প্রিয়াঙ্কা ভবানীপুর থেকে জিতলে আমি আমার চেয়ার ছেড়ে দেব: শুভেন্দু

Mysepik Webdesk: ভবানীপুরের উপনির্বাচনে বিজেপি প্রার্থী প্রিয়াঙ্কা টিবরেওয়ালের হয়ে প্রচারে এসেছিলেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। প্রচার চলাকালীন তিনি তাঁর ভাষণে চাঞ্চল্যকর মন্তব্য করে বসলেন। তিনি ঘোষণা করলেন, ভবানীপুরে প্রিয়াঙ্কা জিতলে তিনি তাঁর চেয়ার ছেড়ে দেবেন প্রিয়াঙ্কার জন্য। অর্থাৎ শুভেন্দু অধিকারী নিজের বিরোধী দলনেতার পদ ছেড়ে দেবেন প্রিয়াঙ্কার জন্য।

আরও পড়ুন: বাবুলের পর তৃণমূলে আসছেন লকেট! কুনালের টুইট ঘিরে জল্পনা তুঙ্গে

এদিন শেষদিনের প্রচারে এসে শুভেন্দু বলেন, “প্রিয়াঙ্কা জিতলে আমি কেন্দ্রীয় নেতৃত্বকে বলব, আমার চেয়ার ওকে দেওয়া হোক।” এদিন যদুবাবুর বাজারের সভা থেকে নান্দিগ্রাম নিয়ে ফের রাজ্যের শাসক দলকে বিঁধলেন তিনি। তিনি বলেন, “নন্দীগ্রামে আমি আগেই ছক্কা মেরেছি। এবার ভবানীপুরের মানুষকে অনুরোধ করব আপনারা ভবানীপুরকেও নন্দীগ্রাম করুন।” তিনি আরও বলেন, “মানুষের টাকা নষ্ট করে এখানে ভোট হচ্ছে। এই কেন্দ্রের বিধায়ক শোভনদেব তো দলবদল করেননি। তাও কেন তাঁকে জোর করে ইস্তফা দেওয়ানো হয়েছে? বিধায়ক হিসেবে মানুষ তাঁকে মেনে নেয়নি। তবুও মুখ্যমন্ত্রী থাকার জন্য জোর করে এই ভোট করাচ্ছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।”

আরও পড়ুন: দলের গুরুদায়িত্ব পাওয়ার পর এই প্রথমবার দিল্লি যাচ্ছেন সুকান্ত, সঙ্গী দিলীপ ঘোষ

প্রসঙ্গত, ভবানীপুরের উপনির্বাচনে আজই শেষ দিনের প্রচার। প্রচারকার্য চালানোর সময় যদুবাবুর বাজারে বিক্ষোভের মুখে দিলীপ ঘোষ। দফায় দফায় উত্তেজনা ছড়াল ভবানীপুরে দিলীপ ঘোষের সভায়। মাথা ফাটে এক বিজেপি কর্মীর। আহত হলেন বেশ কয়েকজন। বাধা পেয়ে পুলিশি নিরাপত্তায় ঘটনাস্থল ছাড়তে হল দিলীপ ঘোষ, অর্জুন সিংদের। এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার। তিনি বলেছেন, এই ঘটনার প্রমাণ হয়ে গেল পশ্চিমবঙ্গে গণতন্ত্র নেই। সুকান্তবাবুর কথায়, “এটা কেমন সংস্কৃতি! মমতা যখন দিল্লি যান, তাঁকে ঘিরে কেউ ‘জয় শ্রীরাম’ বলেন? অভিষেকের সঙ্গে সংসদে দেখা হলে ‘জয় শ্রীরাম’ বলি আমরা?” এরপর তাঁর সংযুক্তি, ভবানীপুরে গুন্ডা, তালিবানি গুন্ডা নামিয়েছে তৃণমূল। বলেন, হয়ত বাংলাদেশ থেকেও আসতে পারে। এতে যাতে ভয় পেয়ে মানুষ ভোট না দিতে যায় সেই চেষ্টা করা হচ্ছে। আফগানিস্তান এর চেয়ে ভাল অবস্থায় রয়েছে।”

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *