ভারতের দৈনিক করোনা আক্রান্ত ৫০ হাজার পেরোল, নেপথ্যে ডেল্টা প্লাস ভ্যারিয়েন্ট?

Mysepik Webdesk: চলতি বছরের মাছ নাগাদ ভারতে প্রবল গতিতে বাড়তে শুরু করেছিল করোনাভাইরাসের সংক্রমন। লকডাউন ও কড়া বিধিনিষেধ আরোপের ফলে সেই গতি অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে এসেছিল মে মাসের দিকে। গত কয়েকদিন ধরে দেশে দৈনিক করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৫০ হাজারের নিচে নেমে এসেছিল। করোনার ক্রমহ্রাসমান সেই গ্রাফে কিছুটা স্বস্তি মিলতে না মিলতেই ফের নতুন আতঙ্ক ছড়াল ডেল্টা প্লাস ভ্যারিয়েন্ট। গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে গেল ৫০ হাজারের উপর।

আরও পড়ুন: দুটি ডোজ নেওয়া সত্ত্বেও ডেল্টা প্লাসে আক্রান্ত মহিলা, প্রশ্ন ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা নিয়ে

কেন্দ্রের স্বাস্থ্য মন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘন্টায় দেশজুড়ে নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৫০ হাজার ৪০ জন। এই নিয়ে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৩ কোটি ২ লক্ষ ৩৩ হাজার ১৮৩ জন। গত ২৪ ঘন্টায় মেইটটু হয়েছে ১ হাজার ২৫৮ জনের। এই নিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৩ লক্ষ ৯৫ হাজার ৭৫১ জন। অন্যদিকে একদিনে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৫৭ হাজার ৯৪৪ জন। মোট সুস্থ হয়েছেন ২ কোটি ৯২ লক্ষ ৫১ হাজার ২৯ জন। এক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা ৫ লক্ষ ৮৬ হাজার ৪০৩ জন।

আরও পড়ুন: ত্রিপুরায় বিজেপি শিবিরের অন্তর্দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে, বিপ্লব দেবের গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে গরহাজির একাধিক নেতা

এদিকে বিশেষজ্ঞরামনে করছেন, ভারতে ‘ডেল্টা প্লাস’ ভ্যারিয়্যান্টটিই বয়ে আনবে করোনার তৃতীয় ঢেউ। গত সপ্তাহে মহারাষ্ট্রের স্বাস্থ্য দপ্তর এই ভ্যারিয়েন্টটি নিয়েই আশঙ্কা প্রকাশ করেছে। করোনার তৃতীয় ঢেউ নিয়ে মানুষকে সতর্ক হতেও বলেছিল মহারাষ্ট্রের স্বাস্থ্য দপ্তর। বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, ডেল্টা প্লাস ভ্যারিয়্যান্টে আক্রান্ত ব্যক্তির শরীরে সাধারণত কোভিডের চেনা উপসর্গগুলি দেখা যাচ্ছে না। বেশ কিছু নতুন উপসর্গ দেখা যাচ্ছে তাদের শরীরে। যদিও পুরো বিষয়টা নিয়েই বর্তমানে গবেষণা করছেন গবেষকরা। তবুও দেশে দৈনিক ক্রমহ্রাসমান আক্রান্তের কারণে দেশবাসী কিছুটা স্বস্তি অনুভব করলেও কোথাও যেন একটু একটু করে আশঙ্কার মেঘ জমছে এই ‘ডেল্টা প্লাস’ ভ্যারিয়্যান্ট নিয়ে।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *