বিধানসভা ভোটে ভরাডুবির কারণ ফাঁস করলেন আলিপুরদুয়ারের প্রাক্তন বিজেপি সভাপতি

Mysepik Webdesk: একুশে নির্বাচনের ফলাফলে বিজেপির ভরাডুবির কারণ জানালেন আলিপুরদুয়ারের প্রাক্তন বিজেপি সভাপতি গঙ্গাপ্রসাদ শর্মা। সোমবার বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগদান করার পরেই তিনি বিস্ফোরণ মন্তব্য করলেন। তিনি এর কারণ হিসেবে মূলত দায়ী করলেন দিল্লির বিজেপি নেতৃত্বের নীতিকেই। তিনি জানান, বাংলায় বিজেপি যে খারাপ ফল করেছে, তার জন্য দায়ী হলেন পশ্চিমবঙ্গের বিজেপি পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীকে। তিনি আরও জানান, ওই সময় দিল্লির নীতির কাছে কার্যত অসহায় ছিলেন খোদ দিলীপ ঘোষও।

আরও পড়ুন: উত্তরবঙ্গে রাজ্যপাল, কালো পতাকা দেখালেন তৃণমূল কর্মীরা

প্রসঙ্গত, সোমবার বিজেপি শিবির ছেড়ে তৃণমূলে যোগদান করেন আলিপুরদুয়ারের প্রাক্তন বিজেপি সভাপতি গঙ্গাপ্রসাদ শর্মা। যদিও একুশের নির্বাচনে আলিপুরদুয়ার জেলায় ভালো ফল করে বিজেপি। ৫টি বিধানসভা আসনেই জয়ের মুখ দেখে বিজেপি। কিন্তু তার পরেও গেরুয়া শিবির ছেড়ে ঘাসফুল শিবিরে নাম লেখান গঙ্গাপ্রসাদ শর্মা। তিনি দাবি করেন, জেলা সভাপতি হওয়া সত্ত্বেও তাঁকে দলে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছিল না। দীর্ঘ দিন ধরেই তাঁর সঙ্গে দলের দূরত্ব তৈরি হচ্ছিল। তিনি জানান, “আমার যা কাজ করার ছিল, তা আমি করে দিয়েছি। আলিপুরদুয়ারের পাঁচ আসনে আমি বিজেপিকে জিতিয়ে এনেছি। তারপরেই দলের সঙ্গে দূরত্ব তৈরি হওয়ায় আমি দল ছেড়ে এসেছি। আমি গদ্দার নই।”

আরও পড়ুন: রাজ্যে ১৮ ঊর্ধ্ব সকলকে বিনামূল্যে ভ্যাকসিন নয়, কিন্তু কেন?

বিজেপির বিরুদ্ধে একরাশ ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি জানান, “বাংলায় বিজেপি দলটাকে নষ্ট করার পেছনে রয়েছেন কৈলাস বিজয়বর্গী। তিনিই দিল্লিকে ভুল বুঝিয়েছিলেন। একজন কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক কি করে রোড শো করেন। জনগণের উদ্দেশ্যে হাত নাড়তে নাড়তে যান। এটা কি তার কাজ?” পাশাপাশি আরও অভিযোগ করেন, ভোটের সময় কৈলাস, অরবিন্দ মেনন, শিবপ্রকাশ-সহ একাধিক নেতা দিল্লি থেকে এসে সংগঠকদের সাথে ক্রমাগত খারাপ ব্যবহার করে গেছেন। প্রসঙ্গত, আলিপুরদুয়ারের ১ ব্লকের ১১টি অঞ্চল থেকে প্রায় ১ হাজার বিজেপি নেতা কর্মী সোমবার তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন। সূত্রের খবর, আরও বেশ কিছু বিজেপি নেতা-কর্মী তৃণমূলে যোগ দেওয়ার জন্য অপেক্ষা করে রয়েছেন।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *