খাওয়ার জন্য বাড়িতে পোষ্য কুকুর সরকারের হাতে তুলে দিন, নির্দেশ কিম জং উনের

Mysepik Webdesk: দেশের মানুষের খাবারে টান পড়েছে, তাই বাড়ির পোষ্য কুকুরকে মেরে রান্না করে খাওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন উত্তর কোরিয়ার শাসক কিম জং উন। তাঁর নির্দেশ অনুযায়ী, বাড়ির পোষা কুকুরকে তুলে দিতে হবে সরকারের হাতে যা কিনা পরে মাংস হিসেবে খাওয়া হবে। আর এর ফলে দেশে খাবারের চাহিদা কিছুটা হলেও পূরণ হবে। স্বাভাবিকভাবেই তাঁর নির্দেশে রাতের ঘুম উড়েছে উত্তর কোরিয়াবাসীর। কারণ, কিমের নির্দেশ না মানলে তাঁর ফল যে কী ভয়ানক হতে পারে তা হাড়ে হাড়ে জানেন দেশবাসী।

আরও পড়ুন: ভারতেই তৈরি হবে রাশিয়ার করোনা ভ্যাকসিন, জানাল রাশিয়া

নিউজিল্যান্ড হেরল্ড নামে একটি সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে এরকমই একটি চাঞ্চল্যকর খবর। সেই খবর অনুযায়ী, বাড়িতে পোষ্য রয়েছে, এরকম বাড়িগুলিকে চিহ্নিতকরণের কাজ চলছে। সেই বাড়ি থেকে প্রশাসন জোর করে তাদের পোষা কুকুরগুলিকে নিয়ে চলে যাচ্ছে। কিছু কুকুরকে পাঠানো হচ্ছে চিড়িয়াখানায় আবার কিছু কুকুরকে সরাসরি মাংসের দোকানে পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে জবাই করার জন্য। গত জুলাই মাস থেকেই এই কুকুর ধরপাকড়ের কান্ডকারখানা চলছে গোটা উত্তর কোরিয়া জুড়ে।

আরও পড়ুন: করোনার ভ্যাকসিন আসবে শীঘ্রই, বিনামূল্যে বিতরণও করা হবে, জানাল অস্ট্রেলিয়া

কিমের দাবি, এর ফলে নাকি এক ঢিলে দুই পাখি মারার কাজ হয়ে যাবে। প্রথমত তিনি মনে করেন বাড়িতে কুকুর পোষা মানে পাশ্চাত্য সভ্যতাকে প্রশ্রয় দেওয়া। আবার কুকুর মেরে মাংস খাওয়া হলে কিছুটা হলেও খাবারের অভাব মিটবে দেশে। কিমের মতে, সাধারণ মানুষ শুকর বা এই জাতীয় পশুপালন করেন এবং সমাজের ধনী ব্যক্তিরাই শুধু কুকুর পোষেন। রাষ্ট্রসঙ্ঘের হিসেব অনুযায়ী, বর্তমানে উত্তর কোরিয়ায় প্রায় ২৫ কোটি জনসংখ্যার মধ্যে ৬০ শতাংশ মানুষের পর্যাপ্ত খাওয়ারের যোগান নেই কারণ এ বছর সেখানে বন্যায় ধানের চাষের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

Similar Posts:

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *