অলিম্পিকে শ্যুটিং ইভেন্টে ভারতের নজর থাকবে ১৮ বছরের দিব্যাংশের ওপর

Mysepik Webdesk: দিব্যাংশ সিং পানওয়ার বেইজিংয়ে ২০১৯ আইএসএসএফ বিশ্বকাপে ১০ মিটার এয়ার রাইফলে রুপোর পদক জিতে টোকিওর অলিম্পিকে যোগ্যতা অর্জন করেছিলেন। তাঁর বয়স মাত্র ১৮। দিব্যাংশ এখন পর্যন্ত চারটি আইএসএসএফ বিশ্বকাপে স্বর্ণপদক পেয়েছেন। জুনিয়র বিশ্বকাপেও তিনি দেশের হয়ে সোনার পদক জিতেছেন। একইসঙ্গে দুই জুনিয়র বিশ্বকাপে রেকর্ডও গড়েছেন। টোকিওয় এই অ্যাথলিটের কাছেও পদক জয়ের প্রত্যাশা রয়েছে। রাজস্থানে জন্মানো এই অ্যাথলিটের ছোট থেকেও শ্যুটিংয়ের শখ ছিল। মাত্র ১২ বছর বয়সে, ২০১৪ সালে, জয়পুরের জাঙ্গপুরা শ্যুটিং রেঞ্জে তাঁর বড় বোন অঞ্জলির সরঞ্জাম ব্যবহার করে শ্যুটিং শুরু করেছিলেন। ২০১৭ সালে, দিব্যাংশের বাবা ছেলের ‘পাবজি খেলার আসক্তি’ দেখে চিন্তিত হয়ে পড়েছিলেন এবং তাঁকে নয়াদিল্লির ডা. কার্ণি সিং শ্যুটিং রেঞ্জে ভর্তি করান, যেখানে তিনি দীপক কুমার দুবের অধীনে প্রশিক্ষণ নিয়েছিলেন। দিব্যাংশও একটি সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন যে, তিনি একসময় পাবজিতে মত্ত ছিলেন। তবে এখন তাঁর লক্ষ্য, দেশের হয়ে অলিম্পিকে একটি পদক জেতা।

আরও পড়ুন: আজুরি না থ্রি লায়ন্স, ইউরোয় কে হাসবে শেষ হাসি

দিব্যাংশের বাবা অশোক পানওয়ার জয়পুরের সওয়াই মানসিংহ মেডিক্যাল কলেজে সিনিয়র নার্সিং স্টাফ হিসাবে কর্মরত আছেন। মা নির্মলা দেবী একজন নার্স। তিনি বাড়িতে একটি মেডিক্যাল স্টোর চালান। দিব্যাংশ ২০০৮ বেজিং অলিম্পিকে স্বর্ণপদক জয়ী অভিনব বিন্দ্রাকে নিজের রোল মডেল মনে করেন। তিনি একটি সাক্ষাত্কারে জানিয়েছিলেন যে, তিনি অভিনব বিন্দ্রাকে টিভিতে পদক জিততে দেখেছিলেন। তিনিও একইভাবে দেশের হয়ে পদক জিততে চান। দিব্যাংশ ২০১৯ সালে আইএসএসএফ বিশ্বকাপে ৬টি পদক জিতেছিলেন। যার মধ্যে চারটি সোনা, একটি রুপো এবং একটি ব্রোঞ্জ মেডেল ছিল। তিনি ১০ মিটার এয়ার রাইফেলে ব্যক্তিগতভাবেও একটি সোনা এবং একটি রুপোর পদক জিতেছিলেন। মিক্সড ডাবলসে তিনি তিনটি সোনা এবং একটি ব্রোঞ্জ পদকও অর্জন করেছিলেন। দিব্যাংশ জুনিয়র ওয়ার্ল্ড শ্যুটিং চ্যাম্পিয়নশিপ এবং জুনিয়র ওয়ার্ল্ড কাপে দু’টি সোনা সহ তিনটি পদক জিতেছেন। ২০১৮ সালের জুনিয়র ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়নশিপে মিক্সড ইভেন্টে তিনি ব্রোঞ্জ পদক জিতেছিলেন। বিশ্বকাপেও তাঁর দু’টি স্বর্ণপদক জেতার কৃতিত্ব রয়েছে।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *