহ থাকলে আগামী দিনে যে খাদ্য রসিক মাছে ভাতে বাঙালির খুব একটা অসুবিধা হবে না, সে বিষয়ে প্রায় নিশ্চিত থাকতে পারেন।”

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *