চব্বিশ ঘন্টার মধ্যে দ্বিতীয় বার সিবিআই হানা ইলামবাজারের তৃণমূল কংগ্রেসের কার্যালয়ে

Mysepik Webdesk: সোমবার রাতের পর আজ বিকেলে ফের ইলামবাজারের তৃণমূল কংগ্রেসের কার্যালয়ে হানা দিল সিবিআই আধিকারিকদের এর একটি দল। সূত্রের খবর, আজ বিকেল নাগাদ ইলামবাজারের তৃণমূল কংগ্রেসের দলীয় কার্যালয়ে হানা দেয় সিবিআই এবং সেখানে সোমবার রাতে সিবিআই-এর তরফে ওই কার্যালয়ের সম্পাদককে যে নোটিশ দেওয়া হয়েছিল সেই নোটিশের উত্তর পেতেই আজ সিবিআই এর আগমন।

আরও পড়ুন: সুস্মিতা দেবকে রাজ্যসভায় প্রার্থী করল তৃণমূল কংগ্রেস

একুশের বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পর রাজনৈতিক হিংসার জেরে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল গোটা রাজ্য। সেই প্রকোপ থেকে বাদ যায়নি বীরভূম জেলাও। সেই হিংসার জেরেই তৃণমূলের বিজয় মিছিল থেকে খুন হতে হয় বীরভূম জেলার ইলামবাজার থানার গোপাল নগর গ্রামের গৌরব সরকারকে। ঘটনার লিখিত অভিযোগ দায়ের হয় ইলামবাজার থানায়। কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে গোটা রাজ্যে ঘটে চলা ভোট পরবর্তী হিংসার ঘটনার তদন্ত ভার তুলে দেওয়া হয় সিবিআই এর হাতে। পরে সেই তদন্ত চলাকালীন বেশ কয়েক দফা জিজ্ঞাসাবাদও করা হয় গৌরব সরকারের পরিবারের লোকজনকে। সেই জিজ্ঞাসাবাদের জেরে সোমবার হুগলি জেলার শেওড়াফুলি থেকে দিলীপ মিদ্ধা নামের এক অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে সিবিআই। পরে তাকে বোলপুর আদালতে তোলা হলে সেখানে তাকে চারদিনের সিবিআই হেফাজত দেওয়া হয়।

আরও পড়ুন: সুষ্ঠুভাবে উপনির্বাচন সম্পন্ন করতে রাজ্যে আসছে ১৫ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী

এরপরেই সোমবার সন্ধ্যে নাগাদ আচমকা ইলামবাজারের তৃণমূল কংগ্রেসের দলীয় কার্যালয়ে হানা দেয় সিবিআই এর একটি দল। সেখানকার সাধারণ সম্পাদক বাবর আলীর হাতে একটি নোটিশ দিয়ে যায় তারা, যার মাধ্যমে তারা বেশ কয়েকজন তৃণমূল নেতা-সহ ২০১৯ এর লোকসভা নির্বাচন ও ২০২১ এর বিধানসভা নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা বুথ কমিটির সদস্যদের নাম, নম্বর ও ঠিকানা জানতে চাওয়া চায়। কার্যত, সেই সমস্ত প্রশ্নের উত্তর জানতেই আজ পুনরায় সেখানে সিবিআই এর দল হানা দেয় বলে জানা গিয়েছে। এই ঘটনা প্রসঙ্গে ইলামবাজার ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি ফজলুর রহমান জানান, দলের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে পুরো ঘটনার পেছনে রয়েছে বিজেপির চক্রান্ত।

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *