বিশ্বের অন্যতম শ্রেষ্ঠ গবেষণামূলক বিশ্ববিদ্যালয়ের তকমা আইআইএসসি বেঙ্গালুরুকে

Mysepik Webdesk: দ্য ইন্ডিয়ান ইন্সটিটিউট অফ সায়েন্স (আইআইএসসি) বেঙ্গালুরু পৃথিবীর অন্যতম শ্রেষ্ঠ গবেষণামূলক বিশ্ববিদ্যালয়ের তকমা পেয়েছে। কোয়াকোয়ারেলি সাইমন্ডস (কিউএস) ওয়ার্ল্ড র‍্যাঙ্কিং ২০২২-এর বার্ষিক বিশ্ববিদ্যালয় র‍্যাঙ্কিংয়ে এমনটাই জানানো হয়েছে। কিউএস-এর প্রেস রিলিজ অনুযায়ী, ‘‘সাইটেশান পার ফ্যাকাল্টি (সিপিএফ) ইন্ডিকেটর অনুযায়ী, যখন বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুষদ যাচাই করা হয় (সিপিএফ গণনার জন্য প্রতিষ্ঠানের আয়তন যাচাই), আইআইএসসি বেঙ্গালুরু পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ গবেষণামূলক বিশ্ববিদ্যালয় সেই যাচাইয়ের মাপকাঠিতে ১০০-র মধ্যে ১০০ পেয়েছে।’’

আরও পড়ুন: ২১ জুন থেকে ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে সবাইকে বিনামূল্যে ভ্যাকসিন: নরেন্দ্র মোদি

সাইটেশান পার ফ্যাকাল্টি ৬টি মাপকাঠির মধ্যে অন্যতম, যা দিয়ে কিউএস র‍্যাঙ্কিং যাচাই করা হয়। গবেষণার গভীরতাও যাচাই করা হয়। একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে গত ৫ বছরে প্রকাশিত যে ক’টি গবেষণাপত্র থাকে, তা তার অনুষদের সংখ্যা দিয়ে ভাগ করা হয়। কিউএস-এর মধ্যপ্রাচ্য, উত্তর আফ্রিকা এবং দক্ষিণ এশিয়ার রিজিওনাল ডিরেক্টর অশ্বিন ফার্নান্দেজ এক আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন যে, এই প্রথম কোনও ভারতীয় বিশ্ববিদ্যালয় যে কোনও মাপকাঠির হিসেবে ১০০-র মধ্যে ১০০ পেয়েছে।

আরও পড়ুন: মাত্র ৫০০ টাকায় দু’টি ডোজ, বাজারে আসছে নতুন ভ্যাকসিন Corbevax

বুধবার প্রকাশিত র‍্যাঙ্কিং তালিকা থেকে জানা যায় যে, ভারতে আইআইএসসি তৃতীয় স্থানে আছে। প্রথম হল আইআইটি বম্বে এবং দ্বিতীয় স্থানে আছে আইআইটি দিল্লি। আইআইএসসি সিপিএফ মাপকাঠিতে ১০০ পেলেও বাকি দু’টি বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গেই সেরা ২০০-র মধ্যে স্থান পেয়েছে। পৃথিবীর সেরা তিন বিশ্ববিদ্যালয় হল― প্রথম ম্যাসেচুসেটস ইন্সটিটিউট অফ টেকনলজি (এমআইটি), দ্বিতীয় অক্সফোর্ড এবং স্ট্যানফোর্ড তৃতীয় হয়েছে।

আরও পড়ুন: কোন পথে যে চলি! ভ্যাকসিন নীতির কার্যকারিতার প্রশ্নে ধাঁধাঁ

এছাড়াও মাপকাঠি হিসেবে দেখা হয়েছে ফ্যাকাল্টি-স্টুডেন্ট রেশিও। মোট ছাত্র সংখ্যাকে মোট শিক্ষক সংখ্যা দিয়ে ভাগ করলে বোঝা যায়, প্রত্যেক শ্রেণিতে কতজন করে ছাত্রকে একটি প্রতিষ্ঠান তাদের বার্ষিক অ্যাকাডেমিক পরিসংখ্যানে ভর্তি করিয়েছে। এছাড়াও খতিয়ে দেখা হয় একটি প্রতিষ্ঠানের পড়াশোনার মান। এই বছর ১,৩০,০০০ অ্যাকাডেমিক্স এবং ৭৫,০০০ শিক্ষকের মান যাচাই করা হয়েছে। দেখা হয়েছে পাশের হারও। এর ফলে বোঝা যায় যে, একটি প্রতিষ্ঠান কতটা জনপ্রিয় এবং কতজন ছাত্র সেই বিশেষ প্রতিষ্ঠানে পড়াশোনা করতে ইচ্ছুক।

আরও পড়ুন: বিশ্বরক্ষার কৃতিত্ব নিতে গিয়ে ভারতীয়দের বিপদে ফেলছে মোদি সরকার: অমর্ত্য সেন

ভারতীয় বিশ্ববিদ্যালয়গুলির ক্ষেত্রে কিউএস-এর ডিরেক্টর অফ রিসার্চ বেন সোটারর জানান― ‘‘এই বছরের পরিসংখ্যানে দেখা গেছে যে, ভারতীয় বিশ্ববিদ্যালয়গুলি খুব সুন্দর কাজ করছে। তাদের গবেষণা সারা পৃথিবীতে তারিফ পাওয়ার যোগ্য। আশা করা যায়, ভবিষ্যতে সেখান থেকে অনেক ভালো গবেষক উঠে আসবেন। তবে ভারতের উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে অনেক খামতিও দেখা গেছে। এইগুলো শুধরে নিতে পারলে ভারত শিক্ষাব্যবস্থার ক্ষেত্রে পৃথিবীর অন্যান্য দেশের সঙ্গে যোগ্য টক্কর দিতে পারবে এবং আগামী প্রজন্ম এতে লাভবান হবে।’’

আরও পড়ুন: ভারতে করোনার ডেল্টা স্ট্রেনই সবচেয়ে বেশি সংক্রামক, দাবি বিশেষজ্ঞদের

ভারতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের র‍্যাঙ্কিং প্রসঙ্গে কিউএস-এর মতে, ভারতের মধ্যে আইআইটি বম্বে টানা চার বছর শীর্ষ আসনে থেকেছে। বর্তমানে আইআইটি বম্বে সারা পৃথিবীতে ১৭৭তম স্থানে আছে। গত বছর তাদের র‍্যাঙ্কিং ছিল ১৭২। অন্যদিকে, আইআইটি দিল্লি ১৯৩-এর জায়গায় এই বছর ১৮৫তম স্থান অর্জন করেছে। আইআইএসসি পেয়েছে ১৮৬তম স্থান। সেরা ৫০০র মধ্যে থাকা অন্যান্য ভারতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে আইআইটি ম্যাড্রাস পেয়েছে ২৫৫তম স্থান। তারপর আছে আইআইটি কানপুর, খড়গপুর, গুয়াহাটি এবং রুরকি। দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয় ৫০০ থেকে ৫১০-এর মধ্যে আছে। জেএনইউ প্রথমবার ৬০০-র মধ্যে স্থান পেয়েছে। এই বছরের কিউএস র‍্যাঙ্কিংয়ে মোট ৩৫টি ভারতীয় বিশ্ববিদ্যালয় স্থান পেয়েছে।

আরও পড়ুন: উত্তরাখণ্ডে করোনা আক্রান্ত প্রায় ৩ হাজার পুলিশ কর্মী, ৯৩% আক্রান্ত ভ্যাকসিনের দু’টি ডোজ নেওয়ার পরেও

মোদি সরকার ঘোষিত ইন্সটিটিউটস অফ এমিনেন্স (আইওই) প্রকল্পের কারণেই আজ এই বিশ্ববিদ্যালয়গুলো সারা পৃথিবীতে নাম করে নিয়েছে। বর্তমানে ১০টি প্রাইভেট এবং ১০টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়কে আইওই-র আওতায় আনা হয়েছে, যার মধ্যে আইআইএসসি বেঙ্গালুরু, আইআইটি বম্বে এবং আইআইটি দিল্লিও রয়েছে। উল্লেখ্য, আইআইটি এবং আইআইএসসি চলে সরকারি সাহায্যে এবং প্রাইভেট প্রতিষ্ঠানগুলি সরকারি নিয়ম অনুযায়ী স্বশাসন মেনে চলে।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *