মাস্কহীন হতে বিশ্বকে পথ দেখাচ্ছে ইসরাইল

বিশ্বে করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউতে নাজেহাল মানুষ। পরিস্থিতি সামলাতে হিমশিম খেয়ে যাচ্ছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। করোনা মহামারি ঠেকাতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার পাশাপাশি মানুষকে বারবার মাস্ক পরার পরামর্শ দিচ্ছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিশেষজ্ঞরা। এই পরিস্থিতিতে সম্পূর্ণ ভিন্ন পথে হাঁটছে ইসরাইল। গত রবিবার ইসরাইল সরকার মাস্ক পরার ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়েছে। শুধু তাই নয়, দেশটিতে ফের আগের মতোই স্কুল-কলেজ, বার-রেস্তরাঁ, সিনেমাহল-সহ সবকিছুই খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তবে কোনও ইনডোরে, বিশেষ করে যেখানে জনসমাগম বেশি হয়, সেখানে মাস্ক পরার নিয়ম অব্যাহত রেখেছে।

আরও পড়ুন: কোভিড-১৯ অতিমারি: বাংলাদেশ

সংবাদসংস্থা রয়টার্স জানাচ্ছে, করোনাভাইরাস মহামারি নিয়ন্ত্রণে আনতে দেশটির সরকার ব্যাপক হারে ভ্যাকসিন প্রয়োগের ওপর গুরুত্ব দিয়েছে। পাশাপাশি দেশের অর্থনৈতিক পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে তুলে নেওয়া হয়েছে করোনাভাইরাস সংক্রান্ত প্রায় সবকিছু নিষেধাজ্ঞা। তবে এখনও পর্যন্ত বিদেশিদের ওই দেশে প্রবেশের ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা জারি রেখেছে। তবে ইসরাইলের কোনও ব্যক্তি দেশে ফিরলে তাকে বাধ্যতামূলকভাবে অন্তত ১০ দিনের জন্য কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হচ্ছে।

আরও পড়ুন: সংখ্যালঘু উইঘুরদের উপর অত্যাচার এবং গণহত্যা চিন সরকারের

জানা গিয়েছে ইসরাইল সম্প্রতি প্রচুর পরিমাণে ফাইজার ও বায়োটেকের টিকা আমদানি করছে। শুধু তাই নয়, দেশটির প্রায় ৮১ শতাংশ মানুষ ইতিমধ্যেই টিকা নিয়েছেন। এতেই নিয়ন্ত্রণে আনা গিয়েছে সংক্রমণকে। সিএনএ-র খবরে জানা গিয়েছে, ইসরাইলের স্বাস্থ্যমন্ত্রী ইয়াকভ লিটজম্যানের ঘোষণার আগেই সেই দেশের একটি বারে মাস্ক ছাড়াই বহু মানুষের জমায়েত লক্ষ করা গিয়েছিল। এর পাশাপাশি ওই দেশের একাধিক বাজারেও মানুষকে মুখবরণ ছাড়াই ঘুরতে দেখা গিয়েছে। উল্লেখ্য যে, দেশটির মোট ৯৩ লাখ জনসংখ্যার প্রায় ৫৪ শতাংশ মানুষই ফাইজার-বায়োটেক ভ্যাকসিনের দুটি ডোজই গ্রহণ করেছেন। ইসরাইলের এমন দৃষ্টান্তমূলক পদক্ষেপ দেখে একথা বলাই যায় যে গোটা বিশ্বকে এক ইতিবাচক বার্তা দিয়েছে মধ্যপ্রাচ্যের এই দেশটি। এখন দেখার বিষয়, পশ্চিমা বিশ্ব-সহ গোটা পৃথিবী ইসরাইলের দেখানো পথে অনুসরণ করে কিনা।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *