ইতিহাস তৈরি করে এয়ারবাস এ-৩৪০ বিমানের অ্যান্টার্কটিকায় প্রথমবারের মতো অবতরণ

Mysepik Webdesk: এয়ারবাস এ-৩৪০ বিমান প্রথমবারের মতো অ্যান্টার্কটিকার বরফে অবতরণ করেছে। পর্যটন ক্ষেত্রে কাজ করা কোম্পানির একটি দল একটি অ্যান্টার্কটিকার বরফে সেফ ল্যান্ড তৈরি করে এয়ারবাস এ-৩৪০কে অবতরণ করিয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করেছে। হাই ফ্লাই নামের একটি এভিয়েশন কোম্পানি এই ফ্লাইট চালায়। হাই ফ্লাই ৮০১ নামের ফ্লাইটটি ২ নভেম্বর দক্ষিণ আফ্রিকার কেপ টাউন থেকে ওড়ে এবং পাঁচ ঘণ্টার যাত্রার পর অ্যান্টার্কটিকায় অবতরণ করে। ফ্লাইটটির কোডনাম ছিল হাই ফ্লাই ৮০১। সংস্থাটি এখন এই ফ্লাইটের ভিডিয়ো প্রকাশ করেছে।

আরও পড়ুন: ভয়াবহ সড়ক দুর্ঘটনা পশ্চিম বুলগেরিয়ায়, অগ্নিদগ্ধ হয়ে মৃত্যু ১২ শিশু-সহ ৪৫ জনের

অ্যান্টার্কটিকায় সারাবছর বরফের কয়েক মিটার উঁচু স্তর জমে থাকে। রানওয়েটি বরফের উপরই তৈরি করা হয়েছে, যা ৩০০০ ফুট লম্বা। ২৯০ যাত্রী ধারণক্ষমতা-সহ ২২৩ ফুট লম্বা বিমানটি অবতরণ করার আগে ২০১৯ থেকে ২০২০-র মধ্যে প্রায় ৬টি পরীক্ষা চালানো হয়েছিল। হাই ফ্লাই রিপোর্ট করেছে যে, অ্যান্টার্কটিকা একটি উদীয়মান পর্যটন খাত। তাই কোম্পানিটি এখানে আরও অনেক প্রকল্পে কাজ করছে। এই কোম্পানি বিমান ও এয়ার ক্রু ভাড়া করে। বিমা, রক্ষণাবেক্ষণ এবং অন্যান্য লজিস্টিকও কোম্পানির দায়িত্বে থাকে।

আরও পড়ুন: চিহ্নিত করা হল ক্রিসমাস প্যারেডের হামলাকারীদের

বিমানটি পাইলট ছিলেন ক্যাপ্টেন কার্লোস মিরপুরি, যিনি হাই ফ্লাইয়ের ভাইস প্রেসিডেন্ট। দলটি অ্যান্টার্কটিকায় প্রায় ৩ ঘণ্টা কাটিয়েছে। পুরো যাত্রাটি ২৫০০ নটিক্যাল মাইল কভার করেছিল। উল্লেখ্য যে, একজন অস্ট্রেলিয়ান সামরিক পাইলট এবং অনুসন্ধানকারী জর্জ হুবার্ট উইলকিন্স ১৯২৮ সালে অ্যান্টার্কটিকায় উড়ে গিয়েছিলেন। লকহিড ভেগা ১ মনোপ্লেনে প্রথমবার অ্যান্টার্কটিকায় পৌঁছেছিলেন তিনি। এখন পর্যন্ত অ্যান্টার্কটিকায় কোনও বিমানবন্দর নির্মিত হয়নি। তবে সেখানে ৫০টি অবতরণ স্ট্রিপ এবং রানওয়ে রয়েছে।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *