করোনা ভ্যাকসিন বানানোর জন্য বলি হতে চলেছে পাঁচ লক্ষ হাঙ্গর

Mysepik Webdesk: গোটা বিশ্বের ত্রাস এখন করোনাভাইরাস। সেই করোনাভাইরসের ভ্যাকসিন তৈরি করতে এখন বিশ্বজুড়ে বিজ্ঞানীরা লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে। ভ্যাকসিনের প্রতীক্ষায় রয়েছে গোটা বিশ্ব। কিন্তু পাশাপাশি অন্য একটি বিষয় অবশ্য ভাবাচ্ছে বিজ্ঞানীদের। এই ভ্যাকসিন বানাতে গিয়ে বলি হতে পারে প্রায় ৫ লক্ষ হাঙ্গর। শুধু তাই নয়, এই বিপুল সংখ্যক হাঙ্গরের মৃত্যুর ফলে পৃথিবী থেকে এই প্রাণীটির বিলুপ্ত হয়ে যাওয়ারও আশঙ্কা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না।

আরও পড়ুন: করোনা আক্রান্ত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও তাঁর স্ত্রী মেলানিয়া, দ্রুত আরোগ্য কামনা প্রধানমন্ত্রী মোদির

বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, হাঙ্গরের শরীরে এক ধরনের প্রাকৃতিক তেল নির্গত হয় যা ভ্যাকসিন তৈরিতে অপরিহার্য। আর ভ্যাকসিন তৈরিতে বিজ্ঞানীদের এই তেলই এখন প্রচুর পরিমানে প্রয়োজন। অ্যাজুভ্যান্ট হল একপ্রকার স্ক্যালেন, যা হাঙরের লিভারের মধ্যে থাকে। সেই অ্যাজুভ্যান্ট হাঙ্গরের শরীর থেকে নিষ্কাশন করতে গেলে হাঙ্গরকে হত্যা করা ছাড়া আর কোনও উপায় নেই। জানা গিয়েছে, এক টন স্ক্যালেন তৈরি করতে অন্তত ৩ হাজার হাঙরকে মেরে ফেলতে হবে। আর বিশ্বের সব মানুষকে ভ্যাকসিন দিতে গেলে প্রয়োজন প্রায় আড়াই লক্ষ হাঙরকে হত্যা করা। সেক্ষেত্রে যদি একবারের পরিবর্তে দু’বার ভ্যাকসিন দেওয়ার প্রয়োজন হয়, তাহলে অন্তত ৫ লক্ষ হাঙ্গরকে হত্যা করতে হবে।

আরও পড়ুন: অরুণাচল প্রদেশ ভারতেরই অংশ, চিনকে ফের স্পষ্ট জানিয়ে দিল আমেরিকা

বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা, এভাবে যদি হাঙ্গর নিধন করা হয়, তাতে অদূর ভবিষ্যতে হাঙ্গর বিলুপ্তপ্রায় প্রাণীতে পরিণত হয়ে যাবে। এদিকে ভ্যাকসিনের ডোজও দিনে দিনে বেড়েই যাবে। সেক্ষেত্রে হাঙর নিধন অব্যাহতই থাকবে। তবে এই আশঙ্কার মধ্যেও খুশির খবর, বিজ্ঞানীরা কীভাবে হাঙর ছাড়াও স্কোয়ালিন পাওয়া যায় সে ব্যাপারে ইতিমধ্যেই গবেষণা শুরু করে দিয়েছেন। সিন্থেটিক স্কোয়ালিন ব্যবহার করলে ভ্যাকসিনের ক্ষেত্রে কোনও প্রভাব পড়বে কিনা, সেটাও খতিয়ে দেখছেন তাঁরা।

Similar Posts:

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *