হিংসায় উসকানি, অভিশংসিত হয়ে মুখে কুলুপ ডোনাল্ড ট্রাম্পের

Donald Trump

Mysepik Webdesk: হিংসায় উসকানি দেওয়ার অভিযোগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে অভিশংসন করা হয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি পরিষদ কর্তৃক অভিশংসিত হয়েছেন ট্রাম্প। ভারতীয় সময় বৃহস্পতিবার ভোররাতে ট্রাম্পকে অভিশংসনের বা ইমপিচমেন্ট প্রস্তাব পাস হয়। উল্লেখ্য যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদে ২৩২-১৯৭ ভোট মার্জিনে এই প্রস্তাবটি পাস হয়েছে। ‘সিএনএন’ থেকে পাওয়া গিয়েছে এই তথ্য।

আরও পড়ুন: স্পেনে তুষারঝড়, তাপমাত্রা মাইনাস ২৫, মৃত ৭

সিএনএন সূত্র অনুযায়ী, সাম্প্রতিক হামলার পরিপ্রেক্ষিতে ক্যাপিটল হিলে শুরু হয় প্রতিনিধি পরিষদের অধিবেশন। প্রবল নিরাপত্তাও মোতায়েন ছিল। এরপর ভোটাভুটি হয়। তার আগে এই অধিবেশনে চলে উত্তপ্ত বাক্যবিনিময়ও। অন্যদিকে, মার্কিন ন্যাশনাল গার্ড সদস্যরাও এই অধিবেশনে অংশগ্রহণ করেছিলেন। দেড়শো বছর আগে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের গৃহযুদ্ধের পর ন্যাশনাল গার্ডের সদস্যরা এই প্রথম কংগ্রেস ভবনের ভেতরে অবস্থান গ্রহণ করেন। নিরাপত্তা রক্ষার প্রয়োজনেই ছিল এই পদক্ষেপ বলে ওয়াকিবহাল মহল মনে করছেন।

আরও পড়ুন: করোনার নতুন স্ট্রেন এবার জাপানে, উদ্বিগ্ন বিশেষজ্ঞরা

উল্লেখ্য যে, এর আগেও ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগ ২০২০ সালে আরও একবার প্রতিনিধি পরিষদে অভিশংসিত হয়েছিলেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এই ৪৫তম প্রেসিডেন্ট। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে ডোনাল্ড ট্রাম্পই প্রথম প্রেসিডেন্ট, যাঁকে ক্ষমতার অপব্যবহারের জন্য দু’বার অভিশংসিত হতে হল। সেই যাত্রায় ক্যাবিনেটে ভোটাভুটির মাধ্যমে তাঁর পদ রক্ষা হয়েছিল। তবে ক্যাপিটল হিলে ৬ জানুয়ারির হামলার পরিপ্রেক্ষিতে এবার ট্রাম্পের পক্ষে চিত্রটা সুখকর নয়। হয়তো ভবিষ্যতে আর প্রেসিডেন্টও হতে পারবেন না তিনি। আর ২০ জানুয়ারির আগেই তাঁকে বিদায় নিতে হচ্ছে কিনা, তাও জানা যাবে খুব শীঘ্রই বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন।

আরও পড়ুন: ট্রাম্প সমর্থকদের ৭০ হাজার অ্যাকাউন্ট বন্ধ করল টুইটার

এদিকে, অভিশংসনের খবর শোনার পর মুখে কুলুপ এঁটেছেন ট্রাম্প। তিনি সমর্থকদের শান্ত থাকতে বলেছেন। এক ভিডিয়ো ববার্তায় তিনি বলেন, ‘‘আমার কোনও সত্যিকারের সমর্থক রাজনৈতিক হিংসার ঘটনা ঘটাবে না। যাঁরা সত্যিকারের সমর্থক, আইনের অনুশাসনকে অশ্রদ্ধাও করবে না। কোনওভাবেই মহান যুক্তরাষ্ট্রের পতাকার অসম্মানও তারা করবে না। আমাদের অ্যাজেন্ডা বিশ্বাস যাঁরা করেন, তাঁরা দেশে শান্তির প্রচারে সহায়তার করতে বিভিন্ন উপায় বাতলে দিতে সাহায্য করবে।’’

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *