স্বাক্ষর করতে হবে স্বাস্থ্যবিধি মানার চুক্তিপত্রে, তবেই মিলবে ‘যৌন’ পরিষেবা

Mysepik Webdesk: করোনার দাপটে বন্ধ হয়ে গেছে বিশ্বজুড়ে একাধিক পেশা। কোটি কোটি মানুষের পেটের ভাত কেড়ে নিয়েছে এই করোনাভাইরাস। জার্মানিতেও প্রাদুর্ভাব ঘটেছে এই মারণ ভাইরাসের। সেই কারণে সেদেশেও অনাহারে কিংবা আধপেটা খেয়ে দিন কাটাচ্ছেন একাধিক পেশার সঙ্গে যুক্ত মানুষ। জার্মানিতে যৌনপল্লিগুলি বৈধ এবং এই পেশা বৈধ হলেও সেখানে সম্প্রতি অবাধ যৌনতা নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে করোনা আবহের কারণে। দীর্ঘদিন ধরে বার্লিন শহরের যৌনপল্লীগুলি বন্ধ থাকার পর অবশেষে সেগুলি শর্ত সাপেক্ষে খোলার নির্দেশ দিয়েছে সরকার।

আরও পড়ুন: নেপালের ভয়ানক ভূমিধস, এখনও পর্যন্ত উদ্ধার ১৮ জনের দেহ

তবে বর্তমানে বেশকিছু স্বাস্থ্যবিধি মানার শর্তসাপেক্ষে যৌনপল্লীগুলি খোলার অনুমতি পাওয়া গেছে। জার্মান সরকারের নির্দেশ অনুযায়ী আগামী সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত আপাতত মাসাজ বা অন্যান্য পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত হতে পারেন যৌনকর্মীরা। কিন্তু যৌনসংসর্গ কোনও মতেই নয়। এক্ষেত্রেও গ্রাহকদের মানতে হবে স্বাস্থ্যবিধি। স্বাক্ষর করতে হবে সুরক্ষা বিধি মানার চুক্তিপত্রে। তবেই মিলবে পরিষেবা।

আরও পড়ুন: পাকিস্তানের চিড়িয়াখানা থেকে গায়েব কমপক্ষে ৫১৩টি দুষ্প্রাপ্য পশু

এদিকে সরকারের এই ঘোষণায় যৌনকর্মীদের দাবি, তাঁদের গ্রাহকরা বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই যৌনসংসর্গই চায়। তাই এই ক্ষেত্রে আদৌ মাসাজ বা অন্যান্য পরিষেবা দিয়ে আদৌ তাঁদের পেট চলবে কিনা, তাতে যথেষ্ট সংশয় রয়েছে। জানা মার্কস নামের এক যৌনকর্মীর কথায়, প্রায় ২০ বছর ধরে এই পেশায় রয়েছি, কিন্তু কখনও এই পরিস্থিতি আসেনি। এখন করোনাকে আর ভয় পাই না, ভয় পাই খিদেকে। প্রসঙ্গত শুধুমাত্র বার্লিন শহরেই চল্লিশ হাজারেও বেশি যৌনকর্মীর কাছে তাঁদের পেশার বৈধ ট্রেড লাইসেন্স রয়েছে।

Similar Posts:

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *