মাত্র ৫ দিনেই ৮ হাজার আবেদন জমা পড়েছে স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের

Mysepik Webdesk: মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত ধরে রাজ্যে চালু হয়ে গিয়েছে স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড। গত বুধবার নবান্নে একটি সাংবাদিক বৈঠকে স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের ঘোষণা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি জানিয়েছিলেন, ছাত্র-ছাত্রীরা উচ্চ শিক্ষার জন্য ১৫ বছরের জন্য ঋণ পাবেন। তাছাড়া ওই কার্ডের মাধ্যমে তারা ৪০ বছর বয়স পর্যন্ত ঋণ নিতে পারবেন। সর্বোচ্চ ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ঋণ পাওয়া যাবে। নবান্ন সূত্রে খবর, প্রকল্পটি চালু হওয়ার মাত্র ৫ দিনের মধ্যে ৮ হাজার আবেদন জমা পড়েছে।

আরও পড়ুন: রাজ্য সরকারের কৃষকবন্ধু প্রকল্পের প্রথম কিস্তির টাকা পেলেন রাজ্যের ৬২ লক্ষ কৃষক

মনে করা হচ্ছে, মাত্র পাঁচ দিনের মধ্যে এই প্রকল্পের জন্য এত বিপুল আবেদন খুবই অপ্রত্যাশিত। ৮ হাজার আবেদনের মধ্যে শুধুমাত্র কলকাতা থেকেই আবেদনা জমা পড়েছে ৬ হাজার। বাকি দু’হাজার আবেদন জমা পড়েছে রাজ্যের অন্যান্য জেলাগুলি থেকে। তাছাড়া কলকাতার মধ্যে সবচেয়ে বেশি আবেদন এসেছে বালিগঞ্জ ও যাদবপুর এলাকা থেকে। জানা গিয়েছে, এই কার্ডের মাধ্যমে যে লোন পাওয়া যাবে, তা শুধুমাত্র স্নাতক কিংবা স্নাতকোত্তরই নয়, এমনকি ডাক্তারি, আইএএস, আইপিএস, ডব্লিউবিসিএস বা যে কোনও ডিপ্লোমায় পড়ার জন্যও ছাত্রছাত্রীরা লোনের সুবিধা গ্রহণ করতে পারবেন।

আরও পড়ুন: বাংলায় আরও কমল করোনা সংক্রমণ, স্বস্তি নবান্নের

ঋণ নেওয়ার শর্ত অনুযায়ী, অন্তত ১০ বছর ধরে ঋণগ্রহীতাকে পশ্চিমবঙ্গের বাসিন্দা হতে হবে। ঋণের মেয়াদ হবে সর্বোচ্চ ১৫ বছর। ৪০ বছর বয়স পর্যন্ত স্টুডেন্ট কার্ডের আবেদন করা যাবে। আবেদন করা যাবে www.wb.gov.in ওয়েবসাইট থেকে। এছাড়াও কার্ডের বিষয়ে বিস্তারিত জানতে 18001028014 এই টোল ফ্রি নম্বরে ফোনে করা যাবে। পড়ুয়াদের লোনের বিষয়ে গ্যারেন্টের থাকবে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। লোন দেবে যে কোনও রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্ক, বেসরকারি ব্যাঙ্ক এবং কিছু আঞ্চলিক গ্রামীণ ব্যাঙ্ক। লোন দেওয়ার ক্ষেত্রে পড়ুয়াদের ব্যাংকগুলি ছাত্র-ছাত্রীর পরিবারের সম্পত্তির পরিমান, পরিবারের সিকিউরিটি ডিপোজিট আছে কিনা, অবিভাবকরা কীভাবে লোন শোধ করবেন, এইসব বিষয়গুলি সম্পর্কে একটি প্রশ্নও করতে পারবে না।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *