অলিম্পিক শুরুর আগে ব্যাডমিন্টনে দেশের অন্যতম ভরসা বি এস প্রণীথকে চিনে নিন

Badminton

Mysepik Webdesk: পরের মাসেই শুরু অলিম্পিক। এই মেগা ইভেন্টে ব্যাডমিন্টনে দেশের অন্যতম ভরসার নাম বি এস প্রণীথ। ২০১৯ সালে ৩৭ বছর পরে বি এস প্রণীথ বিশ্ব ব্যাডমিন্টন চ্যাম্পিয়নশিপে ব্রোঞ্জ পদক জিতে ইতিহাস তৈরি করেছিলেন। প্রণীথের আগে প্রকাশ পাডুকোন ১৯৮৩-র বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে ব্রোঞ্জ পদক জিতেছিলেন। ওয়ার্ল্ড গ্রেটস শো অলিম্পিকে নিজের সেরাটা দিতে চান প্রণীথ। তিনি ছাড়াও পি ভি সিন্ধু ব্যাডমিন্টনে মহিলা সিঙ্গেল বিভাগে টোকিও অলিম্পিকে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছেন। সিন্ধু রিও অলিম্পিকের রৌপ্যপদক জয়ী। এছাড়াও ভারতীয় জুটি সাত্বিক্সরাজ রাঙ্কিরদী এবং চিরাগ শেঠি ডাবলসে দেশের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করবেন।

আরও পড়ুন: ফুটবল পরিসরে উপেক্ষিত দুই ইতালীয় ‘তরুণে’র গল্প

প্রণীথ বলেন, “এটি আমার প্রথম অলিম্পিক, যা যেকোনও খেলোয়াড়ের পক্ষে সবচেয়ে বড় টুর্নামেন্ট। আমার জন্যও। আমি আমার সেরাটা দিতে চাই। এখন আমার পুরো ফোকাস ফিটনেসের দিকে। স্পোর্টস অথরিটি অফ ইন্ডিয়া (SAI) অলিম্পিকের প্রস্তুতির জন্য আমাদের সমস্ত সুযোগ-সুবিধা দিয়েছে।” উল্লেখ্য যে, প্রণীথের জন্ম ১০ আগস্ট ১৯৯২ সালে, হায়দরাবাদে। তাঁর বাবা একটি বেসরকারি সংস্থায় চাকরি করতেন। প্রণীথকে প্রতিদিন ব্যাডমিন্টন অ্যাকাডেমিতে ট্রেনিংয়ের জন্য প্রায় ১৮ কিলোমিটার সাইকেল চালিয়ে যেতে হট। ২৪ ঘণ্টা ট্রেনিং শেষে তিনি স্কুলে যেতেন। প্রণীথ জানান, অ্যাকাডেমিতে আসার পরে তিনি অনেক উন্নতি করেছিলেন। যা তাঁকে নতুন দিকের হদিশ দিয়েছিল। অ্যাকাডেমিতে দেশের প্রাক্তন খেলোয়াড় এবং কোচ গোপীচাঁদের পরামর্শ তাঁর দারুণ কাজে লেগেছিল।

আরও পড়ুন: অন্য ২৫ জুনের গল্প: নব্বুইয়ে পা ভারতীয় ক্রিকেটের এক গৌরবোজ্জ্বল দিনের

২০১৩ সালে ইন্দোনেশিয়া সুপার প্রিমিয়ার সিরিজে ইন্দোনেশিয়ান স্টার তৌফিক হিদায়াতকে ১৫-১২, ২১-১২, ২১-১৭ ব্যবধানে পরাজিত করে হইচই ফেলে দিয়েছিলেন। এটি ২০০৪ এথেন্স অলিম্পিকে স্বর্ণপদক এবং ইন্দোনেশিয়া সুপার প্রিমিয়ার সিরিজের ছয়বারের বিজয়ী তৌফিকের বিদায়ী ম্যাচ ছিল। ২০১৪ সালের শেষের দিকে চোটের কারণে প্রণীথ কিছুদিন ব্যাডমিন্টন থেকে দূরে ছিলেন। তবে ফিরে আসার পরে, ২০১৬ সালে ইংল্যান্ড সুপার সিরিজের প্রথম রাউন্ডে তিনি জাপানের লি চং ওয়েকে পরাজিত করেছিলেন। সেই সময় লি চং ছিলেন অলিম্পিকে ৩ বারের রুপোর পদক বিজয়ী। এছাড়াও প্রণীথ ২০১৬ এবং ২০২০ এশিয়ান টিম চ্যাম্পিয়নশিপে ব্রোঞ্জ পদক জিতেছেন। ২০১০ সালের ওয়ার্ল্ড জুনিয়র ব্যাডমিন্টন চ্যাম্পিয়নশিপে পুরুষদের সিঙ্গেলসে ব্রোঞ্জ পদকও জিতেছেন তিনি। ২০১৭ সালে সিঙ্গাপুর ওপেনের ফাইনালে তিনি স্বদেশি কিদাম্বী শ্রীকান্তকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হন। এহেন তারকার কাছ থেকে পদক জয়ের প্রত্যাশা রয়েছে।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *