Latest News

Popular Posts

রাষ্ট্রসংঘের সভায় মাইক বিভ্রাটের শিকার হলেন ভারতীয় কূটনীতিবিদ প্রিয়াঙ্কা সোহনি

রাষ্ট্রসংঘের সভায় মাইক বিভ্রাটের শিকার হলেন ভারতীয় কূটনীতিবিদ প্রিয়াঙ্কা সোহনি

Mysepik Webdesk: মস্ত বিভ্রাটের শিকার হলেন তরুণ ভারতীয় কূটনীতিবিদ প্রিয়াঙ্কা সোহনি। চিনের বিতর্কিত প্রকল্পগুলির বিরুদ্ধে কথা বলছিলেন তিনি। তাঁর কথায় উঠে আসছিল চিন-পাকিস্তান ইকোনমিক করিডরের কথা। কিন্তু সেইসময় আচমকাই তাঁর মাইকটি বন্ধ হয়ে যায়। উল্লেখ্য যে, রাষ্ট্রসংঘের এই আলোচনা সভাটি চিনের পক্ষ থেকে আয়োজন করা হয়েছিল। চিনের অন্যতম স্বপ্নের প্রজেক্ট বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটভ এবং চিন-পাকিস্তান ইকোনমিক করিডরে নিজের বক্তব্য রাখছিলেন প্রিয়াঙ্কা। চিনের এই উদ্যোগে প্রভাব পড়ছে ভারতের অন্দরে। যাতে ভারতের সার্বভৌমত্ব এবং আঞ্চলিক অখণ্ডতার হস্তক্ষেপ করা হচ্ছে বলেও সোচ্চার হন প্রিয়াঙ্কা।

আরও পড়ুন: খুব শীঘ্রই সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম চালু করতে চলেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প

কিন্তু তাজ্জব ব্যাপার হল যখন তিনি যেসময় তাঁর বক্তব্যের তীব্রতা বাড়াচ্ছিলেন, সেই সময়ই আচমকা তাঁর মাইকটি বন্ধ হয়ে যায়। বিষয়টি ইশারার মাধ্যমে জানান তিনি। ওই আলোচনাসভার নেতৃত্বে ছিলেন চিনের পরিবহণ মন্ত্রী লি জিয়াওপেং। লি প্রযুক্তিবিদদের নজরে আনেন বিষয়টি। প্রিয়াঙ্কার কাছে ক্ষমাও চেয়ে নেন চিনা পরিবহণ মন্ত্রী। প্রিয়াঙ্কাকে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করতে বলেন তিনি।

রাষ্ট্রসংঘের আন্ডার-সেক্রেটারি-জেনারেল চিনের প্রাক্তন উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী লিউ ঝেনমিন সম্মেলন কক্ষে সাউন্ড সিস্টেম ঠিক হওয়ার পর বলেন― “প্রিয় অংশগ্রহণকারীরা, আমরা দুঃখিত। আমরা কিছু প্রযুক্তিগত সমস্যার মুখোমুখি হয়েছি। সোহনিকে তাঁর বক্তব্য পুনরায় শুরু করতে বলছি।” এরপর প্রিয়াঙ্কা তাঁর বক্তব্য শুরু করেন। ভারতীয় কূটনীতিবিদ প্রিয়াঙ্কা বলেন, “এই সম্মেলনে বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভ (বিআইআই)-এর কিছু উল্লেখ করা হয়েছে। এখানে আমি বলতে চাই যে, চিনের বিআইআই-তে আমরা অসম প্রভাবিত হয়েছি। চিন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডরে (সিপিইসি) এর অন্তর্ভুক্তি ভারতের সার্বভৌমত্বকে লঙ্ঘন করে। বিআইআই-র লক্ষ্য চিনের প্রভাব বৃদ্ধি। তাদের উদ্দেশ্য হল দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া, মধ্য এশিয়া, উপসাগরীয় অঞ্চল, আফ্রিকা এবং ইউরোপকে স্থল ও সমুদ্রপথকে একটি নেটওয়ার্কের মাধ্যমে সংযুক্ত করা।”

আরও পড়ুন: মানবদেহে সফলভাবে শূকরের কিডনি প্রতিস্থাপনে নতুন নজির মার্কিন সার্জনদের

প্রিয়াঙ্কার কথায়, “কোনও দেশ এমন উদ্যোগকে সমর্থন করতে পারে না। কারণ এটি সার্বভৌমত্ব এবং আঞ্চলিক অখণ্ডতাকে প্রভাবিত করে।” উল্লেখ্য, ভারতীয় কূটনীতিবিদের বক্তব্যের আগে একজন পাকিস্তানি কূটনীতিবিদ বিআইআই এবং সিপিইসি-র প্রশংসা করেছিল। এগুলিকে এই অঞ্চলের জন্য গুরুত্বপূর্ণ বলেও অভিহিত করেছিলেন তিনি। বলা চলে, ভারতীয় কূটনীতিবিদ প্রিয়াঙ্কা সোহনি তাঁর বক্তব্যে বুঝিয়ে দিলেন যে, সত্যিটা মুখের ওপর বলতে ভারত পারে।

টাটকা খবর বাংলায় পড়তে লগইন করুন www.mysepik.com-এ। পড়ুন, আপডেটেড খবর। প্রতিমুহূর্তে খবরের আপডেট পেতে আমাদের ফেসবুক পেজটি লাইক করুন। https://www.facebook.com/mysepik

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *