Latest News

Popular Posts

বাঁকুড়ার লোকদেবতা লোকেশ্বর

বাঁকুড়ার লোকদেবতা লোকেশ্বর

রামামৃত সিংহ মহাপাত্র 

বাঁকুড়া জেলার বিভিন্ন জায়গা থেকে প্রাপ্ত লোকেশ্বর বিষ্ণুর মূর্তিগুলো পর্যালোচনা করলে কতগুলো সাধারণ বৈশিষ্ট্য লক্ষ করা যায়। যথা—

১) মূর্তিগুলি বেশিরভাগই সম্পদস্থানক ভঙ্গিতে পদ্মের উপর দণ্ডায়মান। 

২) সাধারণভাবে চর্তুভুজ, ষড়ভুজ বা দ্বাদশভুজ। শঙ্খ, চক্র, গদা, পদ্ম শোভিত তবে কোনও কোনও এক্ষেত্রে এগুলো ছাড়াও কিছু বিচিত্র অস্ত্রের সন্ধান পাওয়া গেছে।

৩) দেবতার দু’পাশে লক্ষ্মী, সরস্বতীর পরিবর্তে রয়েছে আয়ুধপুরুষ।

৪) বনমালা এবং উপবীতের সুস্পষ্ট উপস্থিতি।

৫) দেবমূর্তির মাথার পিছনভাগে অলংকৃত সর্পফণার উপস্থিতি।

৬) বেশিরভাগ বিষ্ণুমূর্তির পিছনে পদ্মাসনে উপবিষ্ট ধ্যানমুদ্রা সংবলিত ক্ষুদ্রাকৃতির অবলোকিতেশ্বরের মূর্তি বর্তমান। 

আরও পড়ুন: রাঢ়ের আর্যায়ণ প্রক্রিয়া

ভগ্ন লোকেশ্বর বিষ্ণুর মন্দির

ক্ষেত্রসমীক্ষায় বাঁকুড়া জেলার বিভিন্ন অঞ্চল থেকে প্রাপ্ত লোকেশ্বর বিষ্ণু মূর্তিগুলির উপর আলোকপাত করা হল।

পাঁচপুকুরিয়া ইঁদপুর ব্লকের ভেদুয়াশোলের নিকটে অবস্থিত পাঁচপুকুরিয়া। এখানে একটি জীর্ণমন্দিরের মধ্যে লোকেশ্বর বিষ্ণুর মূর্তিটি রাখা হয়েছে। আয়তন (৮২×৪১×৯)। অনুমান দ্বাদশ শতকে নির্মিত। মূর্তিটি ভগ্নপ্রায়। দু’পাশে দু’টি মূর্তির অবস্থান লক্ষণীয়। এছাড়াও বেদিমূলে উপবিষ্ট দু’টি মূর্তির আভাস রয়েছে।

জোড়দা জোড়দা ব্রাহ্মণডিহায় ব্রহ্মামন্দির প্রত্নস্থলে রয়েছে দু’টি লোকেশ্বর বিষ্ণু মূর্তি। দু’টির একটি রয়েছে মন্দিরের মধ্যে অন্যটি বাইরে। মন্দিরের ভেতরের মূর্তিটি আভঙ্গ দ্বিভঙ্গ ছন্দে বিশ্বপদ্মে অধিষ্ঠিত। আয়তন ৭৫×৩৫। প্রস্তর নির্মিত। বিশ্বপদ্মের দু-পাশে দু’টি ক্ষুদ্রাকৃতি প্রতিকৃতি হাতির পিঠে আসীন। নৃত্যরত প্রতিকৃতি। পিছনের উপরিভাগে বামদিকে আরও একটি প্রতিকৃতির অবস্থান লক্ষ করা যায়। যার হাতে রয়েছে খেটক জাতীয় অস্ত্র এবং সেটিও বিশ্বপদ্মে অধিষ্ঠিত। মন্দিরের বাইরে থাকা মূর্তিটি ভগবান বিষ্ণুর বামনাবতারের। ত্রিরথ সদৃশ বেদির কেন্দ্রস্থলে চতুর্ভুজ নৃত্যরত মূর্তি বর্তমান। 

আরও পড়ুন: জেলার নাম বাঁকুড়া

বামন অবতার

বিহারীনাথ মূর্তিটি দ্বাদশভুজ। ১৪৫×৬০। প্রস্তর নির্মিত। প্রধান মূর্তির পদপ্রান্তে হস্তীপৃষ্ঠে উপবিষ্ট দু’টি মূর্তি পরিলক্ষিত হয়। বেদিমূলে চতুর্বাহু বিশিষ্ট নৃত্যরত মূর্তি ছাড়াও পশ্চাৎপদে মূল বিগ্রহের পাশে আরও দু’টি মূর্তি লক্ষ করা যায়।

রুদ্র রুদ্র অঞ্চল থেকে একটি দ্বিখণ্ডিত মূর্তি পাওয়া গেছে। এর উপরের অংশ ৪২×৬০×১২ এবং নীচের অংশ ৭১×৬২×১৩। ভগ্নপ্রায় মূর্তিটি পাওয়া গেছে হাটতলা সংলগ্ন অঞ্চল থেকে। প্রধান প্রতিমার পদপ্রান্তে দু’টি হস্তী উপবিষ্ট মূর্তি উৎকীর্ণ। পাঠপীঠ দশজন ভক্তের প্রতিকৃতি দ্বারা সজ্জিত। প্রতিকৃতিগুলি বেদিমূলের নৃত্যরত মূর্তিতে প্রণামরত। যারা দ্বারা ভক্ত বলে প্রতীয়মান হয়।

দেউলভিড়া দেউলভিড়া থেকে প্রাপ্ত মূর্তিটি ৯৮×৪৯। প্রস্তর নির্মিত। মূল প্রতিমার দু-পাশে আয়ুধপুরুষ রয়েছে। মূলপ্রতিমা এবং আয়ুধপুরুষের মাঝখানে দু-পাশে আরো দু’টি ক্ষুদ্রাকৃতির প্রতিকৃতি বর্তমান। 

এক্তেশ্বর দেউলভিড়ার অনুরূপ একটি লোকেশ্বর বিষ্ণুর মূর্তি রয়েছে এক্তেশ্বরে। ৭৫×৫৬; প্রস্তর নির্মিত। 

পাকরুল প্রস্তর নির্মিত। খাঁদারানি নামে পরিচিত।

সলদা মূর্তিটির নিম্নাংশ ভগ্ন। ললিতাসনে বিশ্বপদ্মে অধিষ্ঠিত মূর্তিটির মাথার পিছনে প্রভামণ্ডল বর্তমান। 

ধুমকরা প্রস্তর নির্মিত। 

আরও পড়ুন: হতভাগ্য স্বামীর বিলাপ

লোকেশ্বর বিষ্ণু

ঐতিহাসিক রাখালদাস বন্দ্যোপাধ্যায় এগুলিকে মহাযান শাখার লোকেশ্বর মূর্তি হিসাবে চিহ্নিত করেছেন। অনেক গবেষকদের মতে, লোকেশ্বর এবং বিষ্ণু দু’জন পৃথক দেবতা। এগুলিকে লোকেশ্বরের মর্যদা দিলে বলা অত্যুক্তি হবে না শুধু জৈন নয়, বাঁকুড়ার বিস্তীর্ণ অঞ্চলে একদা বৌদ্ধধর্মাবলম্বীরাও শাখা বিস্তার করেছিলেন। কোন কোন অঞ্চল থেকে প্রাপ্ত বৌদ্ধযক্ষিণী মূর্তি এই তথ্যের দৃঢ়তা প্রদান করে। গবেষকদের মতে মূর্তিগুলোর নির্মাণকাল খ্রিস্টীয় দশম থেকে দ্বাদশ শতক। মূর্তির সৃষ্টিতত্ত্ব নিয়ে বিতর্ক থাকলেও এই অঞ্চল থেকে প্রাপ্ত বেশিরভাগ লোকেশ্বর বিষ্ণু মূর্তিগুলোর গঠনতত্ত্বে জৈন মূর্তি গঠনের সুস্পষ্ট চিহ্ন বর্তমান। সেই সঙ্গে ব্রাহ্মণ্য এবং বৈষ্ণব ধারার প্রভাবও পরিলক্ষিত। তাই বলা যেতে পারে বাঁকুড়া জেলা জুড়েই আদিবাসী সংস্কৃতির পাশাপাশি ব্রাহ্মণ্য, বৈষ্ণব, বৌদ্ধ এবং জৈনধর্ম সমান্তরালভাবে বিকশিত হয়েছিল। উদাহরণস্বরূপ বলা যেতে পারে দ্বাদশবাহু যুক্ত লোকেশ্বর বিষ্ণুর মূর্তিগুলি বিষ্ণুর বিশ্বরূপ প্রতিমা দ্বারা অনুপ্রাণিত। 

ভগ্ন লোকেশ্বর বিষ্ণুর মন্দির ও লোকেশ্বর বিষ্ণুর চিত্র সুজিত দাস

টাটকা খবর বাংলায় পড়তে লগইন করুন www.mysepik.com-এ। পড়ুন, আপডেটেড খবর। প্রতিমুহূর্তে খবরের আপডেট পেতে আমাদের ফেসবুক পেজটি লাইক করুন। https://www.facebook.com/mysepik

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *