চল্লিশ বছর পর কলকাতা লিগ চ্যাম্পিয়ন মহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবে

Mysepik Webdesk: ১৯৮১-র পর কলকাতা লিগ জয়ের হাতছানি ছিল মহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের। দীর্ঘ চার দশক পর অবশেষে এলো সেই মুহূর্ত। বৃহস্পতিবার বিবেকানন্দ যুবভারতী ক্রীড়াঙ্গনে রেলওয়ে এফসিকে হারিয়ে কলকাতা লিগ চ্যাম্পিয়ন হল সাদা-কালো ব্রিগেড। অন্যদিকে, রেলওয়ের সামনেও ইতিহাস গড়ার সুযোগ ছিল। তারা শেষবার কলকাতা লিগের শিরোপা জিতেছিল ১৯৫৮-এ আজ জিতলে দীর্ঘ ৬৩ বছর পর লিগ জিতত রেল। তাছাড়াও কলকাতার তিন প্রধানের বাইরে কলকাতা লিগ জিতে ইতিহাস গড়ত রেলওয়ে এফসি। যদিও মোহনবাগান ও ইস্টবেঙ্গল আইএসএল খেলার কারণে এবছর কলকাতা লিগে অংশগ্রহণ করেনি।

আরও পড়ুন: আট বছর পর বিশ্বকাপে যোগ্যতা অর্জন করল নেদারল্যান্ডস

ডুরান্ড কাপের ফাইনালে ভালো খেলেও ‘ব্ল্যাক প্যান্থার’দের হার স্বীকার করতে হয়েছিল এফসি গোয়ার কাছে। তাই আজকের ম্যাচে জিতে ডুরান্ড ফাইনালে হারের জ্বালা মেটাতে পারেন কিনা মার্কাস জোসেফরা, সেটাই ছিল দেখার। বাড়তি উদ্যোমে আজ শুরু করে তারা। শুরুতেই গোলও পেয়ে যায় মহামেডান। মাত্র ৩ মিনিটে মার্কাস জোসেফ জোরালো শটে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায় সাদা-কালো বাহিনী। ৯ মিনিটেও বড় সুযোগ এসে গিয়েছিল মহামেডানের সামনে। মার্কাসের বাড়ানো বলে সিটার মিস করেন ফইয়াজ। তবে ১২ মিনিটে সুযোগ চলে এসেছিল রেলওয়ের সামনে। বক্সের প্রান্ত থেকে সফিক আলি শট ট্রিগার করলেও লক্ষ্যচ্যুত হয়।

আরও পড়ুন: আইসিসি-র পুরুষদের ক্রিকেট কমিটির চেয়ারম্যান সৌরভ গাঙ্গুলি

১৮ মিনিটে ব্ল্যাক প্যান্থারদের ডানদিক থেকে দুর্দান্ত উঠে আসেন ফইয়াজ। অসাধারণ একটা লো ক্রস ড্রিলও করেন। কিন্তু রেলওয়ের শুভেন্দু মাণ্ডি তৎপরতার সঙ্গে ক্লিয়ারেন্স করেন। ৩৭ মিনিটে রেলওয়ের পক্ষে কেলভিনের হেডার অল্পের জন্য পোস্টের ওপর দিয়ে চলে যায়। ফিরতি মিনিটেই সুকুমারের নেওয়া শট সমতায় ফেরাতে পারত রেলকে। যদিও কয়েক ইঞ্চির জন্য তাঁর শট লক্ষ্যচ্যুত হয়। বিরতিতে যাওয়ার ঠিক আগে মহামেডানের ব্রেন্ডন রেলওয়ের গোলকিপারকে পরাস্ত করতে পারেননি। প্রথমার্ধ শেষ হয় মহামেডান স্পোর্টিংয়ের পক্ষে ১-০ অবস্থায়।

আরও পড়ুন: ব্রাজিলকে জিততে না দিয়ে বিশ্বকাপ নিশ্চিত করল আর্জেন্টিনা

দ্বিতীয়ার্ধে গোলশোধের চেষ্টায় ঝাঁপিয়ে পড়ে রেলওয়ে এফসি। তবে মহামেডানের ডিফেন্স সজাগ ছিল। এর পাল্টা হিসাবে ৬১ মিনিটে আজহারউদ্দিন মল্লিক প্রায় গোল করেই ফেলেছিলেন। রেলওয়ে গোলরক্ষক রানা টপক্লাস সেভ করেন। ৬৫ মিনিটে আবার সুযোগ চলে আসে সাদা-কালো ব্রিগেডের। সুনীল মিতেইয়ের শট দারুণ বাঁচান রেল গোলরক্ষক। ৭৭ মিনিটে রেলওয়ের অচিন্ত্যের একটি প্রচেষ্টা ক্রসবারের ওপর দিয়ে চলে যায়। এরপর মরিয়া হয়ে ওঠা রেলওয়ে মুহুর্মুহু আক্রমণ শানাতে থাকলেও গোল করতে পারেনি। ফলে কলকাতা লিগ চ্যাম্পিয়ন হয়ে চল্লিশ বছরের দীর্ঘ খরা কাটল মহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব। এদিন মাঠে উপস্থিত ছিলেন প্রায় ৩০ হাজার সাদা-কালো সমর্থক। তাঁরা মাঠে থেকে নিজেদের প্রিয় দলকে উজ্জীবিত করলেন। তাঁদের সামনেই মহামেডান চ্যাম্পিয়ন হয়ে যেন উৎসবের পরিবেশ রচনা করল।

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *